চাইনিজ খাবার বয়কট নিয়ে কি ভাবছে ভারতীয়রা, প্রকাশ্যে এলো সমীক্ষার রিপোর্ট

আমাদের মধ্যে অনেকেই এমন আছেন যারা রেস্টুরেন্টে গেলেই হয় মিক্সড চাউমিন নয়তো চিকেন মাঞ্চুরিয়ান অর্ডার করে থাকেন। এই চাইনিজ খাবার অনেকেই আবার খুব পছন্দ করেন। অনেকের আবার ফেভারিট ডিসই হলো চাইনিজ। চাইনিজ ছাড়া তাদের চলে না। আমাদের মা কাকিমারাও টিফিনের সময় চটজলদি নুডলস বানিয়ে দেন। কখন যেন এই চাইনিজ খাবার গুলো আমাদের ঘরের খাবার হয়ে উঠেছে কেউ টের পাইনি। কিন্তু এখন পরিস্থিতি টা সম্পূর্ণ ভিন্ন‌।

লাদাখের গাল‌ওয়ান উপত্যকায় ভারত চীন সেনা সংঘর্ষ রক্তক্ষয়ী সংগ্রামে পরিণত হয়েছে গত সোমবার। ভারতের ২০জন জ‌ওয়ান এই লড়াইয়ে শহীদ হয়েছেন। এরপরই দেশজুড়ে চিনা পণ্য বয়কটের ডাক উঠেছে। চিনা অ্যাপ, ও চিনা দ্রব্য সামগ্রী বর্জন করার ডাক উঠেছে। কেন্দ্র সরকার চাইছেন সামরিক লড়াইয়ের পাশাপাশি অর্থনৈতিকভাবে ও চীনকে চাপে ফেলতে।

চায়না কে বয়কট করতে দুটি বড় সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কেন্দ্রীয় সরকার। BSNL কে বলেছেন তারা যেন ৫জি পরিকাঠামো নির্মাণের সময় চিনা দ্রব্য সামগ্রী ব্যবহার না করে এবং কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রক চিনা সংস্থাকে দেওয়া একটি বরাত ও ইতিমধ্যে বাতিল করেছেন। কিন্তু চিনা খাবারের ক্ষেত্রে কী সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন দেশবাসী?

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য চিনা খাবার বয়কটের কথা বলে ইতিমধ্যেই ট্রোলড হয়েছেন মন্ত্রী রামদাস অটওয়ালে। চিনা খাবার বর্জনের ক্ষেত্রে দেশবাসীর মধ্যে ঠিক কিরূপ প্রতিক্রিয়া আছে তা জানার জন্য একটি সমীক্ষা করা হয়। সমীক্ষার প্রশ্নই ছিল যে-গোটা ভারত জুড়ে যখন চিনা দ্রব্য বয়কট করার কথা উঠেছে, তখন চাইনিজ খাবার খাওয়ার আগে ও কি আপনি দুবার ভাববেন?

News 18-এর করা এই সমীক্ষার ফলাফলে দেখা যাচ্ছে-অধিকাংশ মানুষই এই ব্যাপারটা নিয়ে দ্বন্দ্বে রয়েছেন তারা বুঝেই উঠতে পারছেন না যে এই পরিস্থিতিতে চাইনিজ খাবার খাওয়া উচিত না উচিত নয়। আবার ৩০.৫৫ শতাংশ মানুষ বলেছেন যে খাবারের সাথে সংঘর্ষের সম্পর্ক কী? ভারত চীন সীমান্ত সংঘর্ষের সাথে খাবার খাওয়ার প্রশ্ন উঠছে কেন?

Source : News 18 Bangla

আবার ২৬.৫০ শতাংশ মানুষ বলেছেন অথেনটিক চাইনিজ খাবার এদেশে ক’জন মানুষই বা খান? ভারতীয়রা যে ‘ইন্ডিয়ান চাইনিজ’ খাবার খান তার একটি আলাদা নামকরণ করা যেতে পারে। আবার ৪২.৯৫ মানুষের বক্তব্য এই মুহূর্তে চাইনিজ খাবার খাওয়া উচিত নয়। এখন চাইনিজ খাবার খাওয়ার প্রসঙ্গে আপনার কী মন্তব্য তা অবশ্যই আমাদের কমেন্ট করে জানান। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন।