‘বাড়িতে যাদের জন্য দুমুঠো খেতে পান, তাদের সম্মান দিন’, ট্রোল করতেই মোক্ষম জবাব সুদীপ্তার

সোশ্যাল মিডিয়াতে অপমান, সুদীপ্তার পাল্টা জবাবে পালাবার পথ পেল না ট্রোলার

সদ্য কালার্স বাংলায় (Colours Bangla) শুরু হয়েছে নতুন একটি রান্নার শো ‘রান্নাঘরের গপ্পো’ (Rannaghorer Goppo)। এই কুকিং শোয়ের হাত ধরে দীর্ঘ প্রায় বেশ কয়েক বছর পর আবারও ছোট পর্দায় ফিরে এসেছেন সুদীপ্তা চক্রবর্তী (Sudipta Chakraborty)। টলিউডের নামী অভিনেত্রী তিনি। এখন তাকে দেখা যাচ্ছে সঞ্চালিকার ভূমিকায়। শো শুরু হতেই একাধিক পোস্ট তিনি শেয়ার করেছিলেন সোশ্যাল মিডিয়াতে। সেখানে তাকে নিয়ে ব্যঙ্গ করতেই মোক্ষম জবাব দিলেন তিনি।

সুদীপ্তা চক্রবর্তী তার ‘রান্নাঘরের গপ্পো’ নামের নতুন কুকিং শোতে বাঙালির হেঁশেল থেকে হারিয়ে যাওয়া রান্নার পসরা নিয়ে হাজির হয়েছেন। গত মঙ্গলবার তিনি সেখান থেকেই একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়াতে পোস্ট করেন। অনুরাগীদের কাছে তিনি জানতে চান এদিনের পর্ব তাদের কেমন লেগেছে? তাদের মধ্যে সকলেই তার প্রশংসা করলেও কেউ কেউ আবার বিদ্রুপ করতে শুরু করেন।

সুদীপ্তাকে বিদ্রুপ করে একজন লেখেন, “ঠিক কাজই নিয়েছেন। ‘বাড়িওয়ালি’ সিনেমায় তো রান্নার কাজই করতেন। ওখান থেকেই হাতেখড়ি।’’ এই মন্তব্য দেখে অবশ্য চুপ করে রইলেন না সুদীপ্তা। ওই নেটিজেনকে কড়া জবাবও দিয়েছেন তিনি। তিনি লেখেন, “একটু ভুল হয়ে গেল যে…! বাড়িওয়ালি সিনেমায় রান্নার কাজ করিনি, অভিনয় করেছি একটি চরিত্রে, যে অভিনয়ের জন্য সেই বছর সারা ভারতবর্ষের সমস্ত ছবির অভিনেত্রীদের মধ্যে আমাকে সেরা নির্বাচন করা হয় এবং পুরস্কার হাতে তুলে দেন ভারতবর্ষের তদানীন্তন রাষ্ট্রপতি।”

সুদীপ্তা আরও লিখেছেন, “আমার অভিনয়ের হাতেখড়ি অনেক আগে। সেই নিয়ে বিস্তারে আর গেলাম না। আর এই শো এ আমি রান্না করছি না, শো সঞ্চালনা করছি মাত্র। এবার বলি রান্না করা অত্যন্ত কঠিন একটা কাজ আর ভাল রান্না করা আরও কঠিন। তাই হাসতে হাসতে চোখ দিয়ে জল বের করে ফেলে এই কঠিন কাজটাকে সামান্য করে দিতে কোনও অশিক্ষিত লোকই পারবে না। আপনিও না।”

সবশেষে তিনি লিখেছেন, “আপনি রান্না করতে পারেন কি না জানা নেই। তবে লেখা পড়ে মনে হচ্ছে পারেন না। পারলে রান্নাকে সম্মানের চোখে দেখতেন। বাড়িতে যে বা যারা রান্না করে দেন বলে দুমুঠো খেতে পান, তাদের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হন। দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠুন।” সুদীপার এই মন্তব্যে সাধুবাদ জানাচ্ছেন বাকিরা। ওই ব্যক্তিকে তুলোধোনা করেছেন বাকিরাও। শেষমেষ সুদীপ্তার কাছে ক্ষমা চাইতে বাধ্যও হয়েছেন তিনি।

সুদীপ্তাকে অপমান করতে গিয়ে শেষমেষ ওই ব্যক্তির অবস্থা ভীষণ করুণ হয়ে যায়। তাই সকলের প্রতি অনুরোধ করে সুদীপ্তা লেখেন, ‘‘আপনাদের অনুরোধ করি, এবার ওঁকে ছেড়ে দিন। আগুপিছু না ভেবে একটা আলটপকা মন্তব্য করে ফেলেছেন, পরে নিজের ভুল বুঝতে পেরে ক্ষমাও চেয়েছেন। এবার বোধ হয় এই ব্যাপার টায় ইতি টানলে ভালো হয়। আপনাদের সবার প্রতি আমি কৃতজ্ঞ।’’