রোজ দুটো করে ডিম খেলে শরীরে কী হয়, ফলাফল জানলে চমকে যাবেন

রোজ ২ টো করে ডিম খেলে শরীরে কী হয়, না জানলে বিশ্বাসই হবে না

সুস্থ শরীর কে না চায়? শরীর সুস্থ রাখার জন্য উপযুক্ত খাবার খাওয়া জরুরী। প্রতিদিনের খাবারে কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, ফ্যাট এবং ভিটামিনসের যোগান যদি ঠিকঠাক না থাকে তাহলেই সহজে রোগ জাঁকিয়ে ধরে শরীরকে। এমতাবস্থায় সুস্থ থাকতে বিশেষজ্ঞরা দিচ্ছেন বিশেষ পরামর্শ। বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে রোজ নির্ভয়ে ২ টো করে ডিম খাবার পাতে রাখতেই পারেন। এতে শরীরের কী কী উপকার হয় (what are the benefits of eating two eggs per day) ভাবতেও পারবেন না।

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে থাকবে : যদি রোজ খাবার পাতে ডিম রাখেন তাহলে তা শরীরের অনেক উপকার করে। আমরা সকলেই জানি শরীরে কোলেস্টেরল বেড়ে যাওয়াটা হার্টের পক্ষে খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। তবে কোলেস্টেরলের মধ্যে আবার ভাল-খারাপের ভাগ আছে। যদি শরীরে ভাল কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়াতে চান তাহলে নির্ভয়ে প্রতিদিন ২ টো করে ডিম খান। এতে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে।

ত্বক এবং চুলের যত্ন : ডিমের মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি, বায়োটিন, থিয়ামিন এবং আরও অনেক উপযোগী উপাদান। এই সমস্ত উপাদান ত্বক, চুল এবং নখের যত্ন নেয়। তাই সুস্থ সবল থাকার পাশাপাশি চির যৌবন লাভের জন্য বিশেষত ত্বকের যত্নে, চুলের যত্নের কথা ভেবেও ডিম রাখুন ডায়েটে। যাদের নখ বিনা কারণেই ভেঙে যায় ডিম খেলে তাদের সেই সমস্যা দূর হতে পারে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় : আমাদের আশেপাশে প্রতিনিয়ত ভাইরাস-ব্যাকটেরিয়ারা ঘোরাঘুরি করছে। চোখে দেখা যায় না এমন ক্ষতিকারক এই ভাইরাস-ব্যাকটেরিয়াই শরীরের বেশিরভাগ রোগের পেছনে দায়ী। এদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য শরীরে শক্ত-সামর্থ্য রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা দরকার। তাছাড়া গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে ডিম খেলে স্মৃতিশক্তির উন্নতি হয়। মস্তিষ্ক সচল রাখতে সহায়তা করে ডিম।

চোখের জন্য উপকারী : ডিম চোখের জন্যও ভীষণভাবে উপকারী। ইদানিং সারাদিন ফোন কিংবা ল্যাপটপ ঘেটে ঘেঁটে চোখের সমস্যা অনেক বেড়ে গিয়েছে। চোখের স্বাস্থ্য ভাল রাখতে প্রতিদিন ডিম খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। কারণ ডিমের মধ্যে রয়েছে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস। এগুলো চোখের জন্য উপকারী।

পেশির গঠনে সহায়তা করে : পেশির গঠনের জন্য ডিম অত্যন্ত উপযোগী। পেশি সুস্থ সবল রাখতে হলে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন প্রয়োজন শরীরে। যারা ওজন বাড়াতে চান তারা নির্দ্বিধায় প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় ডিম রাখুন। তবে যদি কারও এলার্জির সমস্যা থাকে তাহলে অবশ্যই বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে তবেই ডিম খাওয়া উচিত।