বিয়েতে বর-কনেকে সাত পাকে ঘোরানো হয় কেন?

বিয়ে একটি পবিত্র বাঁধন। প্রজাপতি ঋষির কৃপায় ও গুরুজনদের আশীষ নিয়ে শুরু হয় নতুন জীবন। বিয়ে মানে দুটো মনের মিলন, দুটো পরিবারের মিলন। হিন্দু মতে বিয়ে মানেই, শুভদৃষ্টি, সাত পাকে ঘোরা, খই পোড়ানো, সিঁদুর দান, হস্তবন্ধন, সাত পাকে ঘোরা। তবে এই সমস্ত রীতি কিন্তু শুধুই ধর্মীয় কারণে নয়। এর পিছনে আরও অনেক কারণ রয়েছে। বলা হয়ে থাকে যে বিবাহের সাত পাক ব্যক্তিকে সাত জন্মের বন্ধনে বেঁধে ফেলে। এর মাধ্যমে অগ্নিদেবতাকে বিয়েতে সাক্ষী হিসেবে রাখা হয়। শুধু আগুনের চারপাশে ঘোরাই নয়, এই সময়ে বিভিন্ন প্রতিশ্রুতিও দিতে হয় একে অপরকে। শাস্ত্র মতে এইগুলির যথাযথ অর্থ আছে।

প্রথম পাক:

পাত্রের প্রতিজ্ঞা: তুমি আমার খাদ্যের দায়িত্ব নাও। আর আমি তোমাকে ও আমাদের সন্তানদের সুখে স্বাচ্ছন্দ্যে রাখার দায়িত্ব স্বীকার করছি।

পাত্রীর প্রতিজ্ঞা: আমি গৃহকর্মের যাবতীয় বিষয়ের জন্য দায়িত্বভার নিলাম। খাদ্য ও আর্থিক বিষয় ঠিক রাখার দায়িত্বভারও আমার।

ব্যাখ্যা: দম্পতি ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করে থাকে  যে তারা একে অপরের খাদ্য ও সুখস্বাচ্ছন্দ্যের দায়িত্ব নেবে। একসঙ্গে পরিবারের ভালোমন্দ দেখভাল করবে।

দ্বিতীয় পাক:

পাত্রের প্রতিজ্ঞা: একসঙ্গে আমরা আমাদের বাড়ি ও সন্তানদের রক্ষা করে যাব ।

পাত্রীর প্রতিজ্ঞা: আমি সদাসর্বদা তোমার পাশে থাকব। তোমাকে শক্তি ও সাহস জোগাবো। তোমার সুখের প্রতি নজর রাখব। পরিবর্তে তুমি আমাকে আন্তরিকভাবে ভালবাসবে।

ব্যাখ্যা: দম্পতি প্রার্থনা করে দু’জন দু’জনের সুখ ও সুস্থ জীবনের দায়িত্বভার গ্রহণ করে ।

Source

তৃতীয় পাক:

পাত্রের প্রতিজ্ঞা: আমরা যেন দিন দিন সম্বৃদ্ধশালী করে তুলতে পারি। আমাদের সন্তানরা দীর্ঘজীবী হোক। তাদের পড়াশোনার সমস্ত ব্যবস্থা ও তাদের ভবিষ্যৎ যেন আমরা সুন্দর করে তুলতে  পারি।

পাত্রীর প্রতিজ্ঞা: আমি তোমাকে সারা জীবন মনে প্রাণে ভালবাসব। সতীত্ব রক্ষা করব। বাকী সব পুরুষ আমার কাছে গৌণ।

ব্যাখ্যা: দম্পতি একসঙ্গে প্রতিজ্ঞা করে, তারা একসঙ্গে আধ্যাত্মিক কর্তব্য সম্পন্ন করবে। একে অপরকে ভালবাসবে আর সতীত্ব রক্ষা করবে।অর্থাৎ সুখ ও শান্তির কামনা।

চতুর্থ পাক:

পাত্রের প্রতিজ্ঞা: তুমি আমাকে সম্পূর্ণ করবে ও আমার পবিত্রতা রক্ষা করবে। আশা করি আমরা মহৎ ও অনুগত সন্তানের জন্ম দেব।

পাত্রীর প্রতিজ্ঞা: আমি তোমায় আনন্দে ভরিয়ে দেব। আমার সাধ্যমতো প্রতিদিন আমি তোমাকে ভাল রাখতে পারব।

ব্যাখ্যা: দম্পতি একে অপরকে পরিপূর্ণতা দেওয়ার ও পবিত্রতা রক্ষার প্রতিজ্ঞা করে। যতদূর সম্ভব সবদিক থেকে একে অপরের পাশে থাকার  দৃঢ় অঙ্গীকার করে।

Source

পঞ্চম পাক:

পাত্রের প্রতিজ্ঞা: তুমি আমার প্রিয় বন্ধু ও শুভাকাঙ্খী। তুমি আমাকে সম্বৃদ্ধ করার জন্য আমার জীবনে এসেছ। ভগবান আশীর্বাদ সদা তোমার সাথে থাকুক।

পাত্রীর প্রতিজ্ঞা: আমি তোমাকে সারা জীবন ভালবাসার ও সম্মান দেওয়ার শপথ নিচ্ছি। আমি তোমাকে বিশ্বাস করি। তোমার ইচ্ছা বাস্তবে রূপায়িত করার চেষ্টা করব।

ব্যাখ্যা: দম্পতি একে অপরকে ভালবাসা ও সম্মান দেওয়ার প্রতিজ্ঞা বদ্ধ হয়।

ষষ্ঠ পাক:

পাত্রের প্রতিজ্ঞা: তুমি আমার সঙ্গে ছ’টি শপথ নিয়েছ। এবার বল চিরকাল কি তুমি এভাবেই আমার সঙ্গে থাকবে, আমাকে ভালবাসবে?

পাত্রীর প্রতিজ্ঞা: আমি সবসময় তোমার পাশে থাকব।তোমার ভালোমন্দ ভাগ করে নেব।

ব্যাখ্যা: দম্পতি চিরকাল একসঙ্গে থাকার একে অপরের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি নেয়।

আরও পড়ুন :- হিন্দু বিয়েতে বিয়ের অনুষ্ঠানে পাত্রের মা থাকতে পারেন না কেন ? 

Source

সপ্তম পাক:

পাত্রের প্রতিজ্ঞা: এবার আমরা স্বামী-স্ত্রী, আমরা এক। এখন থেকে চিরকাল তুমি আমার আর আমি তোমার।তুমিই আমার অর্ধাঙ্গিনী।

পাত্রীর প্রতিজ্ঞা: ভগবানকে সাক্ষী রেখে এখন থেকে আমি তোমার স্ত্রী। আমরা চিরকাল একে অপরকে ভালবাসব, সম্মান করব আর পবিত্রতা রক্ষা করব।আর দায় দায়িত্ব পালন করব।

ব্যাখ্যা: উভয়ে ভগবানের আশীর্বাদ নিয়ে সম্পর্কের সূচনা করে। এই সম্পর্ক সততা, দায়িত্ব ও বিশ্বস্ততায় পরিপূর্ণ।