জাতীয় মঞ্চে উজ্বল হল বাংলার মুখ, সারেগামাপা বিজেতা আলিপুরদুয়ারের মেয়ে

জাতীয় মঞ্চে বাংলার জয়জয়কার, বাংলার দুই মেয়েকে নিয়ে গর্বিত গোটা দেশ

২০ সপ্তাহের টানটান লড়াই শেষ। এবার ফলাফল ঘোষণার পালা। জি টিভির (Zee TV) সারেগামাপার (Sa Re Ga Ma Pa) ধামাকাদার গ্র্যান্ড ফিনালেতে বিচারকদের চুলচেরা বিশ্লেষণে বিজয়ীর ট্রফি হাতে উঠল নীলাঞ্জনার হাতে। আলিপুরদুয়ারের মেয়ে নীলাঞ্জনা রায় (Nilanjana Roy) গ্র্যান্ড ফিনালের বাকি প্রতিযোগীদের হারিয়ে জিতে নিলেন পুরস্কার। ট্রফি ছাড়াও তিনি পেয়েছেন একটি মারুতি সুজুকি সেলেরিও এবং অন্যান্য পুরস্কার।

একটুর জন্য নীলাঞ্জনার কাছে পরাজিত হতে হল হুগলির মেয়ে রাজশ্রী বাগকে। তবে দ্বিতীয় স্থান ধরে রেখেছেন রাজশ্রী। বাংলার দুই মেয়েকে নিয়ে গর্বিত সারাদেশ। তৃতীয় স্থানে রয়েছেন মধ্যপ্রদেশের ছেলে শরৎ শর্মা। বিভিন্ন জাগ্রাতায় গান গাইতেন শরৎ শর্মা। তবে এই মঞ্চে প্লেব্যাক থেকে শুরু করে স্টেজ পারফর্মেন্সের মাধ্যমে তিনি তার দক্ষতা প্রমাণ করেছেন।

গ্র্যান্ড ফিনালে অব্দি হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করেও শেষমেশ ছিটকে যেতে হল বাংলার আর দুই প্রতিযোগী স্নিগ্ধজিৎ ভৌমিক এবং অনন্যা চক্রবর্তীদের। ফিনালেতে উঠলেও ছিটকে গিয়েছেন সঞ্জনা ভাট। দুই সন্তানের মা সঞ্জনা গানের তালিম সেভাবে নিতে পারেননি কখনও। তবে তিনি তার অসাধারণ গায়কীর দক্ষতার মাধ্যমে প্রথম থেকেই বিচারকদের হট ফেভারিট থেকেছেন। গ্র্যান্ড ফিনালের ৬ প্রতিযোগীর মধ্যে ৪ জনই ছিলেন বাঙালি প্রতিভা।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by NEELANJANA RAY (@neelanjanaray)

ফিনালেতে বিচারক এবং প্রতিযোগীদের জমজমাট পারফরম্যান্স রীতিমতো তাক লাগিয়েছে। ‘ঢোলি রা’, ‘মনটা রে’, ‘সামি সামি’ গানে পারফর্ম করেছেন অনন্যা। নীলাঞ্জনা ‘তুঝে কিতনা চাহা নে লাগে’, ‘চাকা চাক’, ‘পরম সুন্দরী’ গান গেয়ে বিচারকদের মন জয় করে নিয়েছেন। নীলাঞ্জনা এই মঞ্চের সর্বকনিষ্ঠ প্রতিযোগী। মাত্র ১৮ বছর বয়সেই সেরার সেরা সম্মান উঠলো তার ঝুলিতে।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by ZEE TV (@zeetv)

সারেগামাপার এই মঞ্চে বাংলা থেকে ৬ প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করার সুযোগ পেয়েছিলেন। এরা প্রত্যেকেই বাংলার জনপ্রিয় মুখ। তালিকায় ছিলেন স্নিগ্ধজিৎ ভৌমিক, অনন্যা চক্রবর্তী, নীলাঞ্জনা রায়, কিঞ্জল চট্টোপাধ্যায়, দীপায়ন বন্দ্যোপাধ্যায় এবং রাজশ্রী বাগ। প্রতিযোগিতা চলাকালীন মাঝপথেই বিদায় নিতে হয় কিঞ্জলকে। ফাইনালের মাত্র এক সপ্তাহ আগেই বেরিয়ে যান দীপায়ন। অবশেষে এল সেই বহু প্রতীক্ষিত দিন। নাচে-গানে জমজমাট অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বাদবাকি ৬ প্রতিযোগীদের মধ্যে আগামী দিনের প্রতিভা বেছে নিলেন বিচারকরা।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by ZEE TV (@zeetv)

এদিন প্রতিযোগীদের পাশাপাশি বিচারকদের পারফরম্যান্সও ছিল দেখার মত। শঙ্কর মহাদেবন, বিশাল দাদলানি, হিমেশ রেশমিয়ারাও তাদের গানের মাধ্যমে মাতিয়ে তোলেন সংগীতের মহাযুদ্ধের আসর। ‘ব্রেথলেস’ গাইলেন শঙ্কর মহাদেবন। হিমেশ রেশমিয়া গাইলেন ‘ও পিয়া মে তেরা জিয়া’, ‘তেরি আখিয়োঁ কা ওয়ার’ ও বিশাল দাদলানি গাইলেন ‘ঝুম বরাবর’, ‘ঘুঙরু’। প্রতিযোগিদের মধ্য থেকে স্নিগ্ধজিৎ বাপ্পি লাহিড়ীকে এবং রাজশ্রী লতা মঙ্গেশকরকে গানের মাধ্যমে শ্রদ্ধা জানালেন।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by ZEE TV (@zeetv)