শুধু জল বেচেই আম্বানিকে পেছনে ফেলেছে এই ১০ কোম্পানি, আয় শুনলে ঘুরবে মাথা

এক বোতলের দামেই আস্ত ফ্ল্যাট কিনে নেওয়া যায়, রইল বিশ্বের সবথেকে দামী জলে ব্র্যান্ডের তালিকা

জলই জীবন, জল ছাড়া এক মুহূর্তও বাঁচতে পারবে না কোনও প্রাণী। আমাদের দেশে এক লিটার জল কিনতে ২০-৩০ টাকা খরচ পড়ে। সারাদিনের হিসেবে সর্বাধিক ১০০ টাকা হয়তো বা জলের জন্য খরচ হবে। কিন্তু ভাবুন তো যদি আপনাকে ৭৫০ মিলিলিটার জল ১৫ হাজার টাকা কিংবা ৪ লক্ষ টাকা দিয়ে কিনতে হয় তাহলে আপনি কি তা কিনতে পারবেন?

জলের দাম লক্ষাধিক থেকে কোটি টাকা হতে পারে সাধারণ মানুষ এমনটা কল্পনাও করতে পারেন না। তবে সত্যিই এই পৃথিবীতে এমন কিছু ব্র্যান্ডের জল রয়েছে যার দাম আকাশ ছোঁয়া। আজ এই প্রতিবেদনে রইল সোনার থেকেও দামী তেমনই কিছু দামী জলের জলের ব্রান্ডের নাম (Most expensive water and their price) এবং তেমন জলের বিশেষত্ব সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য।

ফাইন (Fine) : এই জল জাপানে পাওয়া যায়। প্রাকৃতিকভাবে জলকে পরিশ্রুত করা হয় জাপানে। জাপানের মাউন্ট ফুজি আগ্নেয় পাথরে পরিশ্রুত করার পর তা বাজারে বিক্রি করা হয় চড়া দামে। এর মধ্যে থাকে ভরপুর মাত্রায় খনিজ পদার্থ ও এটি সম্পূর্ণভাবে দূষণমুক্ত। ২০০৫ সালে এই জলের ব্যবসা শুরু হয়েছিল। জলের মধ্যে একটা সূক্ষ্ম গন্ধ থাকে। ৭৫০ মিলিটার জলের বোতল কিনতে ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ৩৫০ টাকা খরচ হবে।

তাসমানিয়ান রেন (Tasmanian Rain) : নাম শুনেই বুঝতে পারছেন অস্ট্রেলিয়ার তাসমানিয়া দ্বীপে পাওয়া যায় এই জল। বৃষ্টির জল বোতলবন্দি করে বাজারে বিক্রি করা হয় তাসমানিয়াতে। অ্যান্টার্কটিকা হয়ে সমুদ্রের উপর দিয়ে ১৬ হাজার কিলোমিটার অতিক্রম করে বৃষ্টি যখন তাসমানিয়াতে এসে পৌঁছায় তখন মাটিতে পড়ার আগেই জল বোতলবন্দি করা হয়। এর এক বোতল জলের দাম প্রায় ৩৫০ টাকা। ওয়ার্ল্ড মিটিওরোলজিক্যাল অর্গানাইজেশনের একটি সমীক্ষায় জানা যায় তাসমনিয়ার বাতাস পৃথিবীর মধ্যে সবথেকে বিশুদ্ধ।

লকুয়েন আর্টেস মিনারেল ওয়াটার (Lauquen Artes Mineral water) : আর্জেন্টিনার দক্ষিণ প্রান্ত সান কার্লোস বারিলপোসের কাছে গভীর অরণ্য থেকে এই জল তুলে আনা হয়। ভূপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৫০০ মিটার নীচ থেকে জল সংগ্রহ করা হয়। মাটিতে তুলে আনার পর বাজারে যখন বিক্রি করা হয় তখন ৭৫০ মিলিলিটার জলের বোতলের দাম পরে ৪১৫ টাকা।

