রত্নার ‘স্বামী কেন আসামি’, বৈশাখীর ‘পরকীয়া’ নিয়ে বিস্ফোরক বৈশাখীর প্রাক্তন স্বামী

একদিকে রাজ্য রাজনীতি তোলপাড় নারদা কাণ্ড নিয়ে। অন্যদিকে রাজ্যবাসী উত্‍সুখ বৈশাখী-শোভনের প্রেম নিয়ে। সম্প্রতি সিবিআই-এর হাতে শোভন চ্যাটার্জি গ্রেপ্তার হওয়ার পর তাদের এই দু’জনের সম্পর্ক আরও মাথাচাড়া দিয়েছে। নেতা মন্ত্রীদের গ্রেপ্তার হওয়াকেও যেন ছাপিয়ে গিয়েছেন এই দু’জন।

অনেকেই আবার এই জুটিকে রোমিও-জুলিয়েট জুটির থেকেই উপরের স্থান দিয়েছেন। প্রেসিডেন্সি জেলের ফাটকে কান্না থেকে শুরু করে এসএসকেএমের উডবার্ন ওয়ার্ডে শোভনের সঙ্গে একসাথে থাকার বৈশাখীর আবেদন নেটিজেনদের নজর কেড়েছে। এছাড়াও এসএসকেএম থেকে শোভনকে ছুটি করিয়ে গোলপার্কের বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার বৈশাখীর প্রচেষ্টাও নজর কেড়েছে নেটিজেনদের।

শোভন-বৈশাখীকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে হাজার হাজার মিম। প্রেসিডেন্সির জেলের ফাটকে কান্না থেকে শুরু করে এসএসকেএমের উডবার্ন ওয়ার্ডে শোভনের সঙ্গে একসাথে থাকার বৈশাখীর আবেদন নেটিজেনদের নজর কেড়েছে। ‘ভালবাসা কেন এত অসহায়’? মর্মবিদারী এই গানের সুরে দেখা মিলেছে শোভন-বৈশাখীর।

জেলের গেটের বাইরে দাঁড়িয়ে কান্নায় ভেঙে পড়া বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথা, ‘‘একবার দেখতে দিন। ওষুধটুকু খেতে দিন। ওঁর হাই সুগার। তবুও কিছু খেতে দেওয়া হয়নি। অমানবিক ব্যবহার করা হচ্ছে।’’ এর সঙ্গে জু়ড়ে দেওয়া হয়েছে ‘চিরদিনই তুমি যে আমার’ ছবির সেই গান। আবার ‘চিরদিনই তুমি যে আমার ২’ ছবির পোস্টারও ব্যবহার করে সেখানে কাটাছেঁড়া করে বসানো হয়েছে শোভন ও বৈশাখীর ছবি।

ইতিমধ্যেই বৈশাখী ব্যানার্জীর স্বামী মনোজিৎ মন্ডলের দু’বছর আগের একটি সর্বভারতীয় সংবাদ সংস্থাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারের ভিডিও পুনরায় সোশ্যাল মিডিয়ায় মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। ওই সাক্ষাৎকারে উঠে আসে রত্না ও শোভনের ডিভোর্স প্রসঙ্গ। এর উত্তরে মনোজিৎ মন্ডলকে বলতে শোনা গেছে, “কথা হয়েছে এক দু’বার। সেভাবে চিনি না রত্না চ্যাটার্জীকে। ডিভোর্সের কেস চলছে। স্বাভাবিকভাবেই উনি ভেঙ্গে পড়েছেন। স্বাভাবিক অবস্থায় নেই। রত্না দেবীর চিকিৎসা করানো উচিত। উনি অসুস্থ।”

আর এসবের মাঝেই প্রশ্ন উঠে, চারদিকে শোভন-বৈশাখী নিয়ে যেভাবে আলোচনা চলছে তাতে কি আপনি কেবল এদের দুজনকে বন্ধু বলেই মনে করেন? এই প্রশ্নের উত্তরে মনোজিৎ মন্ডল সেই সময় জানিয়েছিলেন, “বৈশাখী ব্যানার্জি বা কেউ একটা ২২ বছরের সম্পর্ক ভেঙে দিতে পারে না। শোভন বাবু ডিভোর্স ফাইল করার সময় অন্য কারণ দেখিয়েছেন। আর তারা নানান ক্ষেত্রে একসঙ্গে আদালতে বা অন্য কোথাও যাচ্ছেন প্রকাশ্যে। লুকিয়ে তো যাচ্ছেন না। এগুলো নিয়ে মিডিয়া বেশি মাতামাতি করছে। তাছাড়া তারা জানে গল্পটা অন্যরা খাবে না।”

এই প্রসঙ্গে তিনি সুপ্রিম কোর্টের প্রসঙ্গ টেনে আরও বলেন, “এই গল্পটা আপনারা আনতে পেরেছেন বলেই বাজারে চলছে। এটাই বক্তব্য। সুপ্রিম কোর্ট বলেছে কেউ যদি পরকীয়া করে তো করতে দিন। বৈশাখী কখনোই শোভন রত্নার সম্পর্কের ভাঙ্গন হতে পারে না। তাহলে ওকে কেস করতে বলুন বৈশাখীর বিরুদ্ধে। পরকীয়া তো এখন লিগ্যাল। অসুবিধা কোথায়।”

তবে মনে রাখতে হবে বর্তমান পরিস্থিতির দিকে তাকিয়ে মনোজিৎ মন্ডলের এই পুরাতন ভিডিওটির টুকরো অংশ নতুন করে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়লেও মনোজিৎ মন্ডলের আসল বক্তব্য অর্থাৎ ওই ভিডিও কিন্তু দু’বছর আগের পুরাতন। প্রসঙ্গক্রমে বলে রাখা ভালো, মনোজিৎ মন্ডল দীর্ঘদিন ধরে ক্যান্সার আক্রান্ত। তিনি এখনো চিকিৎসাধীন।