টলিউডে ‘অপয়া’ কিন্তু দক্ষিণের লাকিচার্ম যিশু, এবার এই সাউথ সুপারস্টারের সঙ্গে করবেন অভিনয়

টলিউড ছেড়ে দক্ষিণের হেভিওয়েট খলনায়ক যিশু, পর্দাতে টক্কর দেবেন এই দক্ষিণী সুপারস্টারকে

টলিউডের (Tollywood) নায়ক হলেও অভিনেতা যিশু সেনগুপ্ত (Jishu Sengupta) এখন দক্ষিণী ছবির হেভিওয়েট খলনায়ক। একটা সময় টলিউডে ব্রাত্য হয়ে পড়েছিলেন তিনি। বাংলা ইন্ডাস্ট্রিতে দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গেলেও সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে অভিনেতা আজ বলিউড এবং দক্ষিণী ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। দক্ষিণী ছবিতে পর্দায় তার উপস্থিতি প্রতিবার শিরদাঁড়ায় ভয়ের ঠান্ডা স্রোত বইয়ে দেয়।

ইতিমধ্যেই দক্ষিণের বেশ কিছু ছবিতে অভিনয় করে ফেলেছেন যিশু সেনগুপ্ত। এর মধ্যে ‘অশ্বথামা’, ‘ডা মনোজ কুমার’, ‘মায়েস্ত্রো’, ‘শ্যাম সিংহ রয়’, ‘আচার্য’, ‘সীতারামন’ বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। এবার শোনা যাচ্ছে আবারো নতুন করে দক্ষিণের এক প্রথম সারির পরিচালকের ছবিতে নাকি অভিনয় করতে চলেছেন যিশু। তার বিপরীতে রয়েছেন হেভিওয়েট নায়ক।

এই বছরেই ৩৯ পেরিয়ে ৪০শে পা রেখেছেন দক্ষিণের সুপারস্টার জুনিয়র এনটিআর। চলতি বছরে তার ছবির সংখ্যা দাঁড়ালো ৩০ এ। তাই কেরিয়ারের এই সফলতাকে উদযাপন করতে চান অভিনেতা। এই সেলেব্রেশন হতে চলেছে নতুন ছবির মারফত। ছবির নাম ‘এনটিআর ৩০’। ছবিতে অভিনেত্রী রশ্মিকা মান্দানার সঙ্গে জুটি বাঁধতে চলেছেন এনটিআর।

যদিও প্রথমে অবশ্য ছবিতে নাকি নায়িকা হিসেবে আলিয়া ভাটকেই বেছে নেওয়া হয়েছিল। তবে গর্ভাবস্থার কারণে আলিয়া এখন শুটিং করতে পারবেন না। তাই আলিয়ার বদলে রশ্মিকাকে বেছে নেওয়া হয়েছে ছবির জন্য। ‘পুষ্পা’ ছবির পর থেকেই রশ্মিকার জনপ্রিয়তা এখন আকাশছোঁয়া। তাদের সঙ্গে এই সফরের সঙ্গী হতে চলেছেন যিশুও।

অভিনেতা যিশু সেনগুপ্ত এর আগে বলিউডে রানী মুখার্জি, বিদ্যা বালানদের মত অভিনেত্রীদের সঙ্গে অভিনয় করেছেন। বাংলার বাইরে আজ পর্যন্ত যে কটি ছবি কিংবা ওয়েব সিরিজে তিনি কাজ করেছেন সবেতেই প্রশংসা পেয়েছেন। এখন দক্ষিণী ছবিতে অভিনয় করেও নিজের জাত বোঝাচ্ছেন অভিনেতা। শীঘ্রই পর্দায় আরও একবার ধামাকা নিয়ে আসছেন তিনি।

নামী পরিচালক এবং দামি তারকাদের নিয়ে এই ছবির বাজেটটা কিন্তু বেশ ভারী। প্রায় ৩০০ কোটি টাকা বাজেটের ছবি বানানোর কাজ ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে। আগামী ৬-৭ মাস দেশের বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে ঘুরে ছবির শুটিং চলবে। ছবিতে মুক্তি পাবে হিন্দি, তামিল, তেলেগু, মালয়ালি এবং কন্নড় ভাষাতে।