‘আমার মেয়ে ঠিক উত্তরই দিয়েছিল’, মুখ খুললেন ‘Amrela’খ্যাত ফেল পরীক্ষার্থীর বাবা

‘Amrela’ বানান করে ট্রোলের চোটে জর্জরিত ফেল পরীক্ষার্থী, ভুগছে গোটা পরিবারও

AMRELA GIRL

উচ্চ মাধ্যমিকের (Higher Secondary) পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই রাস্তা বন্ধ করে ধর্নায় বসে গিয়েছিলেন একদল ছাত্র-ছাত্রী। তাদের দাবি, ভালো পরীক্ষা দেওয়ার সত্বেও তাদের ফেল করানো হয়েছে! তাই তাদের পাশ করাতেই হবে। এদের মধ্যে ছিলেন নদীয়ার অকৃতকার্য উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী সুদীপ্তা বিশ্বাস (Sudipta Biswas)। ইংরেজিতে ফেল করে সেই ফলাফল মেনে নিতে পারেননি তিনি।

সংবাদমাধ্যমের কাছে সুদীপ্তাকে বলতে শোনা যায় তিনি রাষ্ট্রবিজ্ঞানে লেটার মার্কস পেয়েছেন। কিন্তু তাকে ইংরেজিতে ফেল করিয়ে দেওয়া হয়েছে। এরপরে ওই সাংবাদিক তাকে Umbrella বানান করতে বলেন। কিন্তু বানান বলতে গিয়েই কার্যত বিপাকে পড়ে যান তিনি। ভুল বানান করার দরুণ সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়ে যায় এই ভিডিও।

তারপর থেকেই কার্যত ‘Amrela’ বানানের দরুণ ট্রোল করা হতে থাকে তাকে। সোশ্যাল মিডিয়াতে অহরহ কটাক্ষের শিকার হচ্ছেন তিনি। তার উপর আবার পাড়া-প্রতিবেশী থেকে শুরু করে আত্মীয়-স্বজন, প্রত্যেকেরই নিশানায় পরিণত হয়েছেন ওই উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী। এবার এই বিষয় নিয়ে সংবাদমাধ্যমের কাছে মুখ খুললেন তার বাবা। মেয়ের হয়েই সাফাই দিতে শোনা গেল তাকে।

সুদীপ্তার বাবা এই সময় ডিজিটালের কাছে এই বিষয়ে বলেছেন এতে তার মেয়ের কোনও দোষ নেই। তিনি ঠিক বানানই করেছিলেন। ওই সাংবাদিক তাকে ‘আমরেলা’ বানান করতে বলেছিলেন। তাই সুদীপ্তাও সাংবাদিকের উচ্চারণ অনুযায়ী সঠিক বানানই করেছিলেন। তিনি যদি সঠিক উচ্চারণ করতেন তাহলে সুদীপ্তাও সঠিক বানানটাই বলতেন! এমনটাই দাবি করেছেন ওই ছাত্রীর বাবা।

তিনি আরও বলেছেন ঘরে-বাইরে প্রতিনিয়ত চরম সমালোচনার মুখে পড়তে হচ্ছে তার মেয়ে এবং তার পরিবারকে। এই পরিস্থিতিতে আত্মীয়দের পর্যন্ত পাশে পাননি তিনি। ‘মেয়েকে লেখাপড়া শেখাতে পারেননি!’, এমন কথাও শুনতে হচ্ছে। এদিকে প্রতিনিয়ত ট্রোলিংয়ের সম্মুখীন হয়ে দুবার আত্মহননও করতে গিয়েছিলেন সুদীপ্তা! মেয়েকে সবসময় চোখে চোখে রাখতে হচ্ছে বলে দাবি করেছেন ওই ছাত্রীর বাবা।