আইসোলেশন, হোম কোয়ারেন্টাইন এবং কোয়ারেন্টাইনের মধ্যে পার্থক্য

আইসোলেশন, হোম কোয়ারেন্টাইন এবং কোয়ারেন্টাইনের মধ্যে পার্থক্য জেনে নিন

পুরো বিশ্ব জুড়ে কোরোনা ভাইরাস আতঙ্ক। এমন অবস্থায় হ্ন এর তরফ থেকে জারি করা হয়েছে নির্দেশিকা। প্যান্ডামিক ঘোষণা করার পরে বিশ্বের সব দেশেই থাবা বসিয়েছে কোরোনা ভাইরাস। বর্তমানে ভারতেও থাবা বসিয়েছে এই ভাইরাস। আক্রান্ত প্রায় তিনশ এর কাছে। এমন পরিস্থিতিতে ভারত সরকার এবং রাজ্য সরকার গুলির তরফ থেকেও বেশ কতগুলি নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। বর্তমানে কোরোনা সংক্রমণ রুখতে আমরা দুটি শব্দ খুব বেশী শুনছি। প্রথমটি কয়ারেন্টাইন এবং দ্বিতীয়ত আইসোলেশন।তবে অনেকেই এই দুটি বিষয়ের মধ্যে পার্থক্য জানেন না।

কোয়ারেন্টাইন

কোনো সংক্রামক রোগ ধরা পড়লে সেই ব্যাক্তিকে পৃথক করে রাখাই কয়ারেন্টাইন এর মূল লক্ষ্য। কোনো ব্যাক্তির শরীরে সেই সংক্রামক রোগ এর বিজানু আছে কিনা সেটা পর্যবেক্ষন করার জন্য এবং সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর জন্য ব্যাক্তিকে পৃথক ভাবে রাখা হয়। এই সময় ব্যাক্তিকে হাসপাতালে অন্যান্য রুগীদের থেকেও আলাদা রাখা হয়। তখন তার স্থান হয় কয়ারেন্টাইন পয়েন্ট। কারণ হাসপাতালে অন্যান্য রুগীদের সাথে থাকলে অন্যান্যদের হতে পারে এই সংক্রমণ।

বর্তমানে কোরোনা ভাইরাস সংক্রমণের ক্ষেত্রে কয়ারেন্টাইন এর বিষয়টি মানুষের সামনে আসে। এক্ষেত্রে ভাইরাস সংক্রমণের পর উপসর্গ দেখা দিতে বেশ অনেক সময় লাগে। উপসর্গ ছাড়াই এই ভাইরাস শরীরে বাসা বেঁধে থাকতে পারে। এই ভাইরাস সংক্রমণ শরীরে ঘটেছে নাকি তা দেখার জন্য এই ব্যবস্থা। এই পরিস্থিতিতে ওষুধ ছাড়াই ১৪ দিন ব্যাক্তিকে স্বাস্থ্য সম্পর্কিত নিয়মাবলী মেনে পর্যবেক্ষন এবং পরীক্ষা করা হয়। কোনো লোক এমনকি বাড়ির লোকেরাও এই পরিস্থিতিতে কয়ারেন্টাইন এ থাকা ব্যাক্তির সাথে দেখা করতে পারবে না।

হোম কোয়ারেন্টাইন

কোয়ারেন্টাইন এর সব নিয়ম মেনে কোনও ব্যক্তি যখন নিজেকে নিজের বাড়িতেই আলাদা করে রাখেন তখন তাকে হোম কোয়ারেন্টাইন বলে। কোনও আক্রান্ত দেশ ঘুরে এলে বা আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে এলে সেই ব্যাক্তিকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয় পর্যবেক্ষণ করার জন্য।

এক্ষেত্রে ন্যূনতম ১৪ দিন ধরে তাকে আলাদা ঘরে রাখা হয়। কোভিড-১৯ তার শরীরে বাসা বেঁধেছে কি না তা বুঝে নিতেই এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এক্ষেত্রেও কেবলমাত্র স্বাস্থ্যবিধি ছাড়া কোনওরকম ওষুধ দেওয়া হয় না এবং কাউকে সেই ব্যক্তির কাছে ঘেঁষতে দেওয়া হয় না।

আরও পড়ুন :- এইভাবে পরীক্ষা করে নিন আপনার শরীরে কোরোনা ভাইরাস আছে কিনা

আইসোলেশন

কোনো ব্যাক্তির যদি সংক্রমণ ব্যাধি নিশ্চিতভাবে ধরা পড়ে, অর্থাৎ টেস্ট রিপোর্ট পজিটিভ আসে সেক্ষেত্রে সেই ব্যাক্তিকে সম্পূর্ণ আলাদা ভাবে রাখা হয়। হাসপাতালেই ১৪ দিন চিকিৎসকদের অধীনে পর্যবেক্ষণে তাকে থাকতে হবে। বাইরের লোক হোক বা পরিবারের কোনো সদস্য রোগীর সাথে কেউই দেখা করতে পারবেন না।

আরও পড়ুন :- আপনার করোনা জ্বর হয়েছে কি না বুঝবেন কীভাবে?

তবে করোনা ভাইরাসে আইসলেশন এর ক্ষেত্রে কোনো ওষুধ রুগীকে দাওয়া হয় না, কারন এই রোগের কোনো ওষুধ নেই। এক্ষেত্রে রুগীর ইমিউনিটি থাকলে একমাত্র শরীর রোগের সাথে লড়াই করতে পারে। সেইজন্য রোগীকে ইমিউনিটি বাড়ানোর ওষুধ এবং খাবার দাবার দাওয়া হয়। বিশেষ ক্ষেত্রে অ্যান্টি-ভাইরাল দিয়ে রোগকে মারার চেষ্টা করা হয়। যাদের উপসর্গ কম এবং শরীরের ইমিউনিটি বেশী সাধারণত তারা সুস্থ হয়ে ওঠেন।