জোড়া ঘূর্ণাবর্ত সঙ্গে নিম্নচাপ, আগামী ৪ দিন রাজ্যজুড়ে ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস

একেই করোনা পরিস্থিতিতে মানুষের মাথায় দুশ্চিন্তার ভাঁজ তার উপর তীব্র গরমে হাঁসফাঁস করার মতো অবস্থা সকলের। তবে সোমবার বজ্র-বিদ্যুত সহ প্রবল ঝড়বৃষ্টি হওয়ায় নাজেহাল গরম থেকে নিস্তার পেল বাঙালি। আজ মঙ্গলবার সকাল থেকেই আকাশের মুখ ভার। সোমবার রাত থেকে মঙ্গলবার সকাল ৬ টা পর্যন্ত আলিপুর অঞ্চলে ৩০ মিলিলিটার বৃষ্টি হয়েছে। ঝড় বৃষ্টির প্রভাবে আজ সকালের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে ৬ ডিগ্রি নেমে যায়। সোমবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৪.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আজ তা প্রায় ৪ ডিগ্রি নেমে যায়।

শনিবার ৫৬ কিলোমিটার বেগে ৬.২৩ থেকে ৬.২৪ মিনিট পর্যন্ত ঝড় হয় কলকাতায়। মঙ্গলবার শহর মরসুমের দ্বিতীয় কালবৈশাখী পায়, গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৪৬ কিলোমিটার। দমদমে সকালের তাপমাত্রা ২৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস, বৃষ্টি হয়েছে ৩৩ মিলিমিটার। এই বৃষ্টি বাদলাতেও সল্টলেকে যথারীতি সকালেই পারদ পৌঁছে গিয়েছে ৩১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ওই অঞ্চলে বৃষ্টির খবর নেই। দুই অঞ্চলে সকালে আপক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ ৮৪ ও ৭৪ শতাংশ।

শনিবারই হাওয়া অফিস ঝড় বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছিলেন, সেই মতো শনিবার সন্ধ্যেবেলায় আলিপুর সহ কলকাতায় কালবৈশাখী আছড়ে পড়ে। এবার একদিনের তফাতেই আবারও বৃষ্টিতে স্বস্তি ফেলছে কলকাতা। আবওহাওয়া দফতর জানিয়েছেন, বিহারের কাছেই উত্তরপ্রদেশে তৈরী হয়েছে একটি ঘূর্নাবর্ত। অসম ও উত্তরপ্রদেশে তৈরী হয়েছে জোড়া ঘূর্নাবর্ত এমনকি একটি নিম্নচাপ অক্ষরেখাও বিস্তৃত হয়েছে। এর ফলপ্রসূতি স্থলভাগে বিপুল পরিমাণে জলীয় বাস্প প্রবেশ করেছে। এই নিম্নচাপের প্রভাবেই দিন চারেক বজ্র-বিদ্যুত সহ প্রবল বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

আবওহাওয়া দফতর জানাচ্ছেন আগামী ৩ দিন হাওড়া, হুগলী, কলকাতা, বাঁকুড়া, পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর,পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমান, উত্তর ও দক্ষিন চব্বিশ পরগণায় তুমুল ঝড়বৃষ্টি হবে। ৩০ থেকে ৪০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বইতে পারে সবকটি রাজ্যেই।

৫০ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে বইবে ঝোড়ো হওয়া। বিক্ষিপ্তভাবে কোথাও কালবৈশাখীর পূর্বাভাসও রয়েছে। বজ্রবিদ্যুৎ-সহ বৃষ্টি হবে বিক্ষিপ্তভাবে দু’এক জায়গায়। মঙ্গল থেকে বৃহস্পতি- এই তিনদিন ঝড়ের গতিবেগ বাড়তে পারে। এর সঙ্গে ভারী বৃষ্টি হওয়ারও পূর্বাভাস দিয়েছে হাওয়া অফিস। বৃষ্টির পরিমাণ হতে পারে ৭০ থেকে ১১০ মিলিমিটার পর্যন্ত।

গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে ঝড়-বৃষ্টির সম্ভাবনা বেশি হলেও উত্তরবঙ্গের পাঁচ জেলা- দার্জিলিং, কালিম্পং, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার ও জলপাইগুড়িতে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া দক্ষিণবঙ্গের বীরভূম, মুর্শিদাবাদ, নদিয়া, পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুরেও ভারী বৃষ্টি হতে পারে।

ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকটি জায়গায় বিক্ষিপ্ত ঝড় বৃষ্টি শুরুও হয়ে গিয়েছে। উত্তরবঙ্গের পাঁচ জেলায় অর্থাৎ দার্জিলিং, কালিম্পং, আলিপুরদুয়ার,কোচবিহার ও জলপাইগুড়িতে ঝোড়ো হাওয়ার সাথে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়াও হাওয়া অফিস জানিয়েছেন, আগামী কদিনে কর্ণাটক, তেলেঙ্গানা রাজস্থানের তাপমাত্রা বাড়বে। এই তিনটি জায়গায় ধূলিঝড়ের সম্ভাবনা রয়েছে। আগামী ৪৮ ঘন্টায় জম্মু-কাশ্মীর,লাদাখ, ও হিমাচল প্রদেশের দু একটি জায়গায় ঝড়-বৃষ্টির সাথেই তুষারপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।