বাঙালি ছেলেদের যে কারণে পছন্দ করেন অবাঙালি মেয়েরা

মনুষ্য সম্প্রদায়ের মধ্যে বাঙালি সর্বত্তম। হ্যাঁ, কথাটা সত্যি। তাঁদের খাওয়া-দাওয়া, রসিকতাবোধ, আবেগ অন্য মাত্রার। তাঁদের পরিণতিবোধ, প্যাশন, স্বাধীনতার ভাবনা অনেকের চেয়ে আলাদা। আর তাঁদের রোম্যান্টিসিজম নিয়ে তো পাতার পর পাতা লেখা যায়। যদি আপনি নারী হন আর ডেট-এ যেতে চান, তবে চোখ বন্ধ করে কোনও বাঙালি ছেলে বাছুন। প্রেমের ব্যাপারে বাঙালিদের কোনও তুলনা হয় না।

বাঙালি ছেলের কাছে তাঁর প্রেমিকা সব সময় স্পেশাল। প্রেমিকার খুশির জন্য সে যা খুশি করতে পারে। শুধু আপনার মুখে হাসি ফোটানোর জন্য সে ভিড় রাস্তায় জোকারের মতো নাচতেও পারে। বাঙালি মেয়েদের সঙ্গে সঙ্গে অবাঙালি মেয়েরাও তাই আকৃষ্ট হন। কেমন সেই গুণাবলি ? যা শুধু বাঙালি ছেলের কাছেই পাওয়া যায় ?

বাঙালি ছেলেদের স্বভাব মিষ্টি এবং রসিক। এ ব্যাপারে তাঁদের কোনও তুলনা হয় না। তারা পাঞ্জাবী বা মেধাবী দক্ষিন ভারতীয় ছেলেদের মতো নয়। কিন্তু তাঁদের সব গুণই মিলবে বাঙালি ছেলেটার মধ্যে।

বাঙালি ছেলে মানেই মজারু। সব বিষয়ে অফুরন্ত জোকসের ভাণ্ডার। নিজেকে আঁতেল প্রমাণ করতে থিয়েটার থেকে ধ্রুপদী সঙ্গীতের অনুষ্ঠান কিংবা বাউল মেলা সবেতেই আগ্রহ।

বাঙালি ছেলেরা খাবার জন্য সবসময় প্রস্তুত। সে বাটার নান মশালা হোক কিংবা জিলিপি। বাঙালি ছেলেরা তাঁদের শরীরের যত্ন নেয়। কিন্তু এমন বিপুল খাবার উদরস্থ করার পরেও তারা কীভাবে এমন স্লিম ফিগার ধরে রাখে তা সত্যি ভাবার বিষয়।

বাঙালিদের নিজস্ব রান্না দেখলে আপনার জিভ বেরিয়ে আসবে। পঞ্চ ব্যঞ্জন সহকারে তারা যখন টেবিলে খাবার সাজিয়ে দেবে, সে এক দেখার মতো ব্যাপার। তবে হ্যাঁ, তারা ঝাল খায় খুব। ওই খাবার একটু জিভে ঠেকালেই সেটা মালুম হবে। ঝালের চোটে চোখ দিয়ে জল বেরিয়ে যাবে। তবে চিন্তা নেই। আপনি যদি ঝাল না খান, তবে আঝালা রান্নারও ব্যবস্থা আছে।

বাঙালি ছেলেরা বুঝদার, যত্নবান ও দায়িত্বশীল। কোনওকিছু আপনার ওপর চাপিয়ে দেবে না। আপনার কাজ এবং আপনার প্রতি তারা যথেষ্ট শ্রদ্ধাশীল। বাঙালি ছেলের সব বিষয়েই জ্ঞান থাকে। ধর্মেও, জিরাফেও। সুতরাং, যে কোনও বিষয়ে বিতর্ক জমানোর জন্য উপযোগী। তবে ঝগড়ায় খুব একটা পারদর্শী হয় না। এইটা কিন্তু মেয়েদের একটি বড় অ্যাডভান্টেজ।

বাঙালি যুবকদের কথায় কথায় মাথা গরম হয় না। রাস্তা ঘাটে তারা মাস্তানি করে না। এক কথায় ‘নন-ভায়োলেন্ট’। ঠান্ডা মাথা। ঘরেও, বাইরেও। ঝামেলা, ঝঞ্ঝাট এড়িয়ে ঘর-মুখো।

বাঙ্গালি ছেলেরা গাইতে পারে। যে কোনও রকম বাজনা তারা অনায়াসে বাজাতে পারে। তারা ভালো আঁকতেও পারে। আসলে তাঁদের মধ্যে একটা শিল্পী সত্তা আছে। যা কখনও আপনাকে একঘেয়ে লাগতে দেবে না। বাঙালি ছেলেদের বড় বড় চোখ মায়াময়। আপনার প্রতিটা স্বপ্নের সহযোগী সে। আর ভাবতে হবে না এবার এগিয়ে যান।

বাঙালি ছেলেরা সাধারণত বড় হয়েও মায়ের আঁচল-ঘেষা হন। ফলে ঠিকঠাক ব্যালান্স করে চললে, শ্বাশুড়িকে একটু মানিয়ে নিতে অসুবিধা হয় না আর মানিয়ে নিলে মায়ের আদর ডাবল হতে পারে। গয়নার উত্তরাধীকার তো অন্তত নিশ্চিত।