শচীনের ৩০ টি রেকর্ড যেটা আজ পর্যন্ত কেউ ভাঙতে পারেনি

শচীনের ৩০ টি রেকর্ড যেটা আজ পর্যন্ত কেউ ভাঙতে পারেনি

শচীন ভারতের ক্রিকেটপ্রেমীদের কাছে শুধু একজন খেলোয়াড় নন বরং তার থেকেও অনেকটা বেশী। ক্রিকেটে শচীন একটি আবেগের নাম। সালটা ১৯৮৯ দিনটা ১৫ নভেম্বর প্রথম পাকিস্থানের বিরুদ্ধে লড়াইতে বাইশ গজে নামেন তিনি। তারপর কেটে গেছে ৩০ টা বছর। পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি এই কিংবদন্তিকে। এই ৩০ বছরের বাইশ গজের জীবনে অসংখ্য রেকর্ড করেছেন তিনি কিন্তু এদের মধ্যে এমন ৩০ টি এমন রেকর্ড আছে যেটা আজপর্যন্ত কেউ ভাঙতে পারেনি। একনজরে দেখে নেওয়া যাক রেকর্ডগুলো..

১. ওয়ানডে ক্রিকেটে ১০,০০০ এর ওপর রান ( ১৮,৪২৬), ১০০ এর ওপর উইকেট (১৫৪) আর ১০০ এর ওপর ক্যাচ (১৪০ টি ) নেওয়ার রেকর্ড নিজের নামে করেছেন এই ভারতীয় কিংবদন্তি।

২. আন্তর্জাতিক ক্রিকেট, টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি, এই তিনটি মিলিয়ে সর্বাধিক রানের (৩৪,৩৫৭) রেকর্ড গড়েছেন তিনি যা এখনও পর্যন্ত ভাঙ্গা যায়নি সেই রেকর্ড। সচিন এর পরে শ্রীলঙ্কার কুমার সাঙ্গাকারা তার থেকে ৬ হাজার ৩৪১ রানে পিছিয়ে আছেন দ্বিতীয় স্থানে। ভারতীয় ব্যাটসম্যান দের মধ্যে তার পরেই আছেন বর্তমান ভারতীয় দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি।

৩. আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তিনি একশোটি সেঞ্চুরি করেছেন যা এককথায় অনবদ্য। নামটা শচীন তেন্ডুলকর বলেই হয়ত সম্ভব। তার থেকে ৩০ টি সেঞ্চুরিতে পিছিয়ে বিরাট কোহলি আছেন দ্বিতীয় স্থানে।

৪. মোট ছয় বার এক বছরে হাজারেরও বেশি টেস্ট রান (১৯৯৭, ১৯৯৯, ২০০১, ২০০২, ২০০৮, ২০১০ সালে) করার রেকর্ডটিও আছে তার নামে।

৫. তিনি নয়টি দলের বিপক্ষে টেস্ট খেলেছেন এবং এই নয়টি দলের বিপক্ষেই তার গড় কম করে ৪০।

৬. টেস্টে এশিয়ার ব্যাটসম্যানদের মধ্যে প্রতিপক্ষের হোম গ্রাউন্ড সবচেয়ে বেশি ব্যাটিং এর গড় সচিন টেন্ডুলকার এর ( ৫৪.৭৪)।

৭. ওয়ানডে ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি রানের রেকর্ড তার( ১৮,৪২৬)।

৮. ওয়ানডে ইতিহাসে তিনি ৪৯ টি সেঞ্চুরি করে সবথেকে বেশী সেঞ্চুরির রেকর্ড নিজের নামে করিয়েছেন।

৯. ওপেনার হিসেবে ওয়ানডে ইতিহাসে তিনি ১৫,৩১০ রান করেছেন যেটা রেকর্ড তৈরি করেছে।

১০. ১৯৯৮ সালে এক বছরে ওয়ানডেতে সবচেয়ে বেশি রান করেছিলেন তিনি। তার রান ছিল ১,৮৯৪

১১. ১৯৯৮ সালে ওয়ানডে তে তিনি নয়টা সেঞ্চুরি করেছিলেন ফলে এক বছরে ওয়ানডে তে সবথেকে বেশী রানের রেকর্ডও তার নামেই।

১২. দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে গোয়ালিওরে, তিনি ২০১০ সালে ব্যাটসম্যান হিসেবে প্রথম ওয়ানডে তে ডবল সেঞ্চুরি করেন।

১৩. ওয়ানডে ইতিহাসে তিনি ৬২ বার, অর্থাৎ সবথেকে বেশী বার ‘ম্যান অফ দ্য ম্যাচ’ হয়েছেন।

১৪. ওয়ানডে ইতিহাসে তিনি ১৪ বার ‘ম্যান অফ দ্য সিরিজ’ও হয়ে রেকর্ড তৈরি করেছেন।

১৫. বিশ্বকাপে তিনি সবচেয়ে বেশি রান (২,২৭৮) করেছেন।

১৬. ২০০৩ সালের বিশ্বকাপে এক আসতেই তিনি ৬৭৩ রান তুলে রেকর্ড তৈরি করেন।

১৭. বিশ্বকাপ ক্রিকেটে তিনি ৬ টি সেঞ্চুরি করে তিনি বিশ্বকাপে সর্বাধিক সেঞ্চুরির রেকর্ড করেন।

১৮. ভারতের মধ্যে তিনি সবথেকে কম বয়সী (১৭ বছর ৩ মাস ১৭ দিন) ব্যাটসম্যান হিসেবে টেস্ট ম্যাচে সেঞ্চুরি করেন।

১৯. টেস্ট ইতিহাসে ৫১ টি সেঞ্চুরি করে টেস্টে সবথেকে বেশী সেঞ্চুরির রেকর্ড নিজের নামে করিয়ে নেন।

২০. ওয়ানডেতে ক্রিকেটে তিনি ৯৬ টি হাফ সেঞ্চুরি করে রেকর্ড তৈরি করেন।

২১. তিনি ক্রিকেটের ইতিহাস এ ৪৬৩ টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন যা আর কেউ খেলেননি।

২৩. তিনি বিশ্বের ৯০টি আলাদা আলাদা স্টেডিয়াম বা মাঠে খেলেছেন।

২৪. বিশ্বকাপে ২১ টি হাফ সেঞ্চুরি করে টেন্ডুলকার বিশ্বকাপে সর্বাধিক হাফ সেঞ্চুরি এর রেকর্ড করেন।

২৫. এমনিতেই সেঞ্চুরি তে তিনি অনেক রেকর্ড গড়ে ফেলেছেন কিন্তু তা ছাড়াও ২৭ বার তিনি নব্বই এর ঘরে আউট হন।

২৬. টেস্টে সবচেয়ে বেশি (২১ বার) দেড় শতাধিক রানের ইনিংস তাঁর।এর মধ্যে ছয়বার তিনি ডবল সেঞ্চুরি করেছেন।

আরও পড়ুন :- ৪ ক্রিকেটার যারা ভেঙে দিতে পারেন শচীনের সেঞ্চুরির রেকর্ড

২৭. তার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের পাঁচটি সেঞ্চুরি ২০ বছরেরও কম বয়সে করা।

২৮. বিরোধী দলের হোম গ্রাউন্ডে তিনি টেস্টে সর্বাধিক রান (৮,১৪৫ রান ) করেছেন।

২৯. ক্রিকেটের ইতিহাসে একমাত্র তিনি ২০০ টির বেশী টেস্ট ম্যাচ খেলেছেন।

৩০. আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তিনি একমাত্র ক্রিকেটার যিনি ৩০,০০০ এর বেশি রান করেছেন।