মাঝরাতে লুকিয়ে কেন দাহ করা হয় হিজড়েদের? কেন কিন্নরদের অন্তিম সংস্কার দেখতে নেই?

মাঝরাতে লুকিয়ে কেন দাহ করা হয় হিজড়েদের? কিন্নরদের শেষকৃত্য দেখে ফেললে কী হয়?

Kinnar`s Last Rite Rituals : নারী ও পুরুষ শুধু নয়, এই পৃথিবীতে আরও এক লিঙ্গ পরিচয়ের মানুষের অস্তিত্ব রয়েছে। চলতি কথায় সমাজ যাদের বলে হিজড়ে (Transgender)। আধুনিক এই সমাজে যারা এখনও ব্রাত্য, কোণঠাসা হয়েই রয়েছেন। তবে এই হিজড়েদের নিয়ে কিন্তু সাধারণের মনে কৌতূহলের অন্ত নেই। এই গোষ্ঠীর মধ্যে এমন কিছু নিয়ম-নীতির প্রচলন রয়েছে যা কার্যত অবাক করে দেয়। আজ তেমনই একটি অদ্ভুত নিয়মের কথা রইল এই প্রতিবেদনে।

মৃত্যুকে অনুভব করতে পারেন হিজড়েরা

হিজড়ে জনজাতির মানুষেরা একাধিক অদ্ভুত অদ্ভুত নিয়ম পালন করেন। তেমনই তাদের শেষকৃত্য নিয়েও রয়েছে একটি অদ্ভুত নিয়ম। অনেকেই বিশ্বাস করেন এদের মধ্যে আধ্যাত্বিক শক্তি রয়েছে। যে কারণে তারা মৃত্যুকে অনুভব করতে পারেন। মৃত্যু আসন্ন টের পেলে তারা কোথাও যাওয়া বন্ধ করে দেন। এমনকি খাওয়া-দাওয়াও বন্ধ করে দেন। শুধু জল পান করে থাকেন জীবনের শেষ কয়েকটা দিন।

Kinnar`s Last Rite Rituals

মৃত্যুর আগে কী করেন হিজড়েরা?

জীবনের শেষ কয়েকটা দিন তারা ঈশ্বরের কাছে নিজেদের এবং নিজেদের জনজাতির মানুষদের জন্য  প্রার্থনা করেন। পরবর্তী জীবনে যাতে তাদের নপুংসক হয়ে না জন্মাতে হয়, ঈশ্বরের কাছে এটাই থাকে তাদের প্রার্থনা। কোনও হিজড়ের মৃত্যু হলে তার জন্য প্রার্থনা করতে আশেপাশে এবং দূরদূরান্ত থেকে অন্যান্য নপুংসকরা ছুটে আসেন।

হিজড়েদের অন্তিম সংস্কার কেন লুকিয়ে করা হয়?

কোনও হিজড়ের মৃত্যু হলে বহিরাগত ব্যক্তিকে তার অন্তিম সংস্কারে অংশ নিতে দেওয়া হয় না। খুব গোপনে তাদের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন হয়। চার জনের কাঁধে তুলে শবযাত্রা নয়, মৃত কিন্নরকে দাঁড় করানো অবস্থাতেই শেষকৃত্যের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্নররা বিশ্বাস করেন যদি সাধারণ মানুষ মৃতদেহ দেখতে পান তাহলে পরের জন্মেও সেই ব্যক্তিকে আবার হিজড়ে হয়েই জন্মাতে হবে।

Kinnar`s Last Rite Rituals

মৃতদেহ সৎকারের আগে পালন করা হয় অদ্ভুত সব নিয়ম

হিজড়ারা তাদের জীবনকে অভিশপ্ত বলে মনে করেন। সেই কারণে শবযাত্রার আগে মৃতদেহকে জুতো দিয়ে পেটানো হয়। যাতে সেই ব্যক্তি জীবিত অবস্থায় কোনও পাপ করে থাকলে তার প্রায়শ্চিত্ত হয়। পরবর্তী জীবনে যাতে তিনি সাধারণ মানুষের মত জন্ম নেন। একজন কিন্নরের মৃত্যু হলে তাদের গোষ্ঠীর সকলেই সেই ব্যক্তির জন্য এক সপ্তাহ উপবাস করেন এবং প্রার্থনা করেন তার জন্য।

হিজড়েদের শেষকৃত্য কীভাবে হয়?

কিন্নরদের মৃতদেহ পোড়ানোর পরিবর্তে কবর দেওয়ার রীতি রয়েছে। মৃত দেহটিকে একটি সাদা কাপড়ে মোড়ানো হয়। তার মুখে ঢেলে দেওয়া হয় পবিত্র নদী থেকে আনা জল। মধ্যরাত্রে খুব গোপনে সমস্ত ক্রিয়া সম্পন্ন হয়। বিশ্বাস করা হয় যদি এই প্রক্রিয়াটি লুকিয়ে কোনও সাধারণ মানুষ দেখেন তাহলে তার জীবনে নেমে আসে অভিশাপ। তাই কোনও কিন্নরের মৃত্যু হবে টের পেলে হিজড়ে গোষ্ঠীর কর্তৃপক্ষকে আগাম খবর দেওয়া হয় এবং তারাই শেষকৃত্যের সব ব্যবস্থা করেন।

আরও পড়ুন : হিজড়েরাও বিয়ে করে কিন্তু তাদের বিয়ের পদ্ধতি কেউই জানে না

Kinnar`s Last Rite Rituals

হিজড়েদের সম্পর্কে কিছু অজানা তথ্য

হিজড়েরা কিন্তু সাধারণ মানুষের তুলনায় বেশি দিন বাঁচেন। গবেষণাতে জানা গিয়েছে অন্যান্য মানুষের তুলনায় ২০ বছর বেশি বাঁচেন এই সম্প্রদায়ের মানুষেরা। গবেষকদের দাবি সাধারণ পুরুষের দেহ নিঃসৃত হরমোন তাদের আয়ু কমিয়ে দেয়। সেই তুলনায় হিজড়েরা তাই একজন সাধারণ পুরুষের তুলনায় অধিক দিন বেঁচে থাকতে পারেন।