মালাবদল থেকে সাতপাক, রইলো ভিকি ও ক্যাটরিনার বিয়ের ফটো অ্যালবাম

Riya Chatterjee

Published on:

৯ই ডিসেম্বরের সন্ধ্যে, সূর্য অস্ত গিয়ে যখন চারিদিকে নেমে আসছে আঁধার ঠিক তখনই রাজস্থানের সাওয়াই মাধোপুরের সিক্স সেন্স ফোর্ট বারওয়ারা সেজে উঠলো আলোর রোশনাইয়ে। দুর্গের বারান্দায় এসে দাঁড়ালেন ভিকি কৌশল (Viki Kaushal) এবং ক্যাটরিনা কাইফ (Katrina Kaif)। নিচে তখন নবদম্পতির জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন আমন্ত্রিত অতিথি-আত্মীয়রা। অবশেষে প্রতীক্ষার হলো অবসান।

ভিকি কৌশল এবং ক্যাটরিনা কাইফের বিয়েতে প্রথম থেকেই চূড়ান্ত মাত্রার গোপনীয়তা রক্ষার চেষ্টা চলেছে। তবে বিয়ের মুহূর্তের ছবি শেষমেষ ধরা পড়লো সোশ্যাল মিডিয়াতে। লাল লেহেঙ্গা, গলায় ফুলের মালা, সাবেকি গয়না আর মাথায় জড়োয়ার সাজে রানীর মতোই সেজেছেন নববধূ ক্যাটরিনা। কাঁচ বসানো ও সর্বাঙ্গে ফুল দিয়ে সাজানো পালকি চড়ে বিবাহ মন্ডপে উপস্থিত হলেন ক্যাটরিনা।

ক্যাটরিনার জন্য সব্যসাচী মুখোপাধ্যায়ের (Sabyasachi Mukherjee) নকশা করা লাল ব্রাইডাল লেহেঙ্গাটি মটকা সিল্কের উপর বানানো। লেহেঙ্গার পারে সূক্ষ্ম এমব্রয়ডারি করা জারদৌসি মখমলের কাজ, মাথার ওড়নাটি তৈরি হয়েছে সোনার পাত দিয়ে। সব্যসাচী মুখোপাধ্যায়ের নকশা করা ২২ ক্যারেট হীরের গহনা ক্যাটরিনাকে আরও মোহময়ী করে তুলেছে।

সব্যসাচী ডিজাইনেরই সোনার বোতাম দেওয়া আইভরি সিল্কের অফ হোয়াইট সাদা রংয়ের শেরওয়ানি, কাঁধে জর্জেটের শাল ও মাথায় পাগড়ী বেঁধে সাদা ঘোড়ায় চেপে মণ্ডপে এলেন ভিকি কৌশল। ভিকির গলায় ছিল সব্যসাচীর ডিজাইন করা ১৮ ক্যারেটের হিরের নেকলেস যার মধ্যে কোয়ার্টজ, ট্যুরমালাইনের মত দামী রত্নও রয়েছে। শিশমহলের ভিতরে হলুদ, কমলা, গোলাপি পর্দা দিয়ে ঘেরা রংবাহারি মন্ডপে সাত পাকে বাঁধা পড়লেন তারা। মালাবদল থেকে শুরু করে একে অপরের হাত ধরে সাত পাকে ঘোরা, ছবি ভাইরাল হলো সমাজ মাধ্যমে।

আমন্ত্রিত অতিথিদের সুবিধার্থে ত্রুটি রাখা হয়নি কোনও। মন্ডপের চারদিকে তাঁবু খাটিয়ে দেওয়া হয়েছিল অতিথিদের জন্য। সঙ্গে রাখা হয়েছিল জমজমাটি ভুরিভোজের আয়োজন। স্টার্টার থেকে শুরু করে মেন কোর্স, বিশেষত ৮০ কেজি ওজনের ১০ ধরনের মিষ্টিই রাখা হয়েছিল অতিথিদের জন্য। বিয়ের সেলিব্রেশনে ৪ লক্ষ টাকার কেকও কাটেন নবদম্পতি।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Rohan (@rohankbohara)

মেওয়া কচুরি, গোদ পাঁক, ডাল বরফি, গুজরাটি বাখলয়া, কাজু পান, চকো বাইটের মতো একাধিক মিষ্টি তো ছিলই। ১০০ টি করে শিঙারা এবং ধোকলাও আনা হয়েছিল। কাবাব, মাছের থালি থেকে শুরু করে রাজস্থানী ডাল বাটি চুরমা, ১৫ রকমের ডাল, ৫ রকমের বিরিয়ানি, রাজস্থানী লাল মাস, কমলালেবুর রাবড়ি আর বিদেশের নানা রকম ফল-সবজিও অতিথিদের পাতে পড়েছে।