৫ ভারতীয় ক্রিকেটার যারা খেলে ফেলেছেন তাদের শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ

ক্রিকেট খেলাটির আবিস্কারক ইংরেজরা হলেও এই খেলায় দীর্ঘদিন ধরে রাজত্ব করে আসছে ভারতীয়রা। ক্রিকেটের সব ফরম্যাটেই ভারতীয় ক্রিকেট টিম এক কথায় অনবদ্য। কিন্তু বিগত কিছু দিনে কয়েকজন ক্রিকেটারের ফর্ম এর গ্রাফ নিম্নমুখী হওয়ায় ধরা হচ্ছে তারা তাদের জীবনের শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলে ফেলেছেন। অর্থাৎ ভারতীয় ক্রিকেট টিমের পক্ষ থেকে হয়ত তাদের আর খেলার সুযোগ আর পাবেনা। দেখে নাওয়া যাক এমন ৫ জন ক্রিকেট ব্যাক্তিত্বের কথা।

১) সুরেশ রায়না :- ২০০৫ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রথম পদার্পন ঘটে তার। তার পর থেকে তার দুর্দান্ত ব্যাটিং এর ভক্ত হন অনেকেই। কঠিন পরিস্থিতিতেও তিনি তার ব্যাট এর জোরে ম্যাচ জিতিয়েছেন। তবে শুধু ব্যাটিং এর কথা বললে ভুল হবে, ফিল্ডিং এও তার সুখ্যাতি ছিল বিশ্ব জোড়া। তিনি মিডল অর্ডারে ব্যাটিং করতেন। কিন্তু ২০১৮ সাল থেকে তার ফর্ম ধীরে ধীরে খারাপ হতে শুরু করে।তিনি এখনও পর্যন্ত ২২৬টি ওয়ানডে ম্যাচ আর ৭৮টি টি-২০ ম্যাচ খেলেছেন। তিনি একদিনের ম্যাচে ৫৫০০ রান আর টি-২০তে ১৫০০ এর বেশি রান করেছেন। কিন্তু ২০২৮ সালে ভারতের ইংল্যান্ড সফরেও বিশেষ কিছু করতে পারেননি তিনি। ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে লিডসে তার ম্যাচকেই তার শেষ ম্যাচ বলে মনে করা হচ্ছে। তার পর থেকেই তিনি দলের বাইরে আছেন।

২ ) কেদার জাধব :- ২০১৪ সালে ভারতীয় প্রাক্তন অধিনায়ক মহান্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বে ওয়ানডে ক্রিকেটে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে তিনি ম্যাচ খেলা শুরু করেছিলেন। তিনি ভারতীয় ক্রিকেট দলের স্পিনার, অলরাউন্ডার  দলে সত্তেও তার জায়গা স্থায়ী ছিলনা।  ভারতের গায়ে ৫২ টি  ম্যাচ খেলেন তিনি। তার সর্বশ্রেষ্ঠ ইনিংস ছিল বিরাট কোহলির সাথে পার্টনারশিপে ১২০ রানের ইনিংস যা তিনি খেলেছিলেন ২০১৭ সালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে। কিন্তু কয়েক দিন ধরে তার ফর্ম খারাপ চলছে। ৭৩ টি ম্যাচে তার রান ১৩৮৯ যার মধ্যে ২ সেঞ্চুরি এবং ৬ হাফ সেঞ্চুরি আছে। এক্ষেত্রে তার গড় ছিল ৪২.০৯। এভাবেই চলতে চলতে সম্ভবত ফেব্রুয়ারি তে নিউ জিল্যান্ডের বিরুদ্ধে তার খেলা ম্যাচই ছিল তার শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ যেখানে তিনি দেশের জন্য মাত্র ৯ রান করতে পেরেছেন।

৩) মুরলী বিজয় :- ভারতীয় দলের অন্যতম ওপেনিং ব্যাটসম্যান যিনি প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেন ২০১০ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে টেস্টে। তিনি নিজের জীবনে ৬১ টি টেস্ট ম্যাচ খেলেছেন তিনি। এই ম্যাচ গুলোতে তার গড় ছিল ৩৮.২৮, যেখানে ১২টি সেঞ্চুরি এবং ১৫টি হাফসেঞ্চুরি করেছিলেন তিনি। তার সর্বশ্রেষ্ঠ ইনিংস ছিল ২০১৩ সালে যখন বর্ডার-গাভাস্কার ট্রফি খেলতে অস্ট্রেলিয়ান দল ভারতে এসেছিলেন। সেই খেলাতেই তিনি প্রথম ম্যাচে খেলেছিলেন ১৬৭ রানের ইনিংস, এবং দ্বিতীয় ম্যাচে তিনি ১৫৩ রানের ইনিংস খেলেছিলেন। অন্যদিকে তার ক্রিকেট জীবনে ওয়ান ডে এর সংখ্যা ১৭টা যেখানে তার রান ছিল ৩৩৯ এবং টি টোয়েন্টি খেলেছিলেন ৯ টি যেখানে তার রান ছিল ১৬৯। তিনি ২০১৮ তে খেলা অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে টেস্ট ম্যাচের পর আর আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেন নি।

আরও পড়ুন :- ক্রিকেটের এই ১০টি রেকর্ড কোনদিন কারোর পক্ষে ভাঙা সম্ভব নয়

৪) আম্বাতি রায়ডু :- তিনি ভারতীয় দলের মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান ছিলেন। তিনি জীবনে নানারকম প্রতিকূলতার সন্মুখীন হন। ২০১৯ সালে আইসিসি বিশ্বকাপ ক্রিকেটে তাকে দলে নাওয়া হয় না। তারপর ২য় বার এই অপমানের ফলে তিনি অবসর ঘোষণা করেন। পরবর্তীকালে তিনি নিজের অবসর বাতিল করে ডোমেস্টিক ক্রিকেটে খেলা শুরু করেন। তিনি ৫৫ টি ওয়ানডে তে ১৬৯৪ রান করেন যেখানে তার গড় ছিল ৪৭.০৫।তার জীবনের শেষ টেস্ট ম্যাচে তিনি ২ রানে আউট হন যেটি হয়েছিল ২০১৮ সালে রাচিতে।

আরও পড়ুন :- ৩ ভারতীয় ক্রিকেটার যাদের নামে গিনিস রেকর্ড আছে

৫) পার্থিব প্যাটেল :- ২০০২ সালের ইংল্যান্ড সফর থেকে টেস্ট ম্যাচে তিনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলা শুরু করেন। কিন্তু তিনি ভারতীয় ক্রিকেট দলের নিয়মিত খেলা খেলোয়াড় নন। ভারতীয় দলে তার পাকা জায়গা ছিলনা।২৫ টি টেস্ট ম্যাচে তার গড় ছিল ৩১.১৩ এবং রান ছিল ৯৩৪। ৩৮ টি ওয়ানডে তে তার রান ছিল ৭৩৬ এবং নিজের জীবনে খেলা ২ টি টেস্ট ম্যাচে তার রান ছিল ৩৬। তিনি এখন ডোমেস্টিক ক্রিকেট এ গুজরাটের অধিনায়ক এবং আইপিএল ফ্রেঞ্চাইজি আরসিবির উইকেটকিপার। তিনি অনেকদিন কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেননি।