চরিত্রহীন শঙ্খের মিষ্টি কথায় বারবার ভুলেছে মোহর, লীনা গাঙ্গুলীর গাঁজাখুরি গল্পে তিতিবিরক্ত দর্শক

বারবার অপমান সত্বেও শঙ্খের মিষ্টি কথায় ভুলছে মোহর, মেয়েদের অপমানের রেগে লাল দর্শকরা

Mohor and Sankhya Came Closer to Each other New Twist on Star Jalsha Mohor

পরকীয়া, স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের মাঝে তৃতীয় ব্যক্তির আগমনে, সেই নিয়ে সম্পর্কে টানাপোড়েন, বাংলা ধারাবাহিকে আকছার এমন ঘটতেই থাকে। তবে স্টার জলসার (Star Jalsha) ধারাবাহিক ‘মোহর’ (Mohor) এ ঘুরেফিরে বারবার একই প্রসঙ্গে উঠে আসে, তা হলো শঙ্খের জীবনে নতুন নারীর আগমন। প্রায় প্রত্যেক মাসেই শঙ্খ এবং মোহরের মাঝখানে হাজির হচ্ছেন নতুন নতুন নারী চরিত্র। যাকে কেন্দ্র করে মোহদীপের মাঝে সম্পর্ক দুর্বল হয়ে পড়ছে বারবার। মোহদীপ জুটির ভক্তদের কাছে যা একেবারেই না পসন্দ।

শুধু তাই নয়, ধারাবাহিকে বারবার গল্পের একই ট্র্যাকে বিরক্ত হয়ে পড়ছেন দর্শকরা। শঙ্খের জীবনে বারবার আলাদা আলাদা নারীর আগমন কেন হবে? কেনই বা বারবার প্রশ্নের মুখে দাঁড়াতে হবে মোহদীপের সম্পর্ককে? প্রত্যেকবার নিত্যনতুন নারীর আগমন ঘটছে শঙ্খ স্যারের জীবনে। প্রতিবার মোহরের সঙ্গে শঙ্খের সম্পর্ক তলানিতে এসে ঠেকছে। আর তারপরই মিষ্টি মিষ্টি কথায় ভুলিয়ে সব মিটমাট করে নিচ্ছে শঙ্খ! এভাবে লেখিকা লীনা গাঙ্গুলী (Leena Ganguly) কার্যত বারবার মেয়েদেরই অপমান করছেন বলে দাবি তুলছেন দর্শকদের একাংশ।

একঘেয়ে বস্তাপচা গল্প দেখতে বিরক্ত বোধ করছেন দর্শকরা। ক্রমশ খেই হারাচ্ছে গল্প। জনপ্রিয়তা হারাতে হারাতে প্রাইম টাইম থেকে সরে দুপুরের স্লটে এসে পৌঁছেছে মোহর। তবুও মোহরের ভক্তরা সমর্থন জানিয়ে আসছেন প্রথম থেকেই। কিন্তু মোহরের প্রতি বারবার অন্যায় হতে দেখে তারাও বিরক্ত বোধ করছেন। প্রশ্ন উঠছে শঙ্খের চরিত্র নিয়ে। মোহর থেকে শুরু করে শ্রেষ্ঠা, অনুলেখা, অরুন্ধতীরা তো ছিলই। তালিকায় সর্বশেষ সংযোজন ঊর্মি। তবে সকলকে ছাপিয়ে গিয়েছে ঊর্মি।

ঊর্মির বাড়িতে রাতের পর রাত কাটিয়েছে শঙ্খ। ঊর্মিকে কেন্দ্র করে মোহদীপ জুটি ফের একবার তলানিতে এসে পৌঁছেছে। গল্পের প্লট অনুসারে শঙ্খকে ডিভোর্স দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মোহর। সে স্কুলে চাকরি পেয়ে গিয়েছে। শঙ্খকে ছেড়ে দিয়ে চাকরি করতে এবার দূরে চলে যেতে চাইছে মোহর। যাওয়ার আগে শেষবারের মতো শঙ্খের বাবা-মার সঙ্গে দেখা করতে আসে মোহর। তবে প্রত্যেক বারের মতো এবারেও মোহরকে একা পেয়ে তাকে মিষ্টি মিষ্টি কথায় ভুলে নেয় শঙ্খ।

প্রত্যেকবারের মতো শঙ্খ এভাবেও মোহরের সঙ্গে কথা বলে তার মনের সব অভিমান দূর করে। শঙ্খের মিষ্টি মিষ্টি কথায় গলে গিয়েছে মোহরের মন। তাই একবার ফের মান-অভিমান ভুলে কাছাকাছি হয়েছে মোহর এবং শঙ্খ। এতে দর্শকের খুশি হওয়ারই কথা। কিন্তু দর্শক ধারাবাহিকে ঘুরেফিরে একই দৃশ্য দেখতে দেখতে দোষ দিচ্ছেন লেখিকা লীনা গাঙ্গুলীকেই। তাদের অভিযোগ, শঙ্খ এভাবে বারবার মোহরকে অপমান করছে। সমগ্র নারী জাতিকেই অপমান করছেন লীনা গাঙ্গুলী।