অ্যাকোয়া ডেকো (Aqua Deco) : ডেকোর অর্থ হল শৈল্পিক। মূলত জলের বোতলের কারুকার্যের জন্যেই এই ব্র্যান্ডের এমন নাম রাখা হয়েছে। বোতলের মধ্যে যে জল থাকে সেটা কানাডার একটি ঝর্ণা থেকে সংগ্রহ করা হয়। এর এক একটি বোতলের দাম ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ৮২৭ টাকা।

টেন থাউজ্যান্ড বিসি (Ten Thousand BC) : কানাডার ব্রিটিশ কলম্বিয়ার হ্যাট মাউন্টেন হিমবাহ থেকে এই জল সংগ্রহ করা হয়। ৭৫০ মিলিলিটার এক বোতল জলের দাম ভারতের মুদ্রায় ৯৭০ টাকা পড়ে।

ভিন (Veen) : এই ব্র্যান্ড দাবি করে এটাই বিশ্বের সবথেকে শুদ্ধ পানীয় জল। অন্য জলের থেকে এই ব্র্যান্ডের জল দ্রুত তেষ্টা মেটায়। ফিনল্যান্ডের টেঙ্গেলিও গ্রামের কাছে ফিনিশ ল্যাপল্যান্ডের একটি ঝর্না থেকে এই জল সংগ্রহ করা হয়। ৭৫০ মিলিলিটার এক বোতল জলের দাম পড়ে প্রায় ১৬০০ টাকা।

ব্লিং এইচটুও (Bling H2O) : এই জল আমেরিকার টেনেসির গ্রেট স্মোকিং মাউন্টেনের ইংলিশ মাউনটেন স্প্রিং থেকে সংগ্রহ করা হয়। তারপর নটি ধাপে জল বিশুদ্ধ করে বোতল বন্দি করা হয়। বোতলের কারুকার্য এবং জলের স্বাদের কারণে বিশ্বের অন্যতম সেরা পানীয় জল হিসেবে খ্যাতি রয়েছে এই জলের। ৭৫০ মিলিলিটার জলের বোতলের দাম ২৮০০ টাকা।

কোনা নিগারি (Kona Nigari) : এই জল পান করলে শক্তি বাড়ে, ওজন কমে এবং ত্বক ভাল থাকে। হাওয়াইয়ের গভীর সমুদ্র থেকে জল সংগ্রহ করে আনা হয়। তারপর বেশ কয়েকটি ধাপে বিশুদ্ধ করার পর বোতলের মধ্যে ভরে বিক্রি করা হয়। এই জাপানি ব্র্যান্ডের এক বোতল জলের দাম ২৮ হাজার টাকা।

ফিলিকো (Fillico) : বোতলের কারুকার্য, জলের স্বাদ এবং বিশুদ্ধতার কারণে সারা বিশ্বে এই ব্র্যান্ডের জলের বেশ নামডাক রয়েছে। জাপানের কোবেতে নুনোবিকি নামের একটি ঝর্ণা থেকে এই জল সংগ্রহ করা হয়। এরমধ্যে সমপরিমাণে সোডিয়াম, পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং ক্যালসিয়াম থাকে। এই ব্র্যান্ডের মধ্যে সবথেকে জনপ্রিয় সিলিকো ব্ল্যাক কুইন। এক বোতল জলের দাম ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ৯০ হাজার টাকা।

অ্যাকোয়া ডি ক্রিস্টালো ট্রিবুটো আ মডিগ্লিয়ানি (Aqua De Cristalo Tributo A Modigliani) : এটা বিশ্বের সবথেকে দামী পানীয় জল। সোনার তৈরি জলের বোতলের মধ্যে যে জল থাকে তার মধ্যে স্বর্ণভস্ম মেশানো থাকে। ফিজি এবং ফ্রান্সের ঝর্ণা থেকে এই জল সংগ্রহ করা হয়। সোনার ছাই মেশানো এক বোতল জলের দাম হল ৩৯ লক্ষ টাকা।