রাজ্যের পুরোহিতদের জন্য সুখবর, বড় ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী

একুশের ভোটের আগে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যের পুরোহিতদের জন্য ভাতা দেওয়ার ঘোষণা করেছিলেন। আর এবছর পুজোর আগে সেই সকল পুরোহিতদের ভাতা বাড়ানোর কথা ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই ভাতা নিয়ে দিন কয়েক ধরেই কানাঘুষো শোনা যাচ্ছিল, তবে সোমবার সরকারি ভাবে তার ঘোষণা করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী, দুর্গাপুজোর সময় থেকেই রাজ্যের আট হাজার পুরোহিত প্রতি মাসে ১০০০ টাকা করে ভাতা পাবেন। পরবর্তী সময় এই সংখ্যাটা আরও বাড়বে। শুধু ভাতাই নয়, আর্থিকভাবে পিছিয়ে থাকা পুরোহিতদের ‘বাংলা আবাস যোজনা’য় ঘর করে দেওয়ার কথাও ঘোষণা করেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন,  “সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ব্রাহ্মণরা দীর্ঘদিন ধরে মন্দিরে মন্দিরে পুজো করে আসছেন। কিন্তু তারা কোন রকম সাহায্য পান না। এসকল ব্রাহ্মণদের মধ্যে অনেকেই আছেন খুব গরিব।

আবার সবাই তো বড় পুজো, বিয়ে অথবা ভালো কাজ করার বায়না পান না। অনেকেই আছেন খুব গরিব-খুবই গরিব। গ্রামগঞ্জে হয়তো মাসে একটা সুযোগ পান তারা। তাদের এই ভাবে চলে না।”

আরও পড়ুন : প্রতিমাসে ৩০০০ টাকা পেনশন পাবেন কেন্দ্রের এই প্রকল্পে, জানুন আবেদন পদ্ধতি

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই সকল পুরোহিতদের জন্য জানান, “পুরোহিতরা তার সাথে তিন চার বার দেখা করেছেন। আর এই সকল দরিদ্র ব্রাহ্মণরা সাহায্যের জন্য আবেদন করেছিলেন। আর সেই আবেদনের ভিত্তিতে এই সকল পুরোহিতের জন্য মাসিক ভাতার বন্দোবস্ত করা হয় রাজ্য সরকারের তরফ থেকে। আর এবছর পুজো থেকে এই সকল পুরোহিতদের ভাতা চালু হবে।”

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘোষণা অনুযায়ী এই সকল পুরোহিতরা এবার মাসিক ১০০০ টাকা করে ভাতা পাবেন। আর এই ভাতা কার্যকর হবে চলতি বছর পুজোর মাস থেকেই। পাশাপাশি যে সকল পুরোহিতদের বাড়িঘর নেই তাদের আবাস যোজনা প্রকল্প ঘর বানিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন : পুজোর আগে প্রতিটি চাষী পাবে ২০০০ টাকা, বড় ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

তবে চলতি বছর দুর্গা পুজোর আগে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এমন দরাজ মনোভাব এবং পুরোহিতদের ভাতা বৃদ্ধির ঘোষণা নিয়ে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন সামনের বিধানসভা নির্বাচনের আগে শাসকদলের মাস্টারস্ট্রোক। একুশের নির্বাচনের আগে নিজেদের ক্ষমতা ধরে রাখার জন্য পুজোর মতো বড় সুযোগ আর পাওয়া যাবে না বলে মনে করছেন তারা। যে কারণে দুর্গা পুজোর আগেই একের পর এক ঘোষণা শোনা যাচ্ছে মুখ্যমন্ত্রীর মুখ থেকে।