যার অভিনয়ে দর্শক রেগে যান, তিনিই ভালো অভিনেত্রী : তৃণা সাহা

গুনগুনকে (Gungun) নিয়ে খড়কুটোর (Khorkuto) মুখার্জি পরিবারে তুমুল অশান্তি শুরু হয়েছে