বেড়ে গেল পশ্চিমবঙ্গের রেড জোনের তালিকা, চূড়ান্ত সর্তকতা ১০ জেলায়

পশ্চিমবঙ্গে একলাফে রেড জোন জেলার সংখ্যা বেড়ে হল ১০। কেন্দ্রের সংশোধিত তালিকা অনুযায়ী বর্তমানে সারা দেশে ১৩০ টি জেলা রেড জোন, ২৪৮ টি জেলা অরেঞ্জ জোন ও ৩১৯ টি জেলা গ্রিন জোনের অন্তর্গত। বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিব প্রতিটি রাজ্যকে চিঠি পাঠিয়ে নতুন রেড জোন, অরেঞ্জ জোন ও গ্রিন জোনের তালিকা জানান। কেন্দ্রের চিঠি অনুযায়ী পশ্চিমবঙ্গে এখন রেড জোনের সংখ্যা ১০, অরেঞ্জ জোনের সংখ্যা ৫ টি ও গ্রিন জোনের সংখ্যা ৮ টি।

কেন্দ্রের স্বাস্থ্য সচিব জানান, প্রতি সপ্তাহে সংক্রমনের হার, সংক্রমনের সংখ্যা কতদিনে দ্বিগুন হচ্ছে, কতজন ব্যক্তি সংক্রমিতের সংস্পর্শে আসছেন, এসব বিষয় পর্যালোচনা ও বিশ্লেষণ করেই নয়া তালিকা তৈরী করা হয়েছে। স্বাস্থ্য সচিব চিঠিতে জানান, এই তালিকায় আরও এলাকা যুক্ত হতে পারে কিন্তু এই তালিকা থেকে কোনো কোনো জায়গা বাদ দেওয়া যাবে না। তবে এই মুহূর্তে যেহেতু সারা দেশে করোনা মুক্ত হয়ে ওঠা মানুষের সংখ্যা বেশি তাই বৃহত্তর আঙ্গিকে এই জোন ভাগ করার বিষয়টিকে পর্যালোচনা করে দেখা হয়েছে। সেক্ষেত্রে বিচার করে দেখা হয়েছে কোন জায়গায় কতটা নজরদারি হচ্ছে, কত নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে কোন এলাকা থেকে কেমন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যাচ্ছে এবং সর্বপরি সংক্রমণের সংখ্যা কত এই বিষয়গুলিকে।

এই চিঠিতে আরও জানানো হয়, ২১ দিনের মধ্যে কোনো জেলায় সংক্রমন না ঘটে তাহলে সেই এলাকাকে গ্রিন জোনে ফেলা হবে। আরও জানানো হয়েছে যে পুরসভাগুলিতে আলাদা আলাদা এলাকা ধরা যাবে। যেমন একটি জেলায় যদি তিনটি পুরসভা থাকে তাহলে তিনটি এলাকা আলাদা জোন ও বাকি জেলা আলাদা জোন হতে পারে। ধরা যাক কোনও জেলা রেড জোন কিন্তু সেই জেলার একটি পুরসভায় ২১ দিনে কোনো সংক্রমণের খবর নেই তাহলে রেড জোন জেলায় থাকলেও সেই পুরসভা অরেঞ্জ জোন হয়ে যাবে।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিবের দেওয়া চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, প্রতি সপ্তাহে কেন্দ্র সরকার সংক্রমণের হার, সংক্রমণের সংখ্যা দ্বিগুণ হওয়ার হার, কতজন ব্যক্তি সংক্রমিতদের সংস্পর্শে আসছেন তা পর্যালোচনা করে এই তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। আগেই কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে কলকাতা, হাওড়া, উত্তর ২৪ পরগণা ও পূর্ব মেদিনীপুরকে রেড জোন হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছিল। আর এবার এই তালিকায় যুক্ত হল এক ধাক্কায় আরও ৬ টি জেলা।

state-government-prepared-for-further-extension of lockdown

কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে ঘোষণা করা আগের ৪ টি রেড জোন জেলা এখনো পর্যন্ত রেড জোন থেকে বের হতে পারেনি। আর এবার নতুন করে সেই তালিকায় সংযুক্ত হলো দক্ষিণ ২৪ পরগনা, পশ্চিম মেদিনীপুর, দার্জিলিং, কালিম্পং, জলপাইগুড়ি ও মালদহ। অর্থাৎ দক্ষিণবঙ্গের পাশাপাশি উত্তরবঙ্গেরও আরও চারটি জেলা রেড জোনের অন্তর্ভুক্ত হলো। রেড জোন ছাড়া পশ্চিমবঙ্গে অরেঞ্জ জোনে রয়েছে হুগলি, পশ্চিম বর্ধমান, পূর্ব বর্ধমান, নদীয়া, মুর্শিদাবাদ।

আরও পড়ুন :- সহজ ভাষায় লকডাউন আর সিলের মধ্যে পার্থক্য বুঝে নিন

গ্রীন জোনের তালিকায় রাজ্যের যে জেলাগুলির নাম রয়েছে সেগুলি হল ঝাড়গ্রাম, আলিপুরদুয়ার, পুরুলিয়া, দক্ষিণ দিনাজপুর, কোচবিহার, বীরভূম, বাঁকুড়া, উত্তর দিনাজপুর। তবে এদিন সকালে বীরভূমে একই পরিবারের ৩ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে।যার পরে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে বীরভূম কি আদৌ গ্রিন জোনে থাকবে, না অরেঞ্জ জোনে চলে যাবে। তবে শুধু বীরভূম নয়, গ্রিন জোনভুক্ত থাকা আলিপুরদুয়ার জেলাতেও সংক্রমণ ধরা পড়েছে।

আরও পড়ুন :- এই মূহুর্তে ভারতের কোথায় কোথায় রয়েছে করোনা হটস্পট

বৃহস্পতিবার রাজ্যের মুখ্যসচিব রাজীব সিংহ নবান্ন থেকে জানান, রাজ্যের অরেঞ্জ জোনের তালিকাভুক্ত দুটি জেলায় গত ২৫ দিনে সংক্রমণ হয়নি, এবং তিনটি জেলা থেকে ২১ দিনের মধ্যে কোনো সংক্রমণের সংখ্যা নেই। আরও দুটি জেলায় ৭ দিনে কোনো সংক্রমন হয়নি। স্বাস্থ্য দফতরের কর্তারা বলছেন এই সংশোধিত তালিকা তৈরীর ক্ষেত্রে সম্প্রতি কেন্দ্রের তরফে যে দল রাজ্যে এসে পরিস্থিতি খতিয়ে গেছেন তাঁদের প্রভাব রয়েছে।

জোন ভিত্তিক জেলার তালিকা

রেড জোন  দার্জিলিং, কালিম্পং জলপাইগুড়ি, মালদা, উত্তর ২৪ পরগনা, দক্ষিণ ২৪ পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুর, পশ্চিম মেদিনীপুর, হাওড়া ও কলকাতা
অরেঞ্জ জোন  মুর্শিদাবাদ, পূর্ব বর্ধমান, পশ্চিম বর্ধমান, নদিয়া ও হুগলি
গ্রিন জোন  আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার, উত্তর দিনাজপুর, দক্ষিণ দিনাজপুর, বীরভূম, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া ও ঝাড়গ্রাম