সংকটের আবহে স্বস্তির খবর, করোনা মুক্ত ভারতের দুই রাজ্য

এই সংকটের আবহে ভারতীয়দের কাছে স্বস্তির খবর দিল দুটি রাজ্য। যে দুটি রাজ্যকেই করোনা মুক্ত রাজ্য হিসেবে ঘোষণা করে দিয়েছেন তাদের মুখ্যমন্ত্রীরা। এমন সফলতা এসেছে কেবলমাত্র লকডাউনের জন্যই বলেই জানিয়েছেন তারা। দেশে প্রথম করোনা মুক্ত হওয়া এই দুই রাজ্যের সফলতা আত্মবিশ্বাস ফেরাতে চলেছে অন্যান্য রাজ্যগুলিকে ও ভারতীয়দের।

আমরা বিগত কয়েকদিন ধরেই জেনেছি ভারতের যে রাজ্যে প্রথম করোনা সংক্রামিত রোগীর খোঁজ পাওয়া গিয়েছিল অর্থাৎ কেরল, তারা তাদের কঠোর পরিশ্রম ও কড়া সতর্কতায় বর্তমানে অনেকটাই স্থিতিশীল। তবে তারা এখনো করোনা মুক্ত নয়। এমনকি তারা এখনই লকডাউনে শিথিলতা আনারও পক্ষপাতি নয়। কেরলে বর্তমানে ৪০১ জন করোনা সংক্রামিত রোগীর মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২৭০ জন, মৃত ২। অর্থাৎ এই রাজ্যে এখনও করোনা সংক্রামিত রোগী রয়েছেন ১২৯ জন। তবে তারা যেভাবে তাদের কাজ চালাচ্ছে খুব তাড়াতাড়ি সফলতা আসবে এই রাজ্যের ক্ষেত্রে।

আরও পড়ুন :- রাজ্যের এই ৯ জেলায় নতুন করে করোনা সংক্রমণ নেই

এসবকে বাদ দিয়ে ভারতে প্রথম করোনা মুক্ত রাজ্য হয় গোয়া। গোয়ায় মোট ৭ জন ব্যক্তির শরীরে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে। তারপর তারা সকলেই সুস্থ হয়ে উঠেছেন। বর্তমানে এই রাজ্যে আর সংক্রমণ নেই। গত ৩রা এপ্রিল থেকে নতুন করে আর কারোর শরীরে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েনি। তাই এই রাজ্য বর্তমানে করোনা মুক্ত, ভারতে প্রথম এই রাজ্য এই শিরোপার অধিকারী হয়।

গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী ডঃ প্রমোদ সাওয়ান্ত ট্যুইট করে জানিয়েছেন, গোয়ার জন্য সন্তুষ্টি ও স্বস্তির মুহূর্ত এই যে সমস্ত অ্যাক্টিভ করোনা এখন নিষ্ক্রিয় হয়েছে। আর এমন সফলতা এসেছে সমস্ত চিকিৎসক ও অন্যান্যদের সমবেত অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে। ৩ এপ্রিলের পর থেকে রাজ্যে আর কোন করোনা পজিটিভ কেস আসেনি।”

আরও পড়ুন :- রাজ্যের এই ৪টি জেলাতেই করোনা আক্রান্ত সবচেয়ে বেশি

আর এবার ঠিক গোয়ার মতোই আরও একটি রাজ্য করোনা মুক্ত হলো। যে রাজ্যটি হল মনিপুর। এই রাজ্যে মোট দুজনের শরীরে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছিল। তাদের দুজনই আজ সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এরপর আর নতুন করে কোনো রকম সংক্রমণ নেই রাজ্যে। মনিপুরের এই সফলতা এসেছে সঠিকভাবে সরকারি নির্দেশিকা পালনের ফলে, সঠিকভাবে লকডাউনের বিধি মেনে চলার জন্য।

আর মণিপুরে এমন সফলতা আসার পর সেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বীরেন সিং ট্যুইট করে জানিয়েছেন, “আমি আনন্দের সঙ্গে জানাচ্ছি আমাদের রাজ্য করোনা মুক্ত হয়ে গেছে। এই কাজ একমাত্র সম্ভব হয়েছে লকডাউনে মানুষের অসম্ভব সাহায্য ও চিকিৎসকদের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে।”

আরও পড়ুন :- লকডাউনে বেড়ে গেল ছাড়ের তালিকা, কেন্দ্রের নয়া নির্দেশিকা

এই দুই রাজ্যের এমন সফলতা অন্যান্য রাজ্যকে যেমন করোনা থেকে মুক্তি পেতে সাহস যোগাবে ঠিক তেমনি দেশের মানুষদের কাছেও শিক্ষা দিচ্ছে এই দুই রাজ্য। দেশের অন্যান্য জায়গার বাসিন্দারাও যদি সঠিকভাবে সরকারি নির্দেশিকা, লকডাউনের বিধি ও সচেতনতা অবলম্বন করে থাকেন তাহলে তারাও করোনা মুক্ত হবেন খুব তাড়াতাড়ি বলেই মত বিশেষজ্ঞদের।