ছবিতে একের পর এক অশ্লীল মন্তব্য, চরম সিদ্ধান্ত নিলেন অভিনেত্রী ঊষসী রায়

সিনে ইন্ডাস্ট্রির নায়ক-নায়িকারা কীভাবে থাকছেন, কার সঙ্গে থাকছেন, কী পরছেন, কোথায় যাচ্ছেন, কার সঙ্গে যাচ্ছে এই নিয়ে সাধারন মানুষের কৌতূহলের অন্ত থাকে না। গ্ল্যামার দুনিয়ার কলাকুশলীদের ব্যক্তিগত জীবনটা যেন আর ব্যক্তিগত নেই। সব সময়ই তারা ওপেন ফোরামে থাকে। ক্যামেরা সব সময় তাদের দিকে তাক করাই থাকে। এই কারণে উঠতে-বসতে সবসময় বিতর্ক ঘিরে ধরে তাদের।

আর নায়িকা হলে তো কথাই নেই। তথাকথিত আধুনিক প্রজন্ম এখনও মহিলাদের পোশাক দিয়েই তাদের বিচার করে থাকে। কোনও মহিলা যদি নিজের পছন্দ-অপছন্দকে গুরুত্ব দিয়ে সেইমতো পোশাক-পরিচ্ছদ পরেন তাহলেই সমাজের চোখে তিনি নিচে নেমে যাবেন! পোশাক নিয়ে তার চরিত্র বিশ্লেষণ করতে উঠেপড়ে লাগবে তথাকথিত এই আধুনিক সমাজ। অভিনেত্রী উষসী রায়ও এই সমাজের বাইরে নন। তাই কর্দমাক্ত সোশ্যাল মিডিয়ার কাদার ছিটে মাঝেমধ্যে তার পোশাকের উপরেও লাগে।

অভিনেত্রী সম্প্রতি তার পরিহিত একটি পোশাকের দরুন নেটদুনিয়ায় ব্যাপকভাবে সমালোচিত হয়েছেন। গত রবিবার ওয়েস্টার্ন ড্রেস পড়ে ক্যামেরার সামনে ধরা দিয়েছিলেন উষসী। নীল রঙের জিন্স এবং উপরের গেঞ্জি অনেকটা ক্রপ টপের আদলে মুড়ে রেখেছিলেন অভিনেত্রী। উন্মুক্ত ছিল তার নাভি। আর তার এই ছবিটিকে কেন্দ্র করেই একদল নেটিজেন সোশ্যাল মিডিয়ায় এর কমেন্ট বক্সে হামলে পড়েন কু-মন্তব্য করার জন্য।

Ushasi Ray

অনুরাগীদের একাংশের মতে, অভিনেত্রীকে কেবল বাঙালি সাজেই মানায়। এক জনের বক্তব্য, ‘নারীর প্রকৃত রূপ ফুটে ওঠে বাঙালি সাজে’। ঊষসীকে দেবী পার্বতীর সঙ্গে তুলনা করে সেই নেটাগরিকের পরামর্শ, ঊষসী যেন ‘গেঞ্জি মার্কা’ ছবি না তুলে বাঙালি সাজে নিজেকে সাজান। আরও এক নেটাগরিকের মতে, ‘যদিও আপনি যথেষ্ট সুন্দর, তবুও আপনাকে বাঙালি সাজেই ভাল লাগে’।

অন্য এক নেটাগরিক তাঁর রূপ নিয়ে সমালোচনা করলেন। নানা সাজে সেজে উঠলেও, তাঁকে দেখতে সুন্দর লাগে না। ওই ছবি দেখে কয়েক জন নেটাগরিক এতটাই বিচলিত যে তাঁদের মনে প্রশ্ন জেগেছে, কী করে তিনি ধারাবাহিকে সুযোগ পান?

Ushasi Ray

প্রথমটা অবশ্য এড়িয়ে যাওয়ার কথাই ভেবেছিলেন উষসী। তবে বারংবার সমালোচিত হয়ে অবশেষে মুখখুললেন অভিনেত্রী। অভিনেত্রীর কথায়, “আমার সাম্প্রতিকতম ছবিতে এক জন আমায় ‘দেবী পার্বতী’-র সঙ্গে তুলনা করেছেন। তার পরে বলেছেন, যে পোশাক আমি পরেছি, তা সুন্দর নয়। আমাকে বাঙালি সাজে সেজে ওঠার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে”।

“সেই ব্যক্তির উদ্দেশে বলতে চাই, আমাকে দেবীর সঙ্গে তুলনা না করে বাড়ির মহিলাদের সম্মান জানান। আমরা কেউ দেবী নই। সাধারণ মানুষ। আমাকে পুজো করেও লাভ নেই। আমি অতিলৌকিক পর্যায়ে নিজেকে নিয়ে যেতে পারব না। এক জন মহিলা হিসেবে আমার কেবল সম্মানের প্রয়োজন। যতটুকুর অধিকার আছে, ততটুকু সম্মান। আমার পোশাকের ভিত্তিতে আমি ‘দেবী’ বা ‘ডাইনি’ হয়ে যাই না”!

Ushasi Ray

তিনি আরও বলেন, “আমার হাতে কোনও অস্ত্র নেই, যা দিয়ে এই মানুষগুলোর মুখ বন্ধ করা যায়। তবে শ্রাবন্তীদি (চট্টোপাধ্যায়) যে ভাবে নিজের প্রোফাইলের মন্তব্য বাক্সকে নিষ্ক্রিয় করে রেখেছেন, সেটা অবশ্যই একটা পথ।

কিন্তু মাঝে মধ্যে মনে হয়, কয়েকটা মানুষের নেতিবাচকতার দায় আমার অন্য হাজার অনুরাগীর ঘাড়ে কেন ফেলব? ধরা যাক, ৪০০টা মন্তব্য করা হয়েছে আমার ছবির তলায়, তার মধ্যে ৫০টা মন্তব্যে চোখ রাখা যায় না। কিন্তু বাকি ৩৫০ জন মানুষ আমাকে ভালবাসা জানিয়েছেন”।

Ushasi Ray

তার কথায়,“ বলিউডের কয়েক জন অভিনেত্রী ও অভিনেতা এক জোট হয়ে অনলাইন হেনস্থার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করেছিলেন আবেদন জমা দিয়ে। কিন্তু সে প্রক্রিয়া সময়সাপেক্ষ। তবে এই ইন্ডাস্ট্রির কেউ যদি সে রকম পদক্ষেপ করতে চান, আমি সবার আগে হাজির হব”। এর সঙ্গেই অনুরাগীদের প্রতি তার আবেদন, “আমি আমার সমস্ত পরিজনদের উদ্দেশে বলতে চাই, কী হচ্ছে, সেটা আমায় জিজ্ঞেস না করে, তাঁদের আচরণের প্রতিবাদ করুন, যাঁরা আমার সম্পর্কে অশ্লীল মন্তব্য করেছেন”।