রান্নাঘরের এই ৫ টি উপাদানের মধ্যেই লুকিয়ে ক্যান্সারের বীজ, দূর করুন আজই

রান্নাঘরের এই ৫ টি জিনিসই ক্যান্সারের জন্য দায়ী! দূর করে দিন আজই

মাত্র ২৪ বছর বয়সে ঐন্দ্রিলা শর্মার (Aindrila Sharma) এমন করুণ পরিণতি হবে কে ভেবেছিল? ১৭ বছর বয়সে তার শরীরে বাসা বেঁধেছিল ক্যান্সার (Cancer)। ডাক্তার তাকে সময় দিয়েছিলেন মাত্র ৬ মাস। তবে নিজের জন্য আরও ৭ টা বছর তিনি নিয়তির থেকে ছিনিয়ে নিয়েছিলেন। কিন্তু ২০শে নভেম্বর থেমে গেল তার সমস্ত লড়াই। ঐন্দ্রিলা একা নন, তার থেকে অনেক কমবয়সীদের শরীরেও বাসা বাঁধে এই মারণ রোগ।

ক্যান্সার কেন হয়? কী থেকে হয় (Causes of Cancer)? এর কি সত্যিই কোনও চিকিৎসা রয়েছে? উত্তরগুলো এখনও সাধারণের কাছে ঝাপসা। কিছু স্বার্থপর মানুষের অতিরিক্ত অর্থ লোভের কারণেও কিন্তু বহু মানুষের প্রাণ যাচ্ছে অকালে। নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী যা খাচ্ছেন কিংবা শরীরে মাখছেন, সবকিছুর মধ্যেই থাকতে পারে ক্যান্সারের বীজ।

জানেন কি প্রতিদিন আপনার কিছু অভ্যাসের কারণে আপনার কিংবা আপনার প্রিয়জনের শরীরেও এই রোগ বাসা বাঁধতে পারে? আজ জেনে নিন রান্নাবান্নার সময় কোন কোন কাজ করলে তা শরীরে মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে। প্রথমত, পুরনো মশলা মোটেও ব্যবহার করা যাবে না। অনেকেই দু-তিন মাসের মশলা কিনে নিয়ে রান্নাঘরে মজুদ করে রাখেন। মশলার মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেলেও তা ব্যবহার করলে পরবর্তীতে ক্যান্সার হতে পারে।

দ্বিতীয়ত রান্নাঘরে ননস্টিক বাসন ব্যবহার করা যাবে না। কারণ এর মধ্যে পারফ্লুওকটেন সালফেট নামের একপ্রকার রাসায়নিক থাকে যা শ্যাম্পু, ওয়াটারপ্রুফ পোশাক, প্রসাধনী এবং পরিষ্কারের কাজে ব্যবহার হয়। রোজের রান্নায় এমন পাত্র ব্যবহার হলে ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়বে। তৃতীয়ত, টি ব্যাগের ব্যবহারে চা পান এড়িয়ে চলতে হবে। এর মধ্যে পিসিভি, ফুড গ্রেড নাইলন, ন্যানো প্লাস্টিক থাকে।

গরম জলে টি ব্যাগ ডোবালেই এই রাসায়নিকগুলো ভেঙে গিয়ে কারসিনোজেন নামক উপাদান তৈরি করে যা ক্যান্সার ডেকে আনতে পারে। চতুর্থত, প্লাস্টিকের লাঞ্চ বক্স কিংবা প্লাস্টিকের অন্যান্য পাত্রে গরম খাবার রাখার অভ্যাস পরিত্যাগ করতে হবে। প্লাস্টিকের পাত্রে গরম খাবার দেওয়া হলে বিসফেনল নামের এক ধরনের রাসায়নিক যা প্লাস্টিককে শক্ত করে, ভেঙে খাবারের সঙ্গে মিশে যেতে পারে।

এমন খাবার নিয়মিত খেলে শরীরে ক্যান্সার হতে পারে। তাই গরম খাবার রাখার সময় কাচের কিংবা স্টিলের পাত্র ব্যবহার করুন। এছাড়াও শাকসবজি বাজার থেকে কিনে আনার পর ভাল করে নিয়ে তবেই রান্নাতে ব্যবহার করতে হবে। কারণ বাজার থেকে কিনে আনা সবজির মধ্যে অনেক ক্ষতিকর রাসায়নিক কিংবা কীটনাশক থাকতে পারে।