টিআরপির জন্য চরম নোংরামি, সত্যিই প্রেগন্যান্ট ‘লক্ষ্মী কাকিমা’? ফাঁস হল রহস্য

Riya Chatterjee

Published on:

লক্ষ্মী কাকিমা সুপারস্টার (Lokkhi Kakima Superstar) ধারাবাহিকটিকে থেকে নিয়ে গত কয়েকদিন ধরে বিতর্কের শিরোনাম দখল করে রয়েছে জি বাংলা (Zee Bangla)। এই সিরিয়ালের ৪০ ঊর্ধ্ব প্রৌঢ়া লক্ষ্মী কাকিমা নাকি প্রেগন্যান্ট! ডাক্তারের পরিভাষায়, নাকি ‘মেলামেশা’ করার ফলে লক্ষ্মী কাকিমার গর্ভে এসেছে সন্তান! এসব দেখে ধারাবাহিকের উপর গত কয়েকদিন ধরেই ক্ষোভ উগড়ে দিচ্ছিলেন দর্শকরা।

সিরিয়ালের নতুন ট্র্যাক দেখে অনেকেই দাবি করছিলেন এখানে নাকি বলিউডের ‘বাধাই হো’ এর গল্প টুকে দেওয়া হচ্ছে। বুড়ো বয়সে লক্ষ্মী কাকিমা আর দেবু কাকুর ভীমরতি মোটেও সহ্য হচ্ছিল না দর্শকদের। দর্শকদের আপত্তির আরও বড় কারণ ছিল লক্ষ্মী কাকিমার বড় বৌমাও এই সময় প্রেগন্যান্ট। শাশুড়ি বৌমার একসাথে প্রেগনেন্ট হওয়াটা মোটেও এই যুগে মেনে নেওয়া যায় না বলে দাবি করছিলেন দর্শকদের একাংশ।

এদিকে সোশ্যাল মিডিয়াতে অবিরাম কটাক্ষের সম্মুখীন হয়েই চলেছিল সিরিয়ালটি। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছে যায় যে দর্শকদের একাংশ সিরিয়ালটিকে বয়কট করার হুমকিও দিচ্ছিলেন। শুরু থেকে কিন্তু সিরিয়ালটি বেশ ভালই জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এই মুহূর্তে জি বাংলার স্লট লিডার ধারাবাহিক এটি। সামনেই আসছে স্টার জলসার নতুন সিরিয়াল পঞ্চমী, কাজেই এই মুহূর্তে দর্শক হারানোর আশঙ্কা রয়েই যাচ্ছে।

তবে না, এই মুহূর্তে দর্শকদের রুষ্ট করার কোনও পরিকল্পনা নেই সিরিয়াল নির্মাতাদের। তাই তড়িঘড়ি গল্পের কিছু পরিবর্তন এসেছে। নাতি-নাতনি আসার সময়ে কিনা ঠাকুমা নিজেই প্রেগন্যান্ট হয়ে যাচ্ছে? প্রেগনেন্সির আশঙ্কায় বাড়ি ছাড়ারও পরিকল্পনা করে নিয়েছিলেন লক্ষ্মী কাকিমা। দর্শকরা বলাবলি করছিলেন টিআরপি বাড়ানোর জন্য চরম নোংরামি দেখানো হচ্ছে সিরিয়ালটিতে।

অবশেষে সব রহস্য সমাধান হল আজ। লক্ষ্মী কাকিমা আসলে প্রেগন্যান্ট নন। হাসপাতালে নাকি তার রিপোর্ট বদলে গিয়েছিল। বাড়িতে অবিরাম বমি, মাথা ঘোরা, খিদে মন্দা ভাব দেখে লক্ষ্মী কাকিমাকে নিয়ে অস্থির হয়ে পড়েছিলেন সকলে। তার উপর আবার ডাক্তার এসে সুখবর আসার সম্ভাবনার কথা জানিয়ে যান। তারপর রিপোর্ট হাতে নিয়ে মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়ে লক্ষ্মী কাকিমার, কারণ সেখানে লেখা ছিল তিনি প্রেগন্যান্ট।

এদিকে দর্শকরা কিন্তু গল্পের নতুন মোড়ে মোটেও খুশি হলেন না। কারণ তাদের দাবি বয়কটের চাপের মুখে পড়েই নাকি বাধ্য হয়ে গল্প বদলাতে হয়েছে নির্মাতাদের। দর্শকরা প্রতিবাদ না জানালে এই ট্র্যাকের উপর ভর করেই এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হত গল্প এবং এই বয়সে লক্ষ্মী কাকিমার আরেকটি সন্তানকেও দেখানো হত! তবে যাই হোক না কেন, লক্ষ্মী কাকিমা যে প্রেগন্যান্ট নন, সেটা প্রমাণ হয়েই গেল।