একাধিক উচ্চবিত্তের শারীরিক চাহিদা মেটাতে হয়েছে! চাঞ্চল্যকর অভিযোগ পরীমণির বয়ানে

গত ৪ঠা আগস্ট বাংলাদেশের (Bangladesh) প্রথম সারির মডেল তথা অভিনেত্রী পরীমণিকে (Porimoni) গ্রেপ্তার করেছে বাংলাদেশের র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন তথা র‍্যাব। এই খবরে রাতারাতি উত্তাল হয়ে ওঠে বাংলাদেশের সংবাদ মাধ্যম। মাদকযোগে (Drug) জড়িত থাকার অভিযোগের ভিত্তিতে এবং পরীমণির বাড়ি থেকে মাদক উদ্ধার হওয়াতে তদন্তকারী অফিসাররা তাকে গ্রেপ্তার করেছেন। এই মামলায় একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসছে। এবার পরিমণির বয়ানে যে তথ্য উঠে এলো তাতে অবাক হয়েছেন তদন্তকারী অফিসাররা।

ওপার বাংলার সিআইডির (CID) কাছে পরীমণি যে বয়ান দিয়েছেন তাতে জানা গিয়েছে যে, বাংলাদেশের একাধিক উচ্চবিত্ত সম্প্রদায়ের মানুষের শারীরিক চাহিদা মেটাতে বাধ্য হয়েছেন তিনি! এতদিন লোকলজ্জার ভয়ে তিনি সেই বিষয়ে কাউকে কিছু বলেননি। বাংলাদেশের সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ ওমর ফারুক জানিয়েছেন পরীমণি যে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন তার সত্যতা যাচাই করে দেখা হবে। তারপর অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

actress pori moni

গত রবিবার অর্থাৎ ৮ই আগস্ট মালিবাগে সিআইডির সদর দফতরে সাংবাদিকদের সামনে এই তথ্য তুলে ধরেছেন সিআইডি কর্তারা। পরীমণি যে তথ্য দিয়েছেন তাতে একাধিক পেশার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিল বলে জানা যাচ্ছে। তদন্তের স্বার্থে তাদের নাম অবশ্য প্রকাশ করেননি তদন্তকারী অফিসাররা। সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ ওমর ফারুক আশ্বস্ত করে জানিয়েছেন, “অপরাধী যত প্রভাবশালীই হোক না কেন আইনের আওতায় তাকে আনা হবে”।

বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, পরীমণি যাদের নাম নিয়েছেন তদন্তের প্রয়োজনে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের ডেকে পাঠানো হতে পারে। উল্লেখ্য, ইতিমধ্যেই পরিমণির সঙ্গে পুলিশের কর্মকর্তা গোলাম সাকলায়েনের সম্পর্কের তথ্য ফাঁস হয়ে গিয়েছে। তদন্তের স্বার্থেই পরিমণির সঙ্গে আলাপ হয়েছিল ওই পুলিশ কর্তার। এরপর সেই আলাপ থেকে বন্ধুত্ব, এবং বন্ধুত্ব ক্রমশ প্রেম অব্দি গড়ায়।

সেই প্রেমের সম্পর্ক এতটাই গভীর ছিল যে প্রায়শই তাদের গাড়িতে ঘুরতে দেখা গিয়েছে। এমনকি একে অপরের বাড়িতে তাদের যাতায়াতও ছিল। পরিমণির থেকে পাওয়া এই তথ্যের প্রমাণ মিলেছে সাকলায়েনের বাসভবনের সিসিটিভি ফুটেজেও। এ সম্পর্কে সাংবাদিকেরা সিআইডির থেকে আরও তথ্য জানতে চাইলে ওমর ফারুক জানিয়েছেন, “আমাদের কাছে যেসব মামলা এসেছে বেশিরভাগই মাদকদ্রব্য সংক্রান্ত মামলা। মাদকদ্রব্য সম্পর্কিত বিষয়গুলো আমরা জিজ্ঞাসাবাদ করছি।”

Pori Moni

তিনি আরও জানান, “তদন্তের বিষয়গুলো ঠিক করেই আমরা অগ্রসর হচ্ছি। যদি অন্য কোনও বিষয় থাকে, আমরা পরে তদন্তের মাধ্যমে তা খতিয়ে দেখব।” ডিআইজি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, “শুধু পরীমণি নন অনেকেই ব্ল্যাকমেলের শিকার হয়েছেন। তাঁদেরও নাম আমরা পেয়েছি। তবে তাঁদের সঙ্গে এখনও আমরা কথা বলতে পারিনি। তাঁদের সঙ্গে আমরা কথা বলব। বয়ান নথিভূক্ত করা হবে। সেই বক্তব্য যাচাই-বাছাই করব। তার পরই বলা যাবে আরও কারা এসব ঘটনার সঙ্গে জড়িত।”

উল্লেখ্য, গত বুধবার দুপুরে যখন পরিমণির বাড়িতে তল্লাশি চালানোর জন্য উপস্থিত হয়েছিলেন র‍্যাবের কর্তারা, তখন প্রথমদিকে তাদের ‘ডাকাত’ বলে সন্দেহ করেছিলেন অভিনেত্রী। ফেসবুক লাইভে এসে তিনি নিজের ভয়ব্যক্ত করেন। এর আগেও একবার ফেসবুকে লাইভে এসে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেছিলেন তাকে ধর্ষণ করে খুনের চেষ্টা করা হয়েছে। সেই মামলার তদন্ত শেষ হতে না হতেই। নতুন মামলায় জড়িয়ে পড়েছেন অভিনেত্রী। তদন্তে তার বাড়ি থেকে ১৮ লিটার মদ, নতুন মাদক এলএসডি, বাজেয়াপ্ত করে র‍্যাব।