বন্ধ একাধিক পরিষেবা, করোনা সংক্রমণ আটকাতে মুখ্যমন্ত্রীর ১০টি বড় ঘোষণা

মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে বুধবার তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃতীয়বারের জন্য শপথ গ্রহণ করার সাথে সাথেই ঘোষণা করেছিলেন তার প্রথম কাজ হলো করোনা মোকাবিলা করা। আর যেমন কথা তেমন কাজ।

শপথ গ্রহণের পরেই চলে যান নবান্ন এবং সেখানে দীর্ঘক্ষণ বৈঠক করে করোনা রুখে দেওয়ার জন্য ৭ দাওয়াই ঘোষণা করলেন। এই ৭ দাওয়াইয়ে একাধিক ক্ষেত্র বন্ধ করা হচ্ছে অথবা ক্ষেত্রের উপর লাগাম টানা হচ্ছে।

বর্তমান পরিস্থিতিতে আগামীকাল থেকে রাজ্যের প্রতিটি অংশে সমস্ত রকম লোকাল ট্রেন চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হল। লোকাল ট্রেনে মানুষের গাদাগাদি হওয়ার কারণে এই সিদ্ধান্ত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বাজার এবং দোকান খোলা থাকবে সকাল সাতটা থেকে দশটা এবং দুপুর তিনটে থেকে পাঁচটা পর্যন্ত।

সংকটের মাঝেই অবশেষে স্বস্তির খবর, করোনামুক্ত পশ্চিমবঙ্গের দুই জেলা

বেসরকারি সংস্থার কর্মচারীদের উপস্থিতির হার হতে হবে ৫০ শতাংশ এবং বাকিদের ওয়ার্ক ফ্রম হোম করাতে হবে। গণ পরিবহণের ক্ষেত্রে বাস এবং মেট্রোর সংখ্যা অর্ধেক করা হবে। আগামীকাল থেকেই এই নিয়ম কার্যকর হচ্ছে।

গয়নার দোকান খোলা থাকবে দুপুর ১২ টা থেকে দুপুর তিনটে পর্যন্ত। ব্যাঙ্ক খোলা ও বন্ধের সময় পরিবর্তন। এখন থেকে ব্যাঙ্কের শাখা খোলা থাকবে সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ২ টো পর্যন্ত। অর্থাৎ পরিষেবার সময় কমিয়ে দেওয়া হলো।

বিমানে আসা-যাওয়া করতে গেলে আবশ্যিকভাবে করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ লাগবে। পরবর্তী নির্দেশিকা জারি না পর্যন্ত সম্পূর্ণভাবে বন্ধ থাকবে শপিং মল, রেস্তোরাঁ, বার, জিম, স্পোর্টস কমপ্লেক্স, সুইমিংপুল, স্পা, বিউটি পার্লার এবং সিনেমা হল।

সমস্ত রকম সামাজিক সাংস্কৃতিক এবং রাজনৈতিক সমাবেশ নিষিদ্ধ থাকছে পরবর্তী নির্দেশিকা জারি না হওয়া পর্যন্ত। সরকারি দপ্তরে আধিকারিক ও কর্মীদের হাজিরা হিসাবে ৫০% করার নির্দেশ দেওয়া হলো।