এই ট্রেনেই নিরুদ্দেশ হয়েছিলেন নেতাজি, পাল্টে দেওয়া হল কালকা মেলের নাম

indian-railway-renames-howrah-kalka-mail-as-netaji-express

ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের কথা উঠলে যার নাম গর্বের সাথে মনে করা হয় তিনি নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু (Netaji Subhash Chandra Bose)। আগামী ২৩ তারিখ  তার ১২৫ তম জন্মবার্ষিকী আর তার আগেই মঙ্গলবার তার জন্মদিনকে পরাক্রম দিবস হিসেবে ঘোষণা করেছে কেন্দ্র।এই ঘোষণার কয়েক ঘণ্টা পরেই নতুন নামকরণ করা হলো হাওড়া কালকা মেলের (Howrah- Kalka Mail)।

এই ট্রেনের নতুন নাম এখন থেকে নেতাজি এক্সপ্রেস (Netaji Express)।কিন্তু হঠাৎ এই ট্রেনের নামই কেন পরিবর্তন করা হলো?এর পেছনে আছে এক সুদীর্ঘ ইতিহাস যা জড়িয়ে আছে নেতাজির সাথে।একবার সংক্ষেপে জেনে নেওয়া যাক সেই ইতিহাস।

হাওড়া-কাল্কা মেল এবং নেতাজি

এই ট্রেন প্রথম যাত্রা শুরু করে ১৮৫৬ সালে। স্বাধীনতার পূর্বে এই ট্রেনের তখন নাম ছিল ইস্ট ইন্ডিয়া রেলওয়ে মেল। ১৯৪১ সালে এর নাম দেওয়া হয় হাওড়া কাল্কা মেল।এই সময় ইংরেজ শাসনের চক্ষুশূল হয়ে উঠেছিলেন নেতাজি,শুরু হয়েছিল তার ওপর নজরদারি। তবে ইংরেজ সরকারের চোখে ধুলো দিয়ে বিহারের গোমোত চলে আসতে সক্ষম হন নেতাজি।

এরপর সেখান থেকে ইংরেজ সরকারের নাকের নীচ থেকে তিনি নিরুদ্দেশ হন এই হাওড়া কালকা মেলে করেই। তারপর সৃষ্টি হয়েছিল ভারতের স্বাধীনতার ইতিহাসের সবথেকে গৌরবময় অধ্যায়।এবার এই হাওড়া-কাল্কা মেলের নাম রাখা হলো নেতাজির নামে।

নেতাজি এক্সপ্রেস

বুধবার রেলমন্ত্রী পীযুষ গোয়েল নিজে ট্যুইট করে জানান , ‘১২৩১১/১২৩১২ হাওড়া-কালকা এক্সপ্রেসের নামকরণ নেতাজি এক্সপ্রেস করা হল। এই ঘোষণা করতে পেরে খুশি ভারতীয় রেল। ট্যুইটে তিনি লেখেন, নেতাজির পরাক্রম ভারতকে স্বাধীনতার এক্সপ্রেসে বসিয়েছিল।জানা যায় গত ১৪জানুয়ারি রেলমন্ত্রকের কাছে এই প্রস্তাব আসে এবং এই প্রস্তাবকে সামনে রেখেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেলমন্ত্রক।নেতাজির জন্মদিন উপলক্ষে পুরো দেশ জুড়ে একগুচ্ছ কর্মসূচি গ্রহন করেছে কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকার।

কেন্দ্র ও রাজ্যের কর্মসূচি

ইতিমধ্যেই কেন্দ্রের তরফ থেকে নেতাজির জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে ৮৫ জনের একটি কমিটি গঠন করেছে। এই কমিটিতে আছেন পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য, বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় থেকে শুরু করে নেতাজি পরিবারের সদস্য চন্দ্র বসু, রেণুকা মালাকার,সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, মিঠুন চক্রবর্তী, এ আর রহমান সহ অনেকেই।

এই কমিটির চেয়ারম্যান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। অন্যদিকে এইদিন পাল্টা কর্মসূচি। ঘোষণা করেছেন রাজ্য সরকারও। নেতাজির জন্মদিনকে দেশনায়ক দিবস হিসেবে ঘোষণা করার পাশাপাশি দিনটিতে জাতীয় ছুটি ঘোষণার দাবিতে আবেদন করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।রাজ্য সরকারের তরফ থেকেও পৃথক কমিটি গঠন করা হয়েছে।