অভিনেত্রী শ্রুতি দাসকে ‘বেশ্যা’ বলে অপমান, জবাবে ধুয়ে দিলেন অভিনেত্রী

ছোটপর্দায় প্রচলিত নায়িকার সংজ্ঞা বদলে দিয়েছেন তিনি। দুধে আলতা গায়ের রং, ঝাঁ-চকচকে ত্বক এবং চেহারা ছাড়াও যে “নায়িকার ভূমিকায়” অবতীর্ণ হওয়া যায়, তার জ্বলন্ত নিদর্শন তিনি। রেসিজমের আঁচড় তাকে বারংবার স্পর্শ করেছে। গায়ের রং শ্যামলা হওয়ার দরুন কম কটু কথা তাকে শুনতে হয়নি। কেউ কেউ তো আবার শুধু তার গায়ের রংয়ের জন্যই তার মৃত্যু কামনাও করে বসেছেন!

হ্যাঁ, ঠিকই ধরেছেন এতক্ষণে। কথা হচ্ছে টেলিমিডিয়ার অন্যতম পরিচিত অভিনেত্রী শ্রুতি দাসকে নিয়ে। টলিউডে সদ্য পা রাখা শ্রুতিকে ঘরে-বাইরে প্রতিনিয়ত বহু গঞ্জনা এবং অপমান সহ্য করতে হয়েছে। জানলে অবাক হবেন, শ্রুতিকে যারা বারংবার হেয় করার চেষ্টা করেছেন, রক্তাক্ত করেছেন কথার খোঁচায়, তারা প্রত্যেকেই কিন্তু শ্রুতির মতোই নারী! তবে শুধুই নারী কিংবা পুরুষ হলেও হয়তো মানুষ হয়ে ওঠা যায় না।

“জি বাংলা”র “ত্রিনয়নী” ধারাবাহিকের হাত ধরে টলিউডে প্রবেশ করেন শ্রুতি। প্রথম ধারাবাহিকেই কিস্তিমাত করে বসেন কাটোয়ার সেই শ্যামলা মেয়েটি! যাকে “হিরোইন মেটেরিয়াল” নয় বলে প্রত্যাখ্যান করেছিল ইন্ডাস্ট্রি। তবে কোনও সমালোচনা কিংবা বিরূপ মন্তব্য কিন্তু কখনোই শ্রুতিকে তার লক্ষ্য থেকে বিচ্যুত করতে পারেনি। বরং তিনি আরও জেদের বশে নিজের লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে গিয়েছেন।

তাইতো “ত্রিনয়নী” ধারাবাহিক শেষ হয়ে যাওয়ার পরেও “স্টার জলসা” থেকে আমন্ত্রণ পান তিনি। বর্তমানে স্টারের “দেশের মাটি” ধারাবাহিকে নায়িকার ভূমিকাতেই অভিনয় করতে দেখা যাচ্ছে তাকে। তবে শ্রুতিকে কেন্দ্র করে সমালোচনার ঝড় কিন্তু এখনও থামেনি। টলিউডে কাজ করার সুবাদে তার ফ্যান ফলোয়ার্স কিছু কম নয়। তবে এর মাঝেও এমন বহু মানুষ রয়েছেন যারা হয়তো কোনও কারণ ছাড়াই সোশ্যাল মিডিয়ায় অনবরত শ্রুতির বিরোধিতা করে চলেছেন।

নিজের বিরুদ্ধে বিরূপ মন্তব্যকারীদের কিন্তু কখনোই ছেড়ে কথা বলেননি! শ্যামলা ত্বকের জন্য সমালোচনাই হোক, কিংবা মৃত্যু কামনা! ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে কাদা ছোঁড়াছুঁড়িই হোক কিংবা সোশ্যাল মিডিয়ার অশালীন মন্তব্য, প্রতিটি ক্ষেত্রেই রুখে দাঁড়িয়েছেন অভিনেত্রী। বিরূপ মন্তব্যকারী নেটিজেনদের যোগ্য জবাব দিতে কখনোই পিছপা হন না অভিনেত্রী।

তাকে কোনও অশ্লীল মন্তব্য কিংবা অশালীন প্রশ্ন করলে কিন্তু সেই মন্তব্যকারী অথবা প্রশ্নকারীর রেহাই নেই! তাকে এতটাই কড়া জবাব দেবেন শ্রুতি যে হয় তাকে ক্ষমা চাইতে হবে, নতুবা নিজের কমেন্ট ডিলিট করতেই হবে! শ্রুতি দাস কার্যত নিজের ব্যক্তিত্বের সঙ্গে কোনও আপস করেন না। সম্প্রতি আরও একবার তার চরিত্রের সেই দিকটির আভাস পাওয়া গেল।

সোশ্যাল মিডিয়ায় একজন নেটিজেন শ্রুতিকে উদ্দেশ্য করে মন্তব্য করেছিলেন, “বেশ্যার মতো না হলে চলে না বুঝি”! এর পরিপ্রেক্ষিতে শ্রুতি যে জবাব দিলেন তাতে আর পালানোর পথ খুঁজে পাচ্ছেন না ওই নেটিজেন। নিতান্ত বাধ্য হয়েই তাকে নিজের কমেন্ট ডিলিট করতে হলো। কি এমন জবাব দিয়েছিলেন শ্রুতি?

বিরূপ মন্তব্যকারীর অশালীন মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে শ্রুতির যোগ্য জবাব, “নিঃসন্তান আশা করি। সংসারে একদিন হয়তো এমন টানাটানি হল ঈশ্বর না করুন, আপনার বাড়ির মেয়েকেই হয়ত দেহব্যবসা করে পেটের ভাত অর্জন করতে হল। কাউকে ছোট করবেন না। ভেবে নিন আমি ওঁনাদেরই প্রতিনিধিত্ব করলাম। মা দুর্গার পুজো হবে না, ওঁনাদের ভিটের মাটি ছাড়া। সুস্থতা কামনা করি”!

আরও পড়ুন : কতবার সেক্স করেছ তুমি? অভিনেত্রীকে নোংরা প্রশ্ন, জবাবে ধুয়ে দিলেন শ্রুতি দাস

এর বাইরে কারোর আর কিছুই বলার থাকেনা। সত্যিই তো। পৌরাণিক উপাখ্যান অনুসারে, দেবী দুর্গা অকালে মোট ৯টি রূপে পূজিতা। তার নবম রূপটি পতিতালয়ের প্রতিনিধি। তাই তো দূর্গামূর্তি গড়ার আগে পতিতালয় থেকেই মাটি নিয়ে যাওয়া হয়। নতুবা মূর্তি গড়ে উঠবে না। গড়ে উঠলেও তাতে প্রাণ প্রতিষ্ঠা হবে না। স্বয়ং দেবী দুর্গা যাদের প্রতিনিধি, তাদের গোষ্ঠীর প্রসঙ্গ তুলে শ্রুতিকে অপমান করার চেষ্টা করে উল্টে নিজেই অপমানিত ওই নেটিজেন।