টিআরপি তুলতে শিশুর উপর নির্যাতন! আইনি বিপাকে জটিলতার মুখে জি বাংলার এই সিরিয়াল

টিআরপির লোভে শিশু নির্যাতন! হিংসাত্মক কার্যকলাপে প্রশ্রয় দিয়ে বিতর্কের মুখে জি বাংলার এই সিরিয়াল

Audiences Are Accusing Jagadhatri For Promoting Violence On Child

বর্তমানে জি বাংলার (Zee Bangla) অন্যতম সেরা একটি ধারাবাহিক হল ‘জগদ্ধাত্রী’ (Jagadhatri)। ‘মিঠাই’ ধারাবাহিকের পর জি বাংলার এই সিরিয়ালটি এখন বেঙ্গল টপারের আসন দখল করে বসেছে। সাধারণ শাশুড়ি-বৌমার চিরাচরিত কুটকাচালি থেকে বেরিয়ে এই সিরিয়ালটির গল্প কিছুটা আলাদা। কাজেই, দর্শকদের জগদ্ধাত্রী দেখতে বেশ ভালই লাগছে তা বলা বাহুল্য।

কিন্তু সম্প্রতি জি বাংলার এই সিরিয়ালের বিরুদ্ধে উঠলে একটা মারাত্মক অভিযোগ। এই সিরিয়ালটিতে নাকি টিআরপি তোলার জন্য শিশুদের উপর নির্যাতন দেখানো হচ্ছে। দর্শকরা এই অভিযোগ তুলেছেন সোশ্যাল মিডিয়াতে। এখন গল্প এগোচ্ছে ছোট্ট মেয়ে কাঁকনকে নিয়ে। মায়ের সঙ্গে শত্রুতার জেরে গুলিবিদ্ধ হয়ে কাঁকন এখন হাসপাতালে ভর্তি। জীবন-মৃত্যু সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে মেয়েটা।

ছোট্ট কাঁকন কথা বলতে পারে না। তার মতো ভাল মেয়ে স্বাভাবিকভাবেই দর্শকের থেকে অনেক ভালবাসা এবং সহানুভূতি পেয়েছে। বড়দের রেষারেষির মধ্যে পড়ে অনেক কষ্ট পাচ্ছে মেয়েটা। হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়তে লড়তেও রেহাই দেঝয়া হচ্ছে না ছোট্ট মেয়েটিকে। হাসপাতালে পৌঁছে তাকে মেরে ফেলার চেষ্টা করা হয়।

সম্প্রতি ধারাবাহিকে দেখানো হয়েছে কাঁকনের মা কৌশিকী মুখার্জীকে মারার জন্য চক্রান্ত করে ফাঁদ পেতে রাখা হয়েছিল। কিন্তু গুলি এসে লেগে যায় কাঁকনের শরীরে। ধারাবাহিকের সাম্প্রতিক পর্বে দেখানো হয়েছে কাঁকনকে মারার জন্য হাসপাতালে একজন বন্দুক তাক করে রয়েছে। একটা ছোট্ট শিশুর উপর দিয়ে এত ঝড় বয়ে যেতে দেখে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন দর্শকরা।

কাঁকনকে এই অবস্থাতে হাসপাতালে পড়ে থাকতে দেখতে মোটেই পছন্দ করছেন না দর্শকদের একাংশ। বরং তারা বলছেন সিরিয়ালটিতে ক্রমশ হিংসাত্মক কার্যকলাপকেই বেশি প্রশ্রয় দেওয়া হচ্ছে। শুরু থেকেই সিরিয়ালে নানাভাবে ভায়োলেন্স দেখানো হয়েছে। এখন তো ছোট্ট মেয়েটাকেও রেহাই দেওয়া হচ্ছে না। এত বেশি খুনোখুনি দেখতে ভাল লাগছে না দর্শকদের।

সোশ্যাল মিডিয়াতে কমেন্ট করে দর্শকরা তাদের প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। কেউ লিখছেন, সিরিয়ালটিতে ক্রমাগত ভায়োলেন্স দেখানো হচ্ছে। কারও মন্তব্য, সিরিয়ালে যেভাবে চাইল্ড ভায়োলেন্স দেখানো হচ্ছে তাতে কেউ জনস্বার্থে মামলা দায়ের করলে প্রোডাকশন হাউস আর চ্যানেল বিপদে পড়ে যাবে। তাদের মতে খুন করা আর খুনের চেষ্টা করা, দুটোই সমান অপরাধ।