৫ ক্রিকেটার যারা আইপিএলে ৫ টির বেশি ফ্রানচাইজির হয়ে খেলেছেন

বিনোদন ক্রিকেট আর টাকার মিশেল আইপিএল পৃথিবীর সবথেকে জনপ্রিয় ক্রিকেট টুর্নামেন্ট। তাই দেশি-বিদেশি একাধিক প্লেয়ারকে কিনতে কোটি কোটি টাকা খরচ করে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো।

তবে IPL-এ এমন অনেক ক্রিকেটার আছেন যারা ১২টিআই সিজন আইপিএল খেলেও ভক্তদের মনে নিজের ছাপ ফেলতে পারেননি। টুর্নামেন্টের প্রতিটি সিজনে নতুন একটি ফ্র্যাঞ্চাইজের হয়ে খেলতে দেখা গিয়েছে এই ক্রিকেটারদের। চলুন দেখে নিন এমন ৫ আইপিএল ক্রিকেটারদের যারা দীর্ঘ ১২ বছরের আইপিএল সিরিজে ৬টির বেশি ফ্রানচাইজির হয়ে খেলেছেন।

১) অ্যারন ফিঞ্চ (৭টি ফ্রানচাইজি)

এই অস্ট্রেলিয়ান ওপেনার তাঁর আইপিএলের ক্যারিয়ারে মোট ৭টি ফ্র্যাঞ্চাইজির হয়ে খেলেছেন। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অন্যতম জনপ্রিয় ক্রিকেটার হলেও আইপিএলে তিনি এখনো পর্যন্ত নিজের জায়গা তৈরি করে নিতে পারেননি। আইপিএলে তাঁর ক্যারিয়ার শুরু হয়েছিল রাজস্থান রয়েলসের হাত ধরে। তিনি তারপরের কয়েক সিজনে মোট ৮টি ম্যাচ খেলেন দিল্লি ডেয়ার ডেভিলসের হয়ে।

এরপরে পুনে ওয়ারিয়র্সের অধিনায়কত্বের দায়িত্ব দেওয়া হয় ফিঞ্চকে। তার পরের বছরই তিনি সানরাইজার্স হায়দরাবাদে চলে যান। সানরাইজার্স হায়দরাবাদে যাবার আগে পুনের হয়ে তিনি মোট ১৩ টি ম্যাচ খেলেছিলেন। এরপর তিনি মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে মাত্র ৩টি ম্যাচ খেলেছিলেন। পরে আইপিএলের ২টো সিজনের ফুল এডিশন ধরে গুজরাট লায়ন্সে হয়ে খেলেন তিনি। ২০১৮ সালে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের জার্সিতে দেখা যায় তাকে। এই বছরের এডিশনে তিনি  রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের পোশাকে মাঠে নামতে চলেছেন।

২) দীনেশ কার্তিক  (৬ টি ফ্রানচাইজি)

আইপিএল ক্যারিয়ারে মোট ৬টি আলাদা ফ্র্যাঞ্চাইজি ঘুরে শেষমেশ কলকাতা ফ্রাঞ্চাইজিতে নিজের জায়গা পাকা করে নিয়েছেন দীনেশ কার্তিক। কার্তিক এখনো পর্যন্ত আইপিএলে মোট ১৮২ টি ম্যাচ খেলেছেন। কার্তিকের ক্যারিয়ার শুরু হয় দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের সাথে। সেখানে থাকাকালীন তিনি ৩টে সিজেন ধরে মোট ৪২ টি ম্যাচ খেলেছেন। মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে দুটি সিজন খেলার ২০১১ এর সিজনে তিনি কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

২০১৪ সালে ফের দিল্লিতে ফেরত আসেন ব্যাটসম্যান হিসেবে একটি সিজনের জন্য। আবার ২০১৫ তে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর হয়ে মাঠে নামতে দেখা যায় তাকে। এরপরের সিজন গুলিতে তিনি গুজরাট রয়েলসের জন্য খেলেছিলেন। শেষ পর্যন্ত কলকাতা নাইট রাইডার্স অধিনায়কত্ব পেয়ে শেষ দুটি সিজন কলকাতার হয়ে খেলেন।

৩) পার্থিব প্যাটেল (৬ টি ফ্রানচাইজি)

আইপিএল সিরিজের আরো একজন ভবঘুরে ক্রিকেটার লম্বা আইপিএল ক্যারিয়ারে মোট ৬টি আলাদা ফ্র্যাঞ্চাইজের হয়ে খেলেছেন। প্রথম তিনটি সিজন তিনি খেলেন চেন্নাই সুপার কিংসের হয়ে। তারপরের দুটি সিজন খেলেন কোচি টাস্কারস কেরালা এবং ডেকান চার্জার্স দলের হয়ে। তাঁর চতুর্থ ফ্রানচাইজি ছিল সানরাইজার হায়দ্রাবাদ।

পরে ২০১৪ সালে ব্যাঙ্গালোরের ওপেনার হিসেবে খেলেন। পরে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে দুটি সিজনে খেলতে দেখা যায় তাকে। ২০১৫ ও ২০১৭ সালের মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে আইপিএল কাপ জেতেন তিনি। শেষমেষ ২০১৮ সালে ফের ব্যাঙ্গালোরে ফেরত আসেন তিনি।

৪)  ইশান্ত শর্মা (৬টি ফ্রানচাইজি)

কেকেআরের হয়ে ভালো পারফরম্যান্স করতে না পারায় ২০১১ সালে তিনি ডেকান চার্জার্সে চলে যান। সেখানেও প্রত্যাশিত পারফরম্যান্স দিতে না পারায় পরে তিনি সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে খেলেন।

এর পর রাইজিং পুনে সুপার চার্জার্স তাকে কিনে নেয়। শেষ পর্যন্ত দিল্লি ক্যাপিটালসের জার্সি পড়ার আগে ২০১৮ সালে তিনি কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের সঙ্গে খেলেন।

৫) থিসারা পেরেরা (৬ টি ফ্রানচাইজি)

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে শ্রীলংকার সেরা ক্রিকেটারদের মধ্যে অন্যতম হলেন থিসারা পেরেরা। তবে আইপিএলে নিজের জায়গা করে নিতে পারেননি তিনি। ২০১০ থেকে ২০১৬ সালের আইপিএল ক্যারিয়ারে তিনি মোট ৬টি ফ্রানচাইজির হয়ে খেলেছেন।

চেন্নাই সুপার কিংস থেকে যাত্রা শুরু করে পরপর কোচি টাস্কারস কেরালা, মুম্বই ইন্ডিয়ান্স, কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব, সানরাইজার্স হায়দরাবাদ এবং রাইজিং পুনে সুপার জায়ান্টসের হয়ে খেলেন।