‘আত্মহত্যার চেষ্টা করলেন অভিনেতা রাহুল ব্যানার্জী’, ভুয়ো খবরে আতঙ্কিত পরিবার

স্টার জলসায় সম্প্রচারিত ‘দেশের মাটি’ ধারাবাহিকে এই মুহূর্তে টানটান উত্তেজনা চলছে। অপছন্দের পাত্রীর সঙ্গে জোর করে বিয়ে দেওয়ায় ‘রাজা’ পরিবারের উপর চরম অভিমানবশত আত্মহত্যার চেষ্টা করে। ধারাবাহিকের চিত্রনাট্যের প্রয়োজনে গল্পের মোড় এভাবেই ঘোরানো হয়েছে। এ পর্যন্ত সব ঠিকই ছিল। তবে গোল বাঁধলো এক বাংলা সংবাদ মাধ্যমের রঙ চড়ানো খবরে। কারণ খবরকে আকর্ষণীয়ভাবে তুলে ধরতে গিয়ে রাহুলের (Rahul Arunoday Banerjee) আত্মহত্যার ভুয়ো খবর প্রচার করে বসলো ওই সংবাদমাধ্যম!

পর্দার সঙ্গে বাস্তবের গল্প মিলিয়ে-মিশিয়ে রাজার বদলে রাহুল ব্যানার্জির আত্মহত্যার খবর প্রচার হয়ে গিয়েছিল ওই সংবাদমাধ্যম মারফত। “আত্মহত্যার চেষ্টা করলেন জনপ্রিয় টেলি অভিনেতা, দেখুন…”, এমন শিরোনামেই এই খবরটি প্রকাশ করা হয়েছিল। রাজা অর্থাৎ রাহুলের একটি ছবিও সেই ভিডিওতে তুলে ধরা হয়। যদিও রাহুলের মুখ অবশ্য আবছা ছিল। তবে তাকে চিনতে খুব বেশি বেগ পেতে হয়নি তার পরিচিতদের।

এই খবরটি রাহুলের চোখে পড়ার আগেই তার বাবা-মায়ের চোখে পড়ে যায়। রাহুলের বাবা-মা এই খবর দেখে রীতিমতো আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। তারা বারংবার ফোন করে ছেলের খবরাখবর নিতে চান। ছেলের স্বাস্থ্যের কথা ভেবে ভীষণ উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন তার মা। ওই সংবাদমাধ্যমের এমন কর্মকাণ্ডে রীতিমতো ক্ষোভে ফুঁসছেন রাহুল ব্যানার্জি। ভাইরাল ওই খবর নিজের সোশ্যাল মিডিয়ার ওয়ালে তুলে ধরে রাহুল সংবাদমাধ্যমের কাছে প্রশ্ন রেখেছেন, “আর ঠিক কতটা নিচে নামবেন আপনারা?”

ছেলে সম্পর্কে এমন খবর দেখে রীতিমতো আতঙ্কিত হয়ে পড়েছিলেন রাহুলের মা। আনন্দবাজার অনলাইনের কাছে রাহুল ক্ষোভ উগরে দিয়ে জানালেন, ‘‘খবর পড়ে মা রীতিমতো আতঙ্কিত। তিনি ভেবে নিয়েছিলেন পুরোটাই সত্যি।’’ রাহুল এই মুহূর্তে ধারাবাহিকের শুটিং নিয়ে ভীষণ ব্যস্ত রয়েছেন। মা-বাবা যেহেতু দূরে রয়েছেন তাই তারা সর্বদা একে অপরের সঙ্গে নেট মাধ্যমে যোগাযোগ রেখে চলেছেন।

রাহুল উষ্মা প্রকাশ করে বলেন, ‘‘আমি ‘ক্লিক বাটন’ শব্দের মানে জানি। আমার মা-বাবা বা আত্মীয়েরা সেটা জানেন না! স্বাভাবিক ভাবেই, এই ধরনের খবর তাঁদের মানসিক চাপ বাড়িয়ে দেয়।’’ তার বক্তব্য, এটি যদি খবর না হয়ে মিম হতো, তাহলে তাতে তার কোনও আপত্তি থাকতো না। কারণ মিম যে সর্বদা কারোর পক্ষেই হতে হবে, এমন কোনও কথা নেই। কিন্তু এই ধরনের মিথ্যে খবর প্রচারে তার আপত্তি তিনি স্পষ্ট জানিয়েছেন।

ভুয়ো সংবাদ প্রচারকারী ওই সংবাদমাধ্যমের বিরুদ্ধে রাহুলের ক্ষোভ এই যে এই ধরনের একটি খবর প্রচারের আগে ওই সংবাদমাধ্যম তার সঙ্গে একবারের জন্যও যোগাযোগ করেনি। তাহলে তখনই তিনি নিষেধ করে দিতে পারতেন। খবর বিকৃত করে এইভাবে আর কতদিন প্রচারের আলোয় থাকার চেষ্টা চলবে? প্রশ্ন তুলেছেন রাহুল।

রাহুলের এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তার পোস্টের কমেন্ট বক্সে তাকে সমর্থন করেছেন কবি শ্রীজাত, পরিচালক অর্জুন দত্ত, পরিচালক দেবারতি ভৌমিক সহ একাধিক বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বরা। নেটিজেনদের একাংশের পরামর্শ, এমন ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ওই সংবাদমাধ্যমে বিরুদ্ধে রাহুল যেন আইনের দ্বারস্থ হন। তবে কেউ কেউ মনে করছেন বিষয়টিকে বেশি গুরুত্ব দেওয়ার চেয়ে এড়িয়ে যাওয়াই ভালো। কারণ তাতে অন্যায়কে বাড়তি প্রশ্রয় দেওয়া হবে।