শুধু পরকীয়া নয়, ভাইবোনের বিয়ে দেখিয়ে নোংরামির সীমা ছাড়ালেন লীনা গাঙ্গুলী, উঠলো ধারাবাহিক বন্ধের ডাক

নোংরামির সীমা ছাড়িয়ে যাচ্ছে ধুলোকণা, লীনা গাঙ্গুলীকে ধুয়ে দিল দর্শকরা

বাংলা ধারাবাহিকে (Bengali Mega Serial) যেই না একটু বিয়ের তোড়জোড় শুরু হয়, অমনি তরতর করে বাড়তে থাকে টিআরপি। এই এই ট্র্যাকের উপর ভর করেই স্টার জলসার (Star Jalsha) ‘ধূলোকণা’ (Dhulokona) ধারাবাহিকে বারবার বিয়ের গল্প লিখছেন লীনা গাঙ্গুলী (Leena Ganguly)। এমনটাই দাবি সমালোচকদের। তবে লেখিকা শুধু লালন-ফুলঝুরির বিয়ে দিয়েই ক্ষান্ত থাকলেন না, এবার এই ধারাবাহিকে ভাই-বোনের বিয়েও দেখানো হল। যা দেখে কার্যত চক্ষু চড়কগাছ দর্শকদের।

কখনও লালনের বিয়ে, কখনও ফুলঝুরির বিয়ে, কখনও আবার লালন-ফুলঝুরির বিয়ে, নয় নয় করে এ পর্যন্ত ৫-৬ বার বিয়ের ট্র্যাক দেখানো হয়েছে সিরিয়ালে। তবে সিরিয়ালে যতবার বিয়ে নিয়ে পর্ব এসেছে ততবার টিআরপিতে সেরা আসন দখল করেছে ধুলোকণা। এখন যেমন লালনের সঙ্গে তিতিরের বিয়ে দেখানো হচ্ছে। এই নিয়ে ধারাবাহিকে চলছে টান টান উত্তেজনা।

LALON FULJHURI DHULOKONA 1

গল্প অনুসারে লালন তার স্মৃতিশক্তি হারিয়েছে। ফুলঝুরিকে সে চিনতে পারছে না। ডাক্তারবাবুর মেয়ে তিতিরের সঙ্গে তাই বিয়ের পিঁড়িতে বসবে সে। এদিকে ডাক্তারবাবুর স্ত্রী আবার তাকে নিজের মৃত ছেলের মত দেখেন। লালনকে তারা তাদের হারিয়ে যাওয়া ছেলের জায়গা দিয়েছেন। তাই লালনের সঙ্গে যদি তিতিরের বিয়ে হয় তাহলে ধারাবাহিকে ভাইবোন হবে স্বামী-স্ত্রী!

এসব দেখে দর্শকরা দারুণ চটেছেন। একে তো বারবার বিয়ে দেখতে দেখতে তারা বিরক্ত হয়ে পড়ছেন। তাই কেউ প্রশ্ন করছেন, “আর কতবার বিয়ে হবে?” আবার কেউ তিতিরের সঙ্গে লালনের বিয়ের ঘোর বিরোধিতা করে লিখছেন, “এটা আবার কী সিরিয়াল! গোগল যদি ওর ছেলে হয় আর তিতির ওর মেয়ে, তাহলে ভাইবোনের বিয়ে? যা তা সিরিয়াল।”

কেউ লিখলেন, “নিজের মায়ের পেটের ভাইবোনের বিয়ে হতে এই প্রথমবার দেখলাম লেখিকাকে কঠোর ভাষায় ধিক্কার জানাই।” এদিকে লালন এরই মধ্যে প্রায় ৩-৪ বার বিয়ের আসনে বসে পড়লো। নায়কের বারবার বিয়ে হওয়া নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন নেটিজেনরা। কেউ লিখছেন, “লালনের সঙ্গে তিতিরের বিয়ে হওয়া একদম উচিত নয়। এসব কী দেখাচ্ছে? একদিকে ওর মা নিজের ছেলেকে দেখছিল, এবার সেই ছেলে জামাই হবে!” সকলে মিলে লেখিকা লীনা গাঙ্গুলীর লেখনীর সমালোচনা করছেন।

উল্লেখ্য এই বিয়েটা অবশ্য লালনের স্মৃতি ফেরানোর তাগিদে দেওয়া হচ্ছে। অন্ততপক্ষে ডাক্তারবাবুর তেমনটাই মত। তার আশা এই বিবাহ আসরে মিরাকেল ঘটে যাবে। অন্যদিকে ফুলঝুড়ির বাড়ির সবাই তাকে বেনারসি শাড়ি পরিয়ে কনের সাজে সাজিয়ে নিয়ে এসেছে যাতে লালন তাকে দেখলেই স্মৃতি ফিরে পায়। এদিকে তিতির আবার চায় না লালনের স্মৃতি ফিরুক। শেষমেষ লালন কী ফিরে পাবে তার স্মৃতি? নাকি তিতিরের সঙ্গেই তার বিয়ে হয়ে যাবে? উত্তর জানা যাবে আগামী পর্বে।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Star Jalsha (@starjalsha)