মেকআপ ছাড়া কেমন দেখতে লাগে মনামী ঘোষকে? ফাঁস হল ছবি

৪০ পেরিয়েও অটুট গ্ল্যামার! কিন্তু মেকআপ ছাড়া কেমন দেখায় মনামী ঘোষকে?

যখন সময় থমকে দাঁড়ায়.. এই গানটি হয়তো একেবারে যথাযথ মনামী ঘোষের (Monami Ghosh) জন্য। বছর ৪০ ছুঁই ছুঁই হলেও তাকে এখনো দেখতে লাগে অষ্টাদশী। কিন্তু সত্যি কী তাই? নাকি পুরোটাই মেকআপের কামাল? সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া অভিনেত্রীর মেকআপ বিহীন (Without Make Up) ছবি প্রমাণ করে দিল সব সত্যি।

কুড়িতেই বুড়ি… কথাটা মনামীর ক্ষেত্রে খাটে না

আর কিছু মাস পরেই চল্লিশে পা দেবেন তিনি। মেদহীন শরীর, দুর্দান্ত ফিগার এবং ফিটনেসের অন্য নাম হল মনামী। মনামীকে দেখলে এখনো চোখ ধাঁধিয়ে যায় ভক্তদের। কিন্তু পটু এই নৃত্যশিল্পী সত্যিই কি এত সুন্দরী? নাকি পুরোটাই কামাল মেকআপের। সত্যিটা সামনে এল হঠাৎই।

MONAMI GHOSH

মেকআপবিহীন ছবি পোস্ট করলেন মনামী ঘোষ

সদ্য সোশ্যাল মিডিয়ায় অভিনেত্রী শেয়ার করেছেন নিজের একটি মেকআপ বিহীন ছবি। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, মুখে বিন্দুমাত্র মেকআপের ছোঁয়া নেই। ভুরু প্লাকও করেননি তিনি। মেকআপ ছাড়াও যে কোন অভিনেত্রীকে এতটা সুন্দরী দেখতে লাগে তা ছবিটা না দেখলে বিশ্বাস করাই যেত না। মুখে নেই কোন বলিরেখা বা ডার্ক সার্কেলের ছোঁয়াও।

মেকআপ ছাড়া মনামীকে কেমন দেখতে লাগে?

অভিনেত্রী ছবি দেখে এক বাক্যে সকলে স্বীকার করেছেন, সত্যিই মনামীর বয়স বাড়ে না। অনেকে আবার মজার ছলে লিখেছেন, আপনি কি ভ্যাম্পায়ার? কিন্তু মজার ছলে যাই বলা হোক না কেন, এটা সত্যি যে মনামী খুব সুন্দর ভাবে নিজেকে ধরে রেখেছেন। কিন্তু কী এমন রহস্য রয়েছে এর পেছনে? কোন জাদু বলে তিনি নিজেকে করে রেখেছেন যুবতী?

MONAMI GHOSH

মনামী ঘোষের ডায়েট চার্ট

এই বিষয়টি নিয়ে মনামীকে যতবারই প্রশ্ন করা হয় তিনি বলেন, “আমার হজম শক্তি দারুন। তাই আমার ওজন বাড়ে না। আমি চেষ্টা করি কার্বোহাইড্রেট খাবারে না রাখার। নিয়মিত জিম করি। ছোটবেলা থেকেই নাচ করতে ভালোবাসি। তবে হ্যাঁ, নিজেকে মেনটেইন করার ইচ্ছাশক্তি থাকা খুব প্রয়োজন। ইচ্ছে শক্তি ছাড়া কোন কিছুই সম্ভব নয়।”

আরও পড়ুন : ৪০ পেরিয়ে নতুন সম্পর্কে জড়ালেন মনামী, অভিনেত্রীর প্রেমিকের পরিচয় জানলে চমকে যাবেন

MONAMI GHOSH

আরও পড়ুন : ৪০ পেরিয়েও ১৮ এর গ্ল্যামার! যৌবন ধরে রাখতে রোজ এই ছোট্ট কাজ করেন মনামী ঘোষ

মনামী আরো বলেন, “সারাদিনের রুটিন তেমন কিছু নয়। এর আগে এক মিউজিক ভিডিও শুটিং-এর সময় প্রতিদিন জিমে গিয়েছিলাম। জিম থেকেই আমার ডায়েট দেওয়া হয়েছিল। কোনরকম কার্বোহাইড্রেট থাকবে না। সেটা মেনে দেড় মাস চলেছি আমি। সকলে পাশে বসে চিংড়ি মাছ খেয়েছে, আমি শুধুই প্রোটিন খেয়ে থেকেছি। ব্যাস তাতেই কেল্লাফতে।”