আজ থেকে সম্পূর্ণ বন্ধ হাওড়ার ৪ থানা এলাকা, বন্ধ ওষুধের দোকানও

করোনা রুখতে সিল হচ্ছে একাধিক এলাকা, লকডাউন আর সিলের পার্থক্য কি

বিশ্বব্যাপী করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে লকডাউনকেই মোক্ষম দাওয়াই হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছে। ভারতবর্ষ ও তার ব্যতিক্রম নয়। ভারতবর্ষে করোনা সংক্রামিতদের সংখ্যা ২৮০০০ ছুঁতে চলেছে। সংখ্যাটা রীতিমতো ভয়ের। তবু কিছু মানুষ এখন অব্দি সচেতন হচ্ছেন না।

পশ্চিমবঙ্গেও করোনার ফলে কিছু মানুষের মৃত্যু হয়েছে। রাজ্য সরকার ইতিমধ্যেই কলকাতার কতগুলি এলাকাকে রেডজেন বলে ঘোষণা করেছে। করোনা সংক্রমিত সাতটি স্পর্শকাতর জেলার মধ্যে হাওড়া একটি। কিন্তু আজ সকালে হাওড়ার চারটি থানা এলাকায় সম্পূর্ণভাবে লকডাউন করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পুলিশ। এই যে চারটি থানা এলাকায় সম্পূর্ণভাবে লকডাউন করা হচ্ছে এই অপারেশনের নাম দেওয়া হয়েছে ‘অপারেশন কোভিড জিরো’।

করোনা রুখতে সিল হচ্ছে একাধিক এলাকা, লকডাউন আর সিলের পার্থক্য কি

এই সম্পূর্ণ লকডাউন অবস্থায় ফলে কী কী হবে?

এতদিন অবধি ওই সমস্ত এলাকায় ওষুধ এবং মুদিখানা করতে যাওয়ার জন্য মানুষকে ছাড় দেওয়া হয়েছিল কিন্তু আজকের পর বাজার মুদিখানা এমন কি ওষুধ ও বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দেওয়া হবে। অর্থাৎ কোনোভাবেই ওই চারটি এলাকার কোন মানুষ কোন কারনেই বাড়ির বাইরে বের হতে পারবেন না, তাদের যা প্রয়োজন থাকুক না কেন সেই প্রয়োজনীয় সামগ্রী প্রশাসনের তরফ থেকে তাদের বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হবে।

কোন চারটি থানা এলাকা বন্ধ করা হল?

যে চার থানা এলাকাতে সম্পূর্ণভাবে লকডাউন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে সেই চারটি থানা এলাকা হলো গোলাবাড়ি, হাওড়া, শিবপুর, মালিপাঁচঘরা।

এরকম সিদ্ধান্ত নেওয়ার পেছনে কারণ কি?

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে আগামী ১৪ দিনের মধ্যে হাওড়া জেলাকে রেড জোন থেকে গ্রিন জোনে আনতে হবে এবং এই নির্দেশ পালন করার জন্য সম্পূর্ণ লকডাউন করা ছাড়া আর কোন গতি ছিল না। আমরা সকলেই জানি রেড জোনের অর্থ হল করোনা সংক্রামিত এলাকা। গ্রীন জোনের অর্থ হল যে এলাকায় এখনো অব্দি করোনা প্রবেশ করেনি অর্থাৎ করোনা সংক্রমণের ভয় যেখানে আর আজ নেই। হাওড়াতে গ্রীন জোন করার জন্য তাই পুলিশ প্রশাসনের তরফ থেকে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন :- লকডাউন আর সিলের মধ্যে পার্থক্য কি? সহজ ভাষায় জেনে নিন

এই প্রসঙ্গে হাওড়ার পুরো কমিশনার বিজিন কৃষ্ণ বাবু বলেন, “এই পুরো কর্মসূচিটি পালন করতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার একটি বিশেষ মনিটরিং দল ও আমাদের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছেন। ৬ জন সদস্যের এই দল ও বাড়ি যাবেন এবং পুরো প্রক্রিয়াতে আমাদের সাহায্য করবেন।”

এবিষয়ে জানা গিয়েছে এই চারটি থানা‌ এলাকায় কোনো কিছুই খোলা থাকবে না। তবে প্রশাসনের ফেসবুক পেজ ও ওয়েব পোর্টালে চারটি থানা এলাকার বাজার, ওষুধ ও প্রয়োজনীয় সামগ্রীর দোকানের নম্বর দিয়ে দেওয়া হবে। সেখানে ফোন করলে প্রয়োজনীয় সামগ্রী বাড়িতে পৌঁছে দিয়ে আসা হবে।

এই রেড জোন এলাকাতে খাবার পৌঁছাবে কারা?

জানা গিয়েছে এই কাজটি করার জন্য কিছু স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা অনলাইন হোম ডেলিভারি কাজে লাগানো হবে।

আরও পড়ুন :- কোন রেশন কার্ডে পাবেন কতটা চাল-গম-আটা, জানুন আপনার অধিকার

লকডাউনকে মেনে চলুন। একমাত্র এই উপায়েই আমরা নিজেদের ও নিজেদের পরিবারকে, পাড়া-প্রতিবেশীকে এবং সর্বোপরি রাজ্য তথা দেশকে রক্ষা করতে পারি।