ভাল মানুষদের সঙ্গেই কেন সবসময় খারাপ হয়? জানুন আসল কারণ

ভাল মানুষরাই কেন সবসময় বেশি কষ্ট পায়? জানুন কী বলেছেন শ্রীকৃষ্ণ

Avatar

Published on:

Bhagavad Gita Sri Krishna Updesh : আমরা সমাজে দুই ধরনের মানুষ দেখতে পাই। সমাজে কিছু মানুষ রয়েছেন যারা খারাপ কাজ করতে এতোটুকু দ্বিধাবোধ করেন না। এমনকি পাপ করতে ভয়ও হয় না তাদের। আর অপরদিকে কিছু মানুষ রয়েছেন যারা খারাপ কাজ করা তো দূরের কথা, এমনটা ভাবতে গেলেও চিন্তায় পড়ে যান। কিন্তু জানেন কি ভালো মানুষদের সঙ্গেই সবসময় খারাপ কেনো হয়। আর এর উত্তর দিয়েছিলেন স্বয়ং কৃষ্ণ (Sri Krishna)। যার উল্লেখ আছে ভগবত গীতা (Bhagavad Gita) -তে।

শ্রীকৃষ্ণ গীতার মাধ্যমে জীবনের অনেক উপদেশ দিয়ে গিয়েছেন। শ্রীকৃষ্ণ হাজার হাজার বছর আগে এই উপদেশগুলি দিলেও সেগুলি আজও আমাদের জীবনে সমান মাহাত্ম্যপূর্ণ। মহাভারতে কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধ শুরুর ঠিক আগে নিজের আত্মীয়স্বজনের উপর অস্ত্রচালনা করতে অস্বীকার করে অস্ত্র পরিত্যাগ করেন অর্জুন। তখন অর্জুনকে যে উপদেশ দিয়েছিলেন শ্রীকৃষ্ণ, তাই গীতার বাণী নামে পরিচিত।

LORD KRISHNA

সেরকমই একবার অর্জুন শ্রীকৃষ্ণকে জিজ্ঞেস করেন যে ভালো মানুষদের সঙ্গেই সব সময় কেন খারাপ ঘটনা ঘটে? যিনি ধর্ম মেনে চলেন, কখনোও কারোর খারাপ চান না, তাকেই কেন কঠিন পরিস্থিতির মুখে পড়তে হয় তা জানতে চান অর্জুন। এর উত্তরে শ্রীকৃষ্ণ অর্জুনকে বলেন- পার্থ আমি তোমাকে একটি গল্প বলব, তা শুনলে তুমি বুঝবে পারবে যে প্রত্যেক জীবকেই তার কর্মের ফল পেতে হয়। কারণ প্রকৃতি প্রত্যেককে তার নিজের পথ বেছে নেওয়ার সুযোগ দেয়। এখন এটি মানুষের ইচ্ছার উপর নির্ভর করে যে তিনি ধর্মের পথ বাছবেন না অধর্মের।

এরপর শ্রী কৃষ্ণ অর্জুনকে গল্প বলা শুরু করেন।এক শহরে দু-জন মানুষ থাকতেন। তাদের একজন অত্যন্ত সাধু প্রকৃতির কিন্তু অন্যজন একেবারেই দুর্বত্ত। একদিন প্রবল বৃষ্টি হচ্ছিল এবং মন্দিরে কেউ ছিল না। সেই সময় দ্বিতীয় ব্যক্তি মন্দিরে গিয়ে সমস্ত টাকা-পয়সা চুরি করে পালায়। কিছুক্ষণ পরে ভালো মানুষটি মন্দিরে পুজো করতে গেলে দ্বিতীয় ব্যক্তিও সেখানে যায় এবং প্রথমজনের ঘাড়ে চুরির দায় চাপায়।

LORD KRISHNA

সবাই তখন অকারণে ভালো মানুষটিকে প্রচুর অপমান করে। মনের দুঃখে মন্দির থেকে বাইরে বেরোতেই একটা গাড়ি এসে তাকে ধাক্কা মেরে চলে যায়। তিনি গুরুতর আহত হলেও প্রাণে বেঁচে যান। এদিকে চুরির সব টাকা হাতিয়ে নিয়ে মনের আনন্দে দিন কাটায় অসাধু ব্যক্তি। কয়েক বছর পরে দুজনেরই মৃত্যু হয় এবং তারা দুজনেই যমরাজের কাছে যান।

সত্‍ পথে থেকেও কেন তাকে সারা জীবন কষ্টে থাকতে হয়েছে, তা জানতে চান প্রথম ব্যক্তি। যমরাজ তাকে বলেন যেদিন তার দুর্ঘটনা ঘটেছিল, সেদিনই তার মরে যাওয়ার কথা ছিল। তার ভালো কাজের জন্যই তাঁর আয়ু বাড়িয়ে দেন ভগবান। অন্যদিকে অসাধু ব্যক্তি রাজার মতো থাকতে পারত, কিন্তু তার খারাপ কাজের কারণেই সামান্য কিছু অর্থ নিয়েই তাকে খুশি থাকতে হয়।

LORD KRISHNA

আরও পড়ুন : বিষ্ণুর কৃপায় মলমাসে ভাগ্য থাকবে তুঙ্গে, সৌভাগ্যের শিখরে থাকবেন এই ৪ রাশি

গল্প শেষ হলে শ্রীকৃষ্ণ অর্জুনকে জিজ্ঞাসা করে পার্থ তুমি নিশ্চয় তোমার প্রশ্নের উত্তর পেয়েছ? তাই ঈশ্বর যে তোমার ভালো কাজকে উপেক্ষা করছেন এটা সত্য নয়। আসলে ঈশ্বরের আশীর্বাদ কোন রূপ ধরে আমাদের ওপর বর্ষিত হবে, তা অনেক সময়ই বোঝা যায় না। কিন্তু খারাপ ও ভালো কাজের ফল জীবনে অবশ্যই পাওয়া যায় বলে জানিয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন : শ্রাবণ মাসে কীভাবে পুজো করলে খুশি হন মহাদেব? করবেন না এই ভুলগুলো