কথা দিয়েছিলেন বাড়ি ফিরবেন, ফিরলেন কফিনবন্দী হয়ে! শহিদ আরও এক বাঙালি যুবক

গতকাল বৃহস্পতিবার শ্রীনগর-জম্মু জাতীয় সড়ক দিয়ে সিআরপিএফ জওয়ানদের ৫৪ নম্বর ব্যাটেলিয়নের কনভয় যাচ্ছিলো। প্রায় ২৫০০ জওয়ানকে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল ওই জাতীয় সড়ক ধরে। আর এই কনভয়েই বিস্ফোরণ ঘটায় জঙ্গিরা। প্রথমে সেই কনভয়ে আইইডি বিস্ফোরণ ঘটায় জঙ্গিরা, তারপর গুলি বর্ষণও করে।

সেনা সূত্রে জানা গিয়েছে, ২০০ কেজির বেশি বিস্ফোরক বোঝাই একটি গাড়ি গিয়ে ধাক্কা মারে সিআরপিএফের একটি বাসে। বিস্ফোরক ভর্তি গাড়ি নিয়ে আত্মঘাতী হামলা চালায় জৈশ জঙ্গি আদিল আহমেদ। এও জানা গিয়েছে বছর দেড়েক আগে জঙ্গি সংগঠনে যোগ দিয়েছিল আদিল। আর এই আত্মঘাতী হামলাতেই নিহত হন ৪৪ জওয়ান। এই হামলার দায় নিয়েছে জৈশ-ই-মুহম্মদ জঙ্গি সংগঠন।

কাশ্মীরের পুলওয়ামায়ে বৃহস্পতিবার জঙ্গি হামলায় শহিদ হলেন বাংলার দুই যুবক বাবলু সাঁতরা ও সুদীপ বিশ্বাস। জৈশ-ই-মহম্মদের করা এই হামলায় যে ৪৪ জন সিআরপিএফ জওয়ান নিহত হয়েছেন, তাদেরই জওয়ান বাবলু ও সুদীপ। অবসরের ছ’ মাস আগেই চিরছুটিতে জঙ্গি হামলায় শহীদ বাঙালি ঘরের দুই ছেলে বাবলু সাঁতরা আর সুদীপ বিশ্বাসও, যিনি ৪ বছর আগে সুদীপ যোগ দিয়েছিলেন সিআরপিএফে।

আত্মঘাতী জঙ্গি হামলার শহীদ নদিয়ার তেহট্টের হাঁসপুকুরিয়া গ্রামের ছেলে সুদীপ বিশ্বাস। মাত্র ৪ বছর আগে সুদীপ যোগ দিয়েছিলেন সিআরপিএফে। বৃহস্পতিবারও তাঁরও বাড়ির লোকেদের সঙ্গে কথা হয় তাঁর। ২৭ বছরের তরতাজা যুবক সুদীপ বিশ্বাসের মৃত্যুর খবর ছন্নছাড়া করে দিয়েছে বিশ্বাস পরিবারকে। সুদীপ তাঁর পরিবারে বাবা মায়ের একমাত্র সন্তান ছিলেন। আর এই একমাত্র সন্তানকে হারিয়ে বাকরুদ্ধ বাবা সন্ন্যাসী বিশ্বাস।

ছোট থেকেই সুদীপের স্বপ্ন ছিল সেনাবাহিনী যোগ দেওয়ার। তাঁর সেই স্বপ্ন সফলও হয়েছিল। সিআরপিএফ-এর ৯৮ নম্বর ব্যাটেলিয়নের জওয়ান হিসাবে মাত্র ৪ বছর আগে যোগ দিয়েছিলেন তিনি। গ্রামের ছেলে সেনাবাহিনীতে যোগদানের পর গর্বের অন্ত ছিল না স্থানীয় বাসিন্দাদের। সেই গর্বকে শহীদ করে ১৪ই ফেব্রুয়ারি চলে গেলেন সুদীপ নামের তরতাজা তরুন।

আরও পড়ুন ঃ অবসরের ছ মাস আগেই চিরছুটি, জঙ্গি হামলায় শহীদ ঘরের ছেলে বাবলু সাঁতরা

আরও পড়ুন ঃ কূটনৈতিক চাপে পাকিস্তান, ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত নিল ভারত

বৃহস্পতিবার বেলা তিনটে নাগাদ শেষবার বাড়িতে ফোন করেছিলেন সুদীপ। পরিবারের সঙ্গে শেষবারের কথায় সুদীপ মা- বাবাকে চিন্তা করতে বারণ করেছিলেন। বলেছিলেন, এবার তাড়াতাড়ি বাড়ি ফিরবেন। আর তাঁর বাড়ি ফেরার কথা অবশ্য সত্যিই হতে চলেছে শুক্রবার, রাতেই বাড়ি ফিরছেন সুদীপ, তবে কফিনবন্দি হয়ে।