রাজ্যে প্রথম করোনার টিকা কারা পাবেন, তৈরি হল ২৫ হাজার তালিকা

Who Will Get The Vaccine First in West Bengal Here is the List
Who Will Get The Vaccine First in West Bengal Here is the List

অবশেষে আশার আলো।আগেই কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে রাজ্যগুলিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে ভ্যাকসিন প্রাপকদের নামের সংখ্যা তৈরি করতে। এবার শুরু হলো স্বাস্থ্য ভবনে কোরোনা ভ্যাকসিন(Corona Vaccine) এর অগ্রাধিকারি ব্যাক্তিদের নাম জমা দেওয়া।

নামের তালিকা জমা দিচ্ছে সরকারি হাসপাতাল(Hospital) এবং মেডিক্যাল কলেজগুলি(Medical Colleges)।ই তিমধ্যেই শনিবার পর্যন্ত মূলত কলকাতার সরকারি হাসপাতাল ও মেডিক্যাল কলেজগুলোর পক্ষ থেকেই জমা পড়েছে ২৫, হাজারের বেশী নাম।

এই তালিকায় শুধু চিকিৎসক(Doctors) ও স্বাস্থ্যকর্মীদের(Medical staffs) নামই নয়, বরং আছে ডাক্তারি পড়ুয়া এবং হাসপাতালে কর্মরত পুলিশ এবং নিরাপত্তা কর্মীদের নামও।

স্বাস্থ্য ভবন জানাচ্ছে, আগামী সপ্তাহের মধ্যেই বাদ বাকি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল থেকে নামের তালিকা তাদের কাছে চলে আসবে।কেন্দ্রীয় নির্দেশ অনুসারে ভ্যাকসিন পাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীরা কিন্তু রাজ্য চায় তাদের পাশাশি পুলিশ ও প্রশাসনের প্রথম সারির কোরোনা যোদ্ধারাও অগ্রাধিকার পাক।

চলতি সপ্তাহের প্রথমেই কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মিশন ও রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর প্রস্তাব দেয় রাজ্যের সব সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল এবং পুরসভার কাছে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীদের নাম পাঠানো হবে। ৩১ অক্টোবর রাজ্যের বেশ কিছু সরকারি হাসপাতাল ও মেডিক্যাল কলেজের তরফ থেকে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীদের নাম পাঠানো হয়েছে রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তরে।

কলকাতা পুরসভা সূত্রে জানা যাচ্ছে জোর কদমে শুরু হয়েছে, প্রথমসারির করোনাযোদ্ধাদের নামের তালিকা তৈরির কাজ এবং চেষ্টা করা হচ্ছে আগামী সপ্তাহের মধ্যেই তালিকা পাঠানোর।এই তালিকায় হাসপাতালে নিরাপত্তারত পুলিশ কর্মী ও হাসপাতালের ল্যাব টেকনিশিয়ানদের নামও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।তবে আপাতত তাদের কারোর পরিবারের সদস্যদের নাম তালিকায় রাখা হয়নি।

ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজের সুপার ডা সন্দীপ ঘোষ জানান যে তারা ইতিমধ্যেই ভ্যাকসিনের জন্য এমবিবিএস পাঠরত ছাত্র, শিক্ষক, চিকিৎসক, নার্স এবং সমস্ত স্বাস্থ্য কর্মী সহ প্রায় ৪ হাজার নাম পাঠিয়ে দিয়েছেন।

এনআরএস মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা যাচ্ছে সেখান থেকে প্রায়  সাড়ে ৫ হাজার নাম স্বাস্থ্য ভবনে ইতিমধ্যেই পাঠানো হয়েছে।অন্যদিকে এসএসকেএম হাসপাতালের সুপার রঘুনাথ মিশ্র জানান যে তারা ইতিমধ্যে সাড়ে ৭ হাজার নাম পাঠিয়েছেন। আরজিকর থেকে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার, এম আর বাঙুর থেকে ৭০০ ও বেলেঘাটা আইডি থেকেও ৭০০ জনের নাম পাঠানো হয়েছে স্বাস্থ্য ভবনে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য,  রাশিয়ার ভ্যাকসিন স্পুটনিক ফাইভের (Sputnik V) পরীক্ষামূলক প্রয়োগ এর জন্য বেছে নেওয়া হয়েছে সাগর দত্ত মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালকে (CMSDH)। এই হাসপাতালের ১২ জন স্বেচ্ছাসেবকের শরীরে প্রয়োগ করা হতে পারে ভ্যাকসিন। সব কিছু ঠিক থাক থাকলে নভেম্বরের মধ্যেই ট্রায়াল পর্ব শুরু হওয়ার কথা।

এই পরীক্ষামূলক প্রয়োগের জন্য  ১০০টি করোনা প্রতিষেধকের ডোজ পাঠানো হয়েছে ভারতে। ভারতে রাশিয়ার সঙ্গে হাত মিলিয়ে কাজ করছে ডক্টর রেড্ডিস ল্যাব। দেশজুড়ে মোট ১০০ জনের শরীরে তা প্রয়োগ করা হবে। এর ফলাফলের ভিত্তি করে কলকাতার আরও দুই হাসপাতাল পিয়ারলেস এবং মেডিকা সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে এই ভ্যাকসিনের তৃতীয় ধাপ ট্রায়ালের কথা ভাবা হতে পারে বলে জানা যাচ্ছে।