বলিউডের প্রলোভনে পা দিতেই সব শেষ, অকালেই কোথায় হারিয়ে গেলেন মিঠু মুখার্জী

বলিউডের প্রলোভনে শোচনীয় পরিণতি, মাত্র ৩৫ বছরে কোথায় হারিয়ে গেলেন উত্তম কুমারের নায়িকা

আরব্য রজনীর ‘আলিবাবা চল্লিশ চোর’ গল্পের তিনিই হলেন মর্জিনা, আবার কখনও ‘স্বয়ংসিদ্ধা’ নতুন বউ মানসিক ভারসাম্যহীন স্বামীর উপর অত্যাচার আটকাতে হাতে চাবুক তুলে নেন, তিনি  টলিউডের (Tollywood) অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী মিঠু মুখার্জি (Mithu Mukherjee)। উত্তম কুমার থেকে শুরু করে রঞ্জিত মল্লিক, অভিনয় জীবনে তাবড় তাবড় তারকাদের সঙ্গে অভিনয় করার সুযোগ হয়েছিল তার, তারপরেও কোথায় হারিয়ে গেলেন স্বর্ণযুগের এই অভিনেত্রী?

একদিকে টলিউডে উত্তম কুমার, সৌমিত্র চ্যাটার্জী, রঞ্জিত মল্লিকের তিনিই ছিলেন নায়িকা, অন্যদিকে আবার বলিউডেও তার বেশ সুনাম ছিল। তিনি অভিনয় করেছিলেন রাজ কাপুর, শত্রুঘ্ন সিনহাদের সঙ্গে। তারপরেও একটা সময় পর তিনি অভিনয় ছেড়ে দিলেন। টলিউড ও বলিউডে এত জনপ্রিয় হওয়া সত্ত্বেও মাত্র ৩৫ বছর বয়সেই শেষ হয়ে যায় তার কেরিয়ার।

মিঠু মুখার্জির অভিনয় জীবন শুরু হয় ১৯৭১ সালে। সেই সময় ঠিক তো বোস ‘শেষ পর্ব’ ছবির জন্য তাকে মনোনীত করেন। তবে শুরুতেই তেমন জনপ্রিয়তা পাননি তিনি। প্রথম ছবি থেকে তেমন জনপ্রিয়তা না পেলেও এরপরই তার হাতে আসে সুবর্ণ সুযোগ। সালটা ছিল ১৯৭৩, দিনেন গুপ্ত ‘মর্জিনা আব্দুল্লাহ’ ছবিতে মিঠু মুখার্জিকে মর্জিনার চরিত্র দিলেন। বাকিটা ইতিহাস হয়ে থেকে গেল টলিউডে।

দ্বিতীয় ছবিতেই কার্যত কিস্তিমাত করে দিলেন মিঠু মুখার্জী। তার মধ্যেই টলিউড খুঁজে পেল আরেক প্রতিভাসম্পন্ন নায়িকাকে। দর্শকরাও মিঠু মুখার্জীর অভিনয় পছন্দ করতে শুরু করলেন। তারপরেই টলিউডে তার জয়যাত্রা শুরু হয়। ‘মৌচাক’, ‘স্বয়ংসিদ্ধা’র মত সুপারহিট ছবিতে মিঠু মুখার্জী নিজের দক্ষতা প্রমাণ করলেন। বিশেষত রঞ্জিত মল্লিকের বিপরীতে তার জুটিটা সবথেকে বেশি পছন্দ করলেন দর্শকরা।

বাংলার এই প্রতিভাময়ী অভিনেত্রীর হাতে বলিউডের সুযোগ আসতে খুব একটা দেরি হয়নি। ১৯৭৬ সালে ‘খান দোস্ত’ ছবিতে প্রথমেই নায়িকা হিসেবে বলিউড তাকে সুযোগ দিয়েছিল। তবে এই ছবিটা সেভাবে সফল হয়নি। তাই তারপরের বেশ কিছু হিন্দি ছবিতে তাকে পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয় করতে হয়েছিল। সেখানেও হিট ছিলেন মিঠু মুখার্জী।

মিঠু মুখার্জী বলিউডে ‘সফেদ ঝুট’, ‘দিললাগি’র মত বহু ছবিতে কাজ করেছেন। কিন্তু বলিউডে সেভাবে গুরুত্ব না পেয়ে তিনি আবার বাংলায় ফিরে আসেন। এরপর পরপর বেশ কিছু বাংলা ছবিতে তিনি অভিনয় করেন। এরমধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ছবির নাম হল ‘আশ্রিতা’। তবে এই ছবির পর তাকে আর কখন পর্দায় ফিরে পাওয়া যায়নি। ‘আশ্রিতা’ ছবির পরিচালক চন্দ্র ব্যারোটকে বিয়ে করে তিনি চলে যান মুম্বাইতে। মাত্র ৩৫ বছরেই শেষ হয়ে যায় তার অভিনয় জীবন। এখন মুম্বাইতে সংসার পেতে সুখেই দিন কাটাচ্ছেন মিঠু মুখার্জী।