করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কারে কোন দেশ কতটা এগিয়ে? দেখে নিন তালিকা

গোটা বিশ্ব এখনও করোনা ত্রাসে ঘরবন্দী। বিশ্ব জুড়ে এখন একটাই প্রশ্ন, কবে হাতে আসবে করোনা ভ্যাকসিন?এর মধ্যেই আসার আলো দেখিয়ে হ্ন জানালো পুরো বিশ্বে দেড়শো ভ্যাকসিন ক্যান্ডিটের ওপর গবেষণা চলছে। এক নজরে দেখে নেওয়া যাক কোন দেশ ভ্যাকসিন উৎপাদনের লড়াইয়ে কতদূর এগুলো।

ভারতের করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন

ভারতে বর্তমানে দুটি ভ্যাকসিনের ওপর কাজ হচ্ছে।

১. ‘কোভ্যাক্সিন (Covaxin) :- ভারত বায়োটেক এই টিকাটি তৈরি করছে এবং এই কাজে আইসিএমআর আর পুনের ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব ভায়রোলজি তাদের সাথে যুক্ত হয়েছে। ইতিমধ্যেই প্রথম পর্বের ট্রায়াল শুরু হয়ে গেছে এই ভ্যাকসিনের। শনিবার একজন ৩০ বছরের সেচ্ছাসেবক তরুণের শরীরে এই ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়েছে। প্রথমে এই ভ্যাকসিন ১৫ আগস্টের মধ্যে বাজারে আনার কথা বলা হলেও তার আশা এখনও দেখা যাচ্ছেনা।

২. ‘জাইডাস ক্যাডিলাও’ (Zydus Cadila) :- দেশের সব চেয়ে বড় ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা করোনা মোকাবিলার এই ভ্যাকসিন তৈরি করছে যাতে ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক এবং ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া ছাড়পত্র দিয়েছে।

ব্রিটেনের করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন

১. চ্যাডক্স ১ :- এই দেশে সবথেকে শীর্ষ স্থানে আছে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন যার সাথে যুক্ত হয়েছে অ্যাস্ট্রাজেনেকার। এই ভ্যাকসিন এর নাম চ্যাডক্স ১ ভ্যাকসিন। বর্তমানে ট্রায়ালের তৃতীয় পর্যায় আছে ভ্যাকসিনটি। গত সোমবার এই ভ্যাকসিনের প্রথম ও দ্বিতীয় দফার পরীক্ষার ফল দ্য ল্যানসেট জার্নালে প্রকাশ করা হয়। ১১০৭ জনের ওপর করা সেই পরীক্ষায় দেখা গেছে এই ভ্যাকসিন শরীরে করোনা এর বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডি ও টি সেল তৈরি করতে সক্ষম।

বিশ্বের সবথেকে বড় ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা সেরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়া এর কর্ণধার আদর পুনাওয়ালা জানান আগস্টে ভারতেও এর ট্রায়াল শুরু হবে এবং আশানুরূপ ফল পেলে নভেম্বরে মানুষের কাছে এই টিকা পৌঁছবে। এই সংস্থার এই ভ্যাকসিন তৈরিতে অংশীদারি আছে।

২. ইম্পরিয়াল কলেজ :- লন্ডনের এই কলেজের টিকা বর্তমানে দ্বিতীয় ধাপের ট্রায়ালে আছে

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন

১. মর্ডানা :- এই টিকার প্রাথমিক পর্যায়ের পরীক্ষায় আশা দেখছেন বিজ্ঞানীরা। ২৭ জুলাই থেকে এই ভ্যাকসিনের তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল শুরু হবে এবং আমেরিকার ৮৭ টি জায়গায় এই ট্রায়াল হওয়ার কথা।

রাশিয়ার করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন

১. রাশিয়ার দুটি সংস্থা সেচনেভ বিশ্ববিদ্যালয় ও গামালেই ন্যাশনাল রিসার্চ সেন্টার ফর এপিডিমিওলজি অ্যান্ড মাইক্রোবায়োলজি একসাথে এই টিকার ওপর কাজ করছে। গামলেই সেন্টারের প্রধান রাশিয়ায় প্রেস কনফারেন্স করে জানায় ১২ তে ১৪ আগস্টের মধ্যে তারা বাজারে এই ভ্যাকসিন ছাড়তে পারবেন।

২. রাশিয়ার রাজধানী মস্কো জানিয়েছে সেই দেশে ৫০ টি করোনা টিকার ওপর কাজ চলছে।

চিনের করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন

এই দেশে মোট চারটি টিকার ওপর কাজ চলছে।

১. ইন্সটিটিউট আর সিনোফার্ম :- এটি বর্তমানে দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষায় আছে।

২. সিনোভাক আর ভুটানটান ইন্সটিটিউট :- এটির বর্তমানে তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল চলছে।

৩. ক্যানসিনো বায়োলজিক্যাল ইন্সটিটিউট আর বেজিং ইন্সটিটিউট অব বায়োটেকের কোভিড টিকা :- এই টিকার কাজ অনেকটা এগিয়ে আছে এবং চীনের সেনাবাহিনীকে এই টিকা ব্যাবহারের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

৪. বেজিং সংস্থা :- এই টিকার দ্বিতীয় পর্যায়ের পরীক্ষা চলছে।

অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, জার্মানির করোনা ভাইরাস ভ্যাকসিন

এছাড়াও অস্ট্রেলিয়া নিজেদের মতন করে টিকা উৎপাদনের চেষ্টায় আছে বিভিন্ন সংস্থা। একটি টিকা প্রথম ধাপে আছে। কানাডায় একটি টিকার পরীক্ষাও চলছে প্রথম ধাপে। জার্মানি টিকা উৎপাদন দ্বিতীয় ধাপে আছে।