সুশান্তের ভিসেরা পরীক্ষায় গাফিলতি, প্রকাশ্যে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য

মুম্বাইয়ের একটি সংবাদমাধ্যমের দাবি সিবিআইকে(CBI)  রিপোর্ট পেশ করে দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেস(AIIMS) জানিয়েছে যে ভিসেরা(Viscera) পরীক্ষায় মৃত্যুর সময় সুশান্তের শরীরে মাদকের উপস্থিতি খতিয়ে দেখা হয়নি।

ফরেন্সিক রিপোর্টে কী বলা হয়েছে?

১লা জুলাই সুশান্তের ভিসেরা পরীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী সুশান্তের শরীরে কোনো বিষক্রিয়ার হদিশ পাওয়া যায়নি। জানানো হয় শ্বাসরোধ অর্থাৎ আস্ফিক্সিয়া এর কারণেই মৃত্যু হয়েছে অভিনেতার। রিপোর্টে এও বলা হয় যে মৃত্যুর সময় কোনো ধস্তাধস্তির প্রমাণও পায়নি তারা।

এবার সেই ফরেন্সিক ডিপার্টমেন্টের বিরুদ্ধে মাদক ক্রিয়া খতিয়ে না দেখার অভিযোগ উঠলো। রিপোর্টে বলা হয়েছে সুশান্তের নখের নীচ থেকেও পাওয়া যায়নি সন্দেহজনক কোনও প্রমাণ।

কোনও সম্ভাবনা এড়িয়ে যেতে নারাজ সিবিআই

জানা যাচ্ছে সোমবার চিকিৎসক সুধীর গুপ্তের নেতৃত্বে এমসের একদল চিকিৎসক ভিসেরা পরীক্ষায় থাকা এই ফাঁক নিয়ে প্রশ্ন তোলে সিবিআই এর কাছে। সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে, ফরেন্সিক ল্যাবের সেই রিপোর্ট খতিয়ে দেখবে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা।

কারণ কোনো বিষক্রিয়ার হদিশ পাওয়া না গেলেও সুশান্তের মৃত্যুর সাথে জড়িত সম্ভাব্য কোনও সম্ভাবনাকে এড়িয়ে যেতে নারাজ সিবিআই। এই কারণেই এখনও পর্যন্ত সন্দেহর তালিকায় থাকা কোনও ব্যাক্তিকে ক্লিন চিট দেওয়া হয়নি।

গাফিলতির অভিযোগ কাদের বিরুদ্ধে

সিবিআই এর সন্দেহের তালিকায় মুম্বই পুলিশ এবং কুপার হাসপাতালও রয়েছে।মুম্বাই পুলিশের বিরুদ্ধে একাধিকবার তদন্তে গাফিলতির অভিযোগে সরব হয়েছেন সুশান্তের পরিবারের সদস্যরা।একইরকম অভিযোগ উঠছে কুপার হাসপাতাল এর দিকেও।

সমস্ত দিক বিবেচনা করে চূড়ান্ত রিপোর্ট পেশ করলেই তদন্তের দ্বিতীয় পর্ব শুরু করবে সিবিআই।  দীপেশ সবন্ত, সিদ্ধার্থ পিঠানি-সহ সুশান্তের বাকি কর্মচারীদের আবারও প্রশ্নোত্তরের জন্য ডেকে পাঠাতে পারে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা।