অভিনয় করতে গিয়ে বাস্তবেই সঙ্গম করেছিলেন রেখা-ওম পুরী, ভাঙতে বসেছিল চেয়ার

অশ্লীলতার সমস্ত সীমা ছাড়িয়ে ক্যামেরার সামনেই সঙ্গম, রেখা-ওমপুরীর কান্ডে ভাঙতে বসেছিল চেয়ার

একটা সময় ছিল যখন বলিউডে (Bollywood) সাহসী দৃশ্য বিশেষত সঙ্গম দৃশ্যে অভিনয় করার জন্য চট করে ‘হ্যাঁ’ বলতেন না প্রথম সারির অভিনেত্রীরা। সঙ্গমদৃশ্য সম্বলিত ছবিগুলোকে সাধারণত বি গ্রেড ক্যাটাগরির মধ্যে ফেলা হত। এই দৃশ্যে যারা অভিনয় করতেন তাদের নামের পাশে বি-গ্রেড তারকার তকমা সেঁটে যেত, যা নায়িকাদের ইমেজের পক্ষে ক্ষতিকর ছিল।

তবে বলিউড অভিনেত্রী রেখা (Rekha) ছিলেন এমন সাহসী যিনি প্রথম সারির অভিনেত্রী হয়েও এরকমই এক ছবির যৌন দৃশ্যের জন্য ‘হ্যাঁ’ বলেন। সময়টা ছিল ১৯৯৭। সেই বছর পরিচালক বাসু ভট্টাচার্য ‘আস্থা : দ্য প্রিজন অফ স্প্রিং’ নামের একটি অন্য ধাঁচের ছবি বানান। এই ছবি ছিল যৌন দৃশ্যে ঠাসা।

ছবিটি বক্স অফিসে ব্যবসা করতে পারেনি ঠিকই তবে রেখা এবং ওম পুরীর (Om Puri) যৌন দৃশ্য নিয়ে আজও চর্চা হয়। রেখা এবং ওম পুরী শুধু এই ছবিতে যৌন দৃশ্যে অভিনয়ই করেননি, তারা নাকি রীতিমত ক্যামেরার সামনে সঙ্গমে লিপ্ত হয়েছিলেন। বলিউডের অভ্যন্তরে এই ছবিটিকে নিয়ে এমনই গুঞ্জন রয়েছে।

দৃশ্যটিকে ক্যামেরায় বাস্তবায়িত করে তুলতে রেখা এবং ওম পুরী নাকি লজ্জার চরম সীমা অতিক্রম করেন।ছবিতে একটি চেয়ারে দুজনের ঘনিষ্ঠ হওয়ার দৃশ্য ছিল। এই দৃশ্যেই নাকি বাস্তবে সঙ্গমে লিপ্ত হয়েছিলেন দুই তারকা। পরিস্থিতি এতটাই হাতের বাইরে বেরিয়ে যায় যে দুজনের ওজনের ভারে প্রায় ভাঙতে বসেছিল চেয়ার!

এই ছবিটি বক্স অফিসে সুপার ফ্লপ হয়। কিন্তু মাত্রাতিরিক্ত সঙ্গম দৃশ্য থাকার কারণে ছবিটি নিয়ে আজও চর্চা চলে। বিশেষত রেখা এবং ওম পুরীর অনস্ক্রিন যৌনতা কার্যত বলিউডের সব অশ্লীলতার সীমা ছাড়িয়ে গিয়েছিল।