১০ বছরের বড় মায়ের বান্ধবীকে বিয়ে, ফাঁস হয়ে গেল ললিত মোদির কুকীর্তি

সুস্মিতা প্রথম নন, ১০ বছরের বড় মায়ের বন্ধুকে বিয়ে করেছেন ললিত মোদি

সম্প্রতি সুস্মিতা সেন (Susmita Sen) এবং ললিত মোদির (Lalit Modi) সম্পর্ক নিয়ে তোলপাড় সোশ্যাল মিডিয়া। কারণ মালদ্বীপ থেকে ফ্যামিলি নিয়ে ঘুরে এসেই সুস্মিতাকে নিজের ‘বেটার হাফ’ বলে পরিচয় দিয়ে নিজেদের একাধিক ঘনিষ্ঠ ছবি শেয়ার করেছেন ললিত। তাই নেটিজেনরা ধরেই নিয়েছেন রোহমানের সঙ্গে ব্রেকআপের পর এখন ললিতেই মজেছে সুস্মিতার মন।

তবে আইপিএলের প্রাক্তন চেয়ারম্যান ললিত মোদি কিন্তু বিবাহিত। যদিও তিনি তার ব্যক্তিগত জীবন এবং প্রথম স্ত্রীর সম্পর্কে বিশেষ কিছু জানাতে চান না। ললিতের প্রথম স্ত্রীর নাম মিনাল। ১৯৯১ সালের ১৭ অক্টোবর তাদের বিয়ে হয়। নাইজেরিয়ায় সিন্ধি-ইন্দো পরিবারে জন্ম হয়েছিল মিনালের। ললিত অবশ্য তার প্রথম স্বামী ছিলেন না। সৌদি আরবের ধনী ব্যক্তি জ্যাক সাগরানির সঙ্গে তার বিয়ে হয়েছিল।

একটি দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ায় জ্যাকের সাত মাসের জেল হয়। মিনাল তখন ছিলেন অন্তঃসত্ত্বা। লন্ডনে এসে তিনি তার মেয়ে করিমাকে জন্ম দেন। এরপর মিনাল চলে আসেন দিল্লিতে। দিল্লিতে আসার পর ললিত মোদীর মা বীণার সঙ্গে মিনালের বন্ধুত্ব হয়। ললিত ছিলেন তার থেকে ১০ বছরের ছোট। মায়ের বান্ধবীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হয়ে পড়েন ললিত। এরপর তারা দিল্লি থেকে মুম্বাইতে চলে আসেন এবং তাদের বিয়ে হয়।

ললিত এবং মিনালের দুই সন্তান। ১৯৯৩ সালে মেয়ে আলিয়া ও ১৯৯৪ সালে ছেলে রুচির জন্ম দেন তারা। এরপর স্ত্রীকে নিয়ে লন্ডনে চলে আসেন ললিত। সেখানে কয়েক বছর পর ক্যান্সার ধরা পড়ে মিনালের শরীরে। ১ বছর ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করে ২০১৮ সালে মিনালের মৃত্যু হয়।

৪ বছরের মাথায় বিশ্ব সুন্দরী সুস্মিতা সেনের মধ্যেই নিজের বেটার হাফ খুঁজে পেলেন ললিত। তিনি যে ছবিগুলো শেয়ার করেছেন তার মধ্যে একটিতে সুস্মিতার হাতের আঙ্গুলে একটা বড় হীরের আংটি দেখা যাচ্ছে। টুইটারে তিনি লিখেছেন, ‘পরিবারের সঙ্গে মলদ্বীপ এবং সার্ডিনিয়ায় বেড়িয়ে লন্ডনে এলাম। আমার বেটার হাফ সুস্মিতা সেনের কথা উল্লেখ না করলেই নয়। শেষ পর্যন্ত নতুন জীবনের শুরু। দুর্দান্ত উপভোগ করছি।’

https://twitter.com/LalitKModi/status/1547587779852259329