সবাইকে ফাঁকি দিয়ে চলে গেলেন মনু মুখোপাধ্যায়, মুক্তি পাচ্ছে তার শেষ ছবি

মুক্তি পাচ্ছে মনু মুখোপাধ্যায় অভিনীত শেষ ছবি, আবেগাপ্লুত পরিচালক

বাংলা সিনেমা (Bengali Cinema) জগতের কিংবদন্তি অভিনেতাদের একের পর এক হারিয়ে ফেলছে টলিউড (Tollywood)। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, স্বাতীলেখা থেকে শুরু করে মনু মুখোপাধ্যায়, স্বর্ণযুগের একের পর এক তারকা খসে পড়ছে টলিউডের আকাশ থেকে। সৌমিত্র চ্যাটার্জীর মৃত্যুর পর ২০২০ সালে প্রয়াত হন অভিনেতা মনু মুখার্জি (Monu Mukherjee)। ২ বছর পর একবার ফের সিনেপর্দায় দেখা যাবে তাকে। তার অভিনীত শেষ ছবি ‘ভটভটি’ (Votvoti) মুক্তি পেতে চলেছে খুব তাড়াতাড়ি।

পরিচালক তথাগত মুখার্জি (Tathagata Chowdhury) ছবি মুক্তির আগে শুটিং সেটের সদস্যদের নিয়ে একটি ছবি শেয়ার করে নিয়েছেন সোশ্যাল মিডিয়াতে। ২০১৯ সালে এই ছবির শুটিং শেষ হয়েছিল। ছবির শুটিং চলাকালীন মনু মুখার্জির বয়স ছিল প্রায় ৯০ বছর। এই বয়সেও তিনি দারুণ প্রাণোচ্ছল ছিলেন শুটিং ফ্লোরে। সেই স্মৃতিচারণা করতে গিয়ে আবেগে ভাসলেন পরিচালক। মনু মুখার্জি অভিনীত ‘ভটভটি’ ছবিটি এখন মুক্তির অপেক্ষায় দিন গুনছে। শেষবারের মতো পছন্দের অভিনেতাকে আরও একবার সিনেপর্দায় দেখার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে আছেন দর্শকরাও।

৯০ বছর বয়সেও অভিনয় প্রতি এত আগ্রহ, তারুণ্যে ভরপুর ছিল তার প্রাণ! জীবনের একেবারে শেষ অধ্যায়ে এসেও মনু মুখার্জির এই স্পিরিট সকলের মন ছুঁয়ে যায়। পরিচালক জানিয়েছেন, ছবির রিহার্সাল চলেছিল তিন মাস ধরে। একজন দক্ষ এবং বর্ষীয়ান অভিনেতা হওয়া সত্ত্বেও ছবি সংক্রান্ত যাবতীয় খুঁটিনাটি বিষয় পরিচালকের থেকে জেনে-বুঝে নিয়েছিলেন তিনি।

তথাগতর আক্ষেপ, এমন একজন প্রতিভাবান অভিনেতাকে শেষ অ্যাকশন তাকেই বলতে হয়েছে। তিনি মনে করেন বাংলা ছবি দুনিয়াতে কিছু ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা রসায়নজনিত কারণে মনু মুখোপাধ্যায় নিজেকে সঠিকভাবে আত্মপ্রকাশ করে উঠতে পারেননি। তবে তিনি দর্শকমহলে নিজেকে প্রকৃত অভিনেতা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছেন। এর জন্য তার বিনয়ী স্বভাবকে কুর্নিশ জানিয়েছেন পরিচালক।

প্রতিমা বিসর্জনের শোভাযাত্রায় মনু মুখার্জি উচ্ছ্বসিত হয়ে নেচেছিলেন! বাড়িতে ধূমপান করতে পারতেন না বলে তথাগতর থেকে সিগারেট চাইতেন, তবে পরিচালক তাকে কড়া অভিভাবকের মতই শাসন করতেন! ছবি মুক্তির দোরগোড়ায় সেই মানুষটার কথা আজ বার বার মনে পড়ছে পরিচালকের। নিজের শেষ ছবি নিজের চোখে দেখে যেতে পারলেন না মনু মুখার্জি।