ভাইরাল হতে গিয়ে ব্যবসা উঠল লাটে, মাছ কাকুর করুন অবস্থা দেখে চোখ কপালে নেটিজেনদের

সবার কি আর বাদাম কাকুর মত কপাল, ভাইরাল হতে গিয়ে মাছ কাকুর ব্যবসাই উঠল লাটে

Mach Kaku's Business is going to be closed after viral on net

জনপ্রিয় হতে কে না চান? আর এই সোশ্যাল মিডিয়ার জগতে ভাইরাল হওয়াটা মুখের কথা নয় তো আর কি? সোশ্যাল মিডিয়াকে হাতিয়ার করে অনেকেই জনপ্রিয়তা পেয়েছেন। যেমন রানু মন্ডল আর ভুবন বাদ্যকরের গান তাদের জনপ্রিয়তা এনে দেয়। সেই দেখে অনেকেই ভেবেছিলেন বর্ধমানের মাছ কাকুও (Mach Kaku) এবার জনপ্রিয় হওয়ার পথে হাঁটা দিলেন।

তবে না, বর্ধমানের দুর্গাপুরের শোভাপুর এলাকার মাছ বিক্রেতা কুশল বাদ্যকরের (Kushal Badyakar) ভাগ্যটা ঠিক বাদাম কাকুর মত হল না। তিনি ভাইরাল হয়েছেন বটে, কিন্তু ভাইরাল হওয়ার বিপদটা এখন হাড়ে হাড়ে বুঝছেন তিনি। তার মাছ বিক্রির ব্যবসা এখন রীতিমতো লাটে উঠেছে।

ব্যবসা করার জন্য মাছ নিয়ে গান বেঁধেছিলেন কুশল বাদ্যকর। ‘মাছ নেবেন দাদা মাছ নেবেন’, গান গেয়ে গ্রাহককে আকৃষ্ট করতেন তিনি। গান গেয়ে মাছ বিক্রি করতে করতে সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়ে যান তিনি। এখন এমন অবস্থা যে তার মাছ আর বিক্রি হচ্ছে না। বাদাম কাকু বাদাম বিক্রি করে কষ্ট করে সংসার চালাতেন। মাছ কাকুও এতদিন এভাবেই কষ্ট করে ব্যবসা করে সংসার চালাচ্ছিলেন।

ভাইরাল হওয়ার পর তিনি ভেবেছিলেন এবার হয়তো ব্যবসাতে ভাল লাভ হবে। কিন্তু এখন খ্যাতির বিড়ম্বনায় বাড়ির বাইরে পা রাখাই দুষ্কার হয়ে উঠেছে তার পক্ষে। ভাইরাল হওয়ার পর এখন তাকে সকলে চিনে ফেলেছেন। তিনি যেখানেই যাচ্ছেন সকলেই তাকে ঘিরে ধরে আবদার করছেন, ‘দাদা আসুন না একটা সেলফি তুলি।’ লোকজনের এই সেলফি তোলার হিড়িকে তিনি গত দুই সপ্তাহ ধরে মাছ বিক্রি করতে যেতে পারছেন না।

একটা সময় একটি অফিসে কেরানির চাকরি করতেন তিনি। লকডাউনে চাকরি চলে যেতেই তিনি মাছ বিক্রির ব্যবসা শুরু করেন সংসার চালানোর জন্য। গানে গানে মাছ রান্না করার রেসিপিটাও বলে দিতেন। ভাইরাল হয়ে তিনি ভেবেছিলেন সুদিন ফিরবে। কিন্তু হয়েছে ঠিক তার উল্টোটা।