সরস্বতী পুজোর আগে কুল খেলে কী হয়? কেন সরস্বতী পুজোর আগে কুল খেতে বারণ করা হয়?

সরস্বতী পুজোর আগে কুল খাওয়া বারণ কেন? খেলে কী হয়?

আগামী ১৪ই ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিত হবে সরস্বতী পুজো (Saraswati Puja)। প্রতিবছরের মত এই বছরও সরস্বতী পূজার আগেই বাজারে ছেয়ে গেছে বিভিন্ন প্রজাতির কুল (Indian Jujube)। কিন্তু বাজারে কুল (Boroi) এখন সহজলভ্য হলেও সরস্বতী পুজোর দিন অঞ্জলি দেওয়ার আগে পর্যন্ত কুল খাওয়া যায় না, এ কথা ছোটবেলা থেকেই শুনে এসেছে সকলে। শুধু শুনে এসেছে বললে ভুল হবে একপ্রকার মেনেও এসেছে সকলে। কিন্তু ঠিক কী কারণ রয়েছে এই কথাটির পেছনে? আদৌ কি এই কথাটি গ্রহণযোগ্য? সেটাই আলোচনা করা হবে এই প্রতিবেদনে।

সরস্বতী পুজোর আগে কুল খেলে নাকি পরীক্ষায় আর পাশ করা যাবে না, এই ভয়ে ছাত্রছাত্রীরা সরস্বতী পুজোর দিন অঞ্জলি পর্যন্ত অপেক্ষা করে কুল খাওয়ার জন্য। অনেকে আবার মনে করেন, কুল তো সাধারণ একটি ফল, সরস্বতী পূজার আগে এই ফল না খাওয়ার পেছনে কী কারণ? তবে জ্যোতিষ বিশেষজ্ঞদের মতে সরস্বতী পুজোর আগে কুল না খাওয়ার পেছনে রয়েছে তিনটি কারণ।

Saraswati Puja

কেন সরস্বতী পুজোর আগে কুল খেতে নেই?

পৌরাণিক কারণ

পৌরাণিক কাহিনী অনুযায়ী, একবার মহা জ্ঞানী ব্যাসদেব মা সরস্বতীকে সন্তুষ্ট করার জন্য বদ্রিকাশ্রমে কঠোর তপস্যায় বসে ছিলেন। তপস্যা শুরু করার আগে তপস্যার স্থানে একটি কুলের বীজ রেখে দিয়েছিলেন মা সরস্বতী। তিনি ব্যাসদেবের কাছে শর্ত রেখেছিলেন, যতদিন ধরে এই কুলের বীজ অঙ্কুরিত হয়ে গাছ হবে, সেই গাছে নতুন কুল হবে, সেই কুল ব্যাসদেবের মাথায় পড়বে ততদিন পর্যন্ত তাকে তপস্যা চালিয়ে যেতে হবে। যেদিন ব্যাসদেবের মাথায় কুল পড়ে, সেদিন ছিল মাঘ মাসের শুক্ল পক্ষের পঞ্চমী তিথি। ব্যাসদেবের আর বুঝতে বাকি থাকে না, মা সরস্বতী সন্তুষ্ট হয়েছেন। তারপর থেকেই এই দিনটিতে মা সরস্বতীর আরাধনা করা হয়।

বৈজ্ঞানিক কারণ

এই বিষয়টিকে যদি বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে দেখা হয় তাহলে জানা যাবে বসন্ত পঞ্চমী যে সময় অনুষ্ঠিত হয় সেই সময়টা শীতের অবসান এবং বসন্তের শুরু। এই সময় অল্প ঠান্ডা এবং অল্প গরম থাকে। ঋতু পরিবর্তনের এই সময় স্বাভাবিকভাবেই বিভিন্ন অসুখে জর্জরিত হয় জনজীবন। এই সময় যেহেতু কুল পাকতে শুরু করে আর সেই পাকা কুল খেলে পেটের সমস্যা তৈরি হতে পারে তাই সরস্বতী পুজোর আগে কুল খেতে বারণ করা হয় সকলকে।

আরও পড়ুন : ‘গোটাসেদ্ধ’ আসলে অমৃত সমান! সরস্বতী পুজোর পর সপরিবারে কেন খাবেন গোটা সেদ্ধ? জানুন কারণ

INDIAN JUJUBE

আরও পড়ুন : নকল কুলে ভরেছে বাজার! আসল কুল চিনবেন কীভাবে?

সামাজিক কারণ

ভারতবর্ষে যে কোনও ফসলকে ঈশ্বরকে উৎসর্গ করে তবেই খাওয়া হয়। যেমন ধরুন, নতুন ধান উঠলে ঈশ্বরকে তা অর্পণ করে তবেই সেই ধান ঘরে তোলা হয়। এই উৎসবকে ‘নবান্ন উৎসব’ বলা হয়। ঠিক সেইভাবে শীতকালের শেষে যখন গাছে গাছে কুল পাকতে শুরু করে, সেই কুল দেবী সরস্বতীর কাছে নিবেদন করে তবেই তা প্রসাদ হিসেবে গ্রহণ করা হয়।