‘আমি মাদকাসক্ত ছিলাম’, ভাইরাল কঙ্গনার পুরনো ভিডিয়ো

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুতদন্তের সূত্র ধরেই বলিউডে মাদক কাণ্ডে উত্তাল ভারতের বাণিজ্য নগরী। সুশান্ত প্রেমিকা রিয়া চক্রবর্তীর বয়ান থেকেই NCB বলিউডের ২৫জন তারকার তালিকা তৈরি করেছে যাদের সাথে মাদকের প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ যোগ আছে।

এরকম সময়ই নাম করেই বলিউডের নামী সেলেবদের বিরুদ্ধে মাদক নেওয়ার অভিযোগ তোলেন কঙ্গনা যাদের মধ্যে রণবীর সিং এবং রণবীর কাপুরের মতন তারকারাও আছেন। এমন পরিস্থিতিতেই নেটিজেনদের নজরে কঙ্গনা রানাওয়াত এর পুরোনো একটি ভিডিও যেখানে প্রকাশ্যে তিনি বলেন, কেরিয়ারের প্রথমদিকে, অর্থাৎ তার টিন এজে তিনি নিজেও মাদকাসক্ত ছিলেন।

ভিডিওতে তিনি বলেন, ছোটবেলায় বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে আসার পর কিছু বছরের মধ্যে তিনি যখন ফিল্মস্টার হয়ে ওঠেন তখন তার জীবনে নানারকম ঝড় চলছিল। বিখ্যাত হওয়ার সাথে সাথে মাদকাসক্ত হয়ে পড়েন তিনি।

এই ভিডিও প্রকাশ্যে আসার পর নেটিজেন দের মধ্যে প্রশ্ন উঠছে, যে কঙ্গনা বলিউডে মাদক চক্র নিয়ে এতটা সরব সেই কঙ্গনাই নিজেও মাদকে যুক্ত ছিলেন! কিছুদিন আগে কঙ্গনা দাবি করেন ৯৯শতাংশ বলিউড মাদকাসক্ত। এবার প্রশ্ন উঠছে, তিনি নিজেও তাহলে ব্যতিক্রম নন!

ওই ভিডিওতে কঙ্গনাকে বলতে শোনা গিয়েছে, “ছোটবেলায় বাড়ি থেকে পালিয়ে গেছিলাম। তারপর অভিনেত্রী হই। একই সঙ্গে ড্রাগ অ্যাডিক্ট হয়ে উঠি। সেই সময় জীবনে অনেক কিছু হচ্ছিল। কিন্তু অদ্ভুত কিছু মানুষ জীবনে এসে গেছিল। ঝড় উঠেছিল জীবনে। বয়স তখনও ১৮ হয়নি আমার। তাহলে বোঝো আমি কত খতরনাক।”

শুধু কঙ্গনার ভিডিও নয়, ২০১৬ সালে কঙ্গনার প্রাক্তন অধ্যয়ন সুমন একটি সাক্ষাৎকারে জানান যে ২০০৮ সালে কঙ্গনা তার জন্মদিনের পার্টিতে তাকে কোকেন নেওয়ার জন্য জোর করে। তিনি আরও জানান কঙ্গনা তাকে গাঁজা খাইয়েছিলেন তবে সেটাও অধ্যয়নের ভালো লাগেনি।

 

তাই সেদিন কঙ্গনাকে ফিরিয়ে দেন তিনি।তবে তিনি না করায় কঙ্গনা তার সাথে ঝামেলা করে বলেও জানান অধ্যয়ন। যদিও এই প্রসঙ্গে কিছুইদন আগে টুইট করে কঙ্গনা বলেছেন, “আমি খুব খুশি হব। প্লিজ আমার ড্রাগ টেস্ট করুন। ফোনের কল রেকর্ড খতিয়ে দেখুন।

যদি মাদক পাচারকারীদের সঙ্গে আমার কোনও যোগাযোগের হদিশ পান তাহলে আমি আমার ভুল মেনে নেব। মুম্বই থেকে চিরকালের মতো চলে যাবো। আপনাদের সঙ্গে দেখা হওয়ার অপেক্ষায় রইলাম।”

মুম্বাই পুলিশ ইতিমধ্যেই কঙ্গনার মাদক যোগ সম্পর্কে তদন্ত শুরু করেছে বলে সুত্রের খবর। শুক্রবার মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অধ্যয়ন সুমনের সাক্ষাৎকারের প্রসঙ্গ তুলে জানান, এই ঘটনার সম্পূর্ণ তদন্ত হবে। তারপরই মুম্বাই পুলিশকে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়। জানা যাচ্ছে অধ্যয়ন ও কঙ্গনা দুজনকেই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকতে পারে মুম্বাই পুলিশ।