আপনার স্যানিটাইজারটি ভাইরাস মারতে সক্ষম কিনা কীভাবে বুঝবেন

কোরোনা সংক্রমন রোখার জন্য মাস্কের পাশাপাশি স্যানিটাইজার ব্যবহার করছেন সবাই। বারবার উঠে গিয়ে হাত ধোয়া, মোছা এসব ঝক্কির থেকে স্যানিটাইজার ব্যাবহার করেই তাই নিশ্চিন্ত হচ্ছেন সবাই। কিন্তু স্যানিটাইজার ব্যাবহার করেই ভাইরাস কাবু করা যাচ্ছে কি? কি মত চিকিৎসক এবং বিশেষজ্ঞদের?

বাড়িতে থাকাকালীন আধ ঘন্টা ৪০ মিনিট অন্তর হাত ধুতে হবে। বাড়িতে থাকাকালীন সাবান এবং জল দিয়েই হাত ধোয়া ভালো। কিন্তু যেহেতু বাইরে থাকলে সাবান বা জল দিয়ে হাত ধোয়া সম্ভব হয়না তাই সেক্ষেত্রে স্যানিটাইজার ব্যাবহার করা যেতে পারে।তবে তা ব্যবহারের আগে কিছু জিনিসের বিষয় সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

স্যানিটাইজারে অবশ্যই ৭০% অ্যালকোহল থাকতে হবে। বাজারে চলতি সুগন্ধি স্যানিটাইজার ভাইরাস নাশক নাও হতে পারে। কোরোনা আবহের আগে থেকে যে স্যানিটাইজার গুলি বাজারে চলছিল তা ব্যবহার না করার ভালো। ভুয়ো বা অসাধু ব্যবসায়ীদের থেকে সাবধান থাকতে হবে।

মাস্কের উত্‍পত্তি কীভাবে হয়েছিল? জেনে নিন এক অজানা ইতিহাস

ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে কতটা উপকারী?

অনেকেই অফিস বা কাজের জায়গা থেকে ফিরে ব্যাগে বা জামাকাপড়ে এই ধরনের স্প্রে করে দিচ্ছেন এবং নিশ্চিন্ত হয়ে যাচ্ছেন কিন্তু আসলে সব ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে ভাইরাস মারার ক্ষেত্রে কার্যকরী নয়।এক্ষেত্রে অ্যালকোহলের পরিমাণ যাচাই করে নিতে হবে। ৬৫-৭০% এর কম অ্যালকোহল হলে তা ব্যাবহার করে মানুষ যদি নিশ্চিন্ত হয়ে যায় তবে বিপদ ঘটতে পারে।

কোন মাস্ক কতদিন পরবেন, কীভাবে মাস্ক পরিষ্কার করবেন

স্যানিটাইজার ব্যাবহারের আগে খেয়াল রাখুন

স্যানিটাইজার ব্যাবহারের আগে আগে দেখে নিতে হবে তাতে ইথানল বা ইথাইল অ্যালকোহল ব্যবহার করা হয়েছে নাকি। যদি আইসোপ্রোপাইল অ্যালকোহল ব্যাবহার করা হয়ে থাকে সেটা কমপক্ষে ৬৫-৭০% নাকি। সবথেকে ভালো সাবান ব্যবহার করা। কারণ এই সাবান বা ৬৫-৭০% ভাইরাসের লিপিড সতর্ক নষ্ট করে দিতে সক্ষম।

কীভাবে তৈরি হয়েছিল বিশ্বের প্রথম হ্যান্ড স্যানিটাইজার, জেনে নিন সেই গল্প

তবে জেনে রাখা ভালো, হাত তৈলাক্ত থাকলে বা হাতে ধুলো লেগে থাকলে সেক্ষেত্রে স্যানিটাইজিং স্প্রে কাজ করেনা। সেক্ষেত্রে সাবান জল একদিকে যেমন ভাইরাস মারতে সক্ষম তেমনই সেই তেলও সরিয়ে দিতে পারবে। অনেকেই চামড়ার ব্যাগ ব্যবহার করেন, সেক্ষেত্রে  এইরকম ব্যাগ বাইরে থেকে ঘরে ঢোকার আগে ঘণ্টা খানেক দরজার কাছে রেখে দিন। ইথাইল অ্যালকোহলের পরিমাণ দেখে অ্যালকোহল সোয়াব দিয়ে তা পরিষ্কার করা যেতে পারে।

ভাইরাস মারতে ব্লিচিং পাউডার

ব্লিচিং পাউডার দিয়ে ঘরের মেঝে, বেসিন, শৌচাগার, বারান্দায়, ঘর পরিষ্কার করা যায়।তাছাড়াও কড়া কোনো ফিনাইল ব্যাবহার করা যায়। কিন্তু জামাকাপড় বা চামড়ার ব্যাগ পরিষ্কারের ক্ষেত্রে ব্লিচিং পাউডার প্রয়োজন নেই। ব্লিচিং পাউডার দিলে তাদের কোয়ালিটি এবং কাপড় নষ্ট হবে এবং ঔজ্জ্বল্য হারাবে। সেক্ষেত্রে সাবান জল ব্যাবহার করা যাবে।

ঘরে বানানো হ্যান্ড স্যানিটাইজার জীবানু নাশ করে? কি বলছেন বিশেষজ্ঞরা

ধোয়া স্প্রে দিয়ে স্যানিটাইজিং

এইধরনের স্প্রে তে সোডিয়াম হাইপোক্লোরাইট এর মাত্রা বেশী থাকলে বাতাসে উপস্থিত ভাইরাস মারতে তা সক্ষম। তবে সেক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে যে এই স্প্রে করছেন বা তার আশেপাশে যারা আছেন তারা যেন অবশ্যই পিপিই পড়ে থাকেন।এর কারণ এই স্প্রে চোখ এবং ত্বকের মারাত্বক ক্ষতি করতে পারে। অমিতাভ বাবুর পরামর্শ যে বাজারে  বিভিন্ন স্থানে তৈরি হওয়া হাইপোক্লোরাইটের টানেল এড়িয়ে চলাই ভালো।

আপনার হ্যান্ড স্যানিটাইজারটি আসল না নকল জেনে নিন এই ৩টি পদ্ধতিতে