‘স্নেহের পরশ’ প্রকল্পে মিলবে মাথাপিছু ১০০০ টাকা, কীভাবে আবেদন করবেন দেখুন

‘স্নেহের পরশ’ প্রকল্পে মিলবে মাথাপিছু ১০০০ টাকা, কীভাবে আবেদন করবেন দেখুন

করোনা সংক্রমনের জেরে মার্চ মাসের ২৩ তারিখ থেকে শুরু হয় দেশ জুড়ে লক ডাউন। সেই লক ডাউন গত ১৪ এপ্রিল শেষ হয়ে গেলেও তারপর শুরু হয় দ্বিতীয় দফার লক ডাউন যা চলবে আগামী ৩ রা মে পর্যন্ত। এমন পরিস্থিতিতে বড় সমস্যায় পড়েছেন পরিযায়ী শ্রমিকরা। অনেকেই নিজের বাড়িও ফিরতে পারেননি, আটকে আছেন অন্য কোনো রাজ্যে। শুক্রবার নবান্ন থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁদের জন্য ‘স্নেহের পরশ’ প্রকল্প ঘোষণা করলেন। বললেন, আগামী সোমবার থেকে অনলাইনে তাঁদের কাছে টাকা পৌঁছে যাবে। প্রত্যেকে পাবেন হাজার টাকা করে।

‘স্নেহের পরশ ‘ প্রকল্পের সহায়তা কারা পাবেন?

ক) ওই শ্রমিককে ব্যক্তিকে অবশ্যই পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা হতে হবে। খ) দেশের আন্তঃরাজ্য যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে যাবার কারণে যারা পশ্চিমবঙ্গে ফিরতে পারছেন না, তাঁরা আবেদন করতে পারবেন। গ) কলকাতা পুর কমিশনার ও জেলাশাসকরা যদি নিশ্চিত হন আবেদনকারী এই রাজ্যের বাসিন্দা এবং ভিন রাজ্যে আটকে পড়েছেন তবে সেই আবেদন গ্ৰাহ্য হবে।

‘স্নেহের পরশ’ প্রকল্পে মিলবে মাথাপিছু ১০০০ টাকা, কীভাবে আবেদন করবেন দেখুন

কীভাবে আবেদন করতে হবে?

রাজ্য সরকার একটি মোবাইল অ্যাপ লঞ্চ করেছেন। যার নাম ‘ওয়েষ্ট বেঙ্গল স্নেহের পরশ ‘। নিজের মোবাইলে ওই অ্যাপ ডাউনলোড করে তার মাধ্যমে আবেদন জানাতে পারবেন ভিনরাজ্যে আটকে থাকা পরিযায়ী শ্রমিকরা।

এই অ্যাপ পশ্চিমবঙ্গ সরকারের এগিয়ে বাংলার (www.wb.gov.in ) হোমপেজে অ্যাপ ডাউনলোড করার লিঙ্ক রয়েছে। (এখনও গুগল প্লে স্টোরে পাওয়া যাচ্ছে না।) সেই লিঙ্কে ক্লিক করে ডাউনলোডের পর ইনস্টল করতে হবে ও প্রয়োজনীয় তথ্য দিতে হবে।

আরও পড়ুন :- পশ্চিমবঙ্গের এই ১০ জেলাকে ছুঁতে পারেনি করোনা

‘স্নেহের পরশ’ প্রকল্পে মিলবে মাথাপিছু ১০০০ টাকা, কীভাবে আবেদন করবেন দেখুন

কি কি ডকুমেন্ট লাগবে?

নিজের ছবি, খাদ্যসাথী বা এপিক বা আধার নম্বর, মোবাইল নম্বর, যে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠানো হবে সেই অ্যাকাউন্টে নম্বর-সহ প্রয়োজনীয় তথ্য, পশ্চিমবঙ্গে থাকা ওই শ্রমিকের কোন এক প্রতিনিধির (পরিবারের কেউ বা পরিচিত) নাম, সম্পর্ক ও ফোন নম্বর।

আরও পড়ুন :- রাজ্য সরকারের সমস্ত প্রকল্পের খুঁটিনাটি

আবেদন অনুমোদনের প্রক্রিয়া: 

আবেদন জমা করার পর খতিয়ে দেখবেন পুলিশ কমিশনার ও বিভিন্ন জেলার জেলাশাসকরা। সন্তুষ্ট হলে তাঁরা অনুমোদন দেবেন। এই অনুমোদনের পর রাজ্য সরকারের বিপর্যয় ব্যবস্থাপনা বিভাগ সংশ্লিষ্ট আবেদনকারীর অ্যাকাউন্টে সরাসরি টাকা পাঠানোর নির্দেশ দেবেন। এসএমএসের মাধ্যমে অ্যাকাউন্টে টাকা পাবার তথ্য পেয়ে যাবেন আবেদনকারী।

আরও পড়ুন :- মিসড কল করেই জেনে নিন অ্যাকাউন্ট ব্যালান্স, রইলো সব ব্যাঙ্কের নম্বর

এই পক্রিয়া কতদিন চলবে?

রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ২০ই এপ্রিল থেকে ৩ মে পর্যন্ত এই প্রকল্প কার্যকর থাকবে।

অ্যাপ ডাউনলোড করার পর কি করতে হবে?

ক) অ্যাপ ডাউনলোড করে ইনস্টল করার পর আপনার থেকে লোকশন ও অন্যান্য কয়েকটি বিষয়ে অনুমতি চাওয়া হবে। যেগুলির সবকটি ‘Allow’ করবেন। এরপর নিজের মোবাইল নম্বর দিয়ে ভেরিফিকেশন করার মাধ্যমে অ্যাকাউন্ট বানিয়ে নিতে হবে।

আরও পড়ুন :- যেতে হবে না ATM-এ, লকডাউনে বাড়িতে বসেই তোলা যাবে টাকা

খ) এরপর পরবর্তী পেজে দেখতে পাবেন ‘Apply Now’ অপশন। যেখানে ক্লিক করলেই তিনটি অপশন পাবেন। বেছে নিতে হবে আধার, ভোটার অথবা ডিজিট্যাল রেশন কার্ড কোনটি দিয়ে আপনি আবেদন করতে চাইছেন।

গ) যেকোনো একটি বেছে নেওয়ার পর ‘Save & Proceed’ বটনে ক্লিক করুন। তারপর সমস্ত বিবরণ দিয়ে আবার ‘Save & Proceed’ বটনে ক্লিক করুন। মনে রাখবেন ফর্ম ফিলাপের সময় অবশ্যই নিজের বর্তমান ঠিকানা দিতে হবে। এভাবে খুব সহজেই ফর্ম ফিলাপ করে পাঠিয়ে দিতে পারবেন রাজ্য সরকারকে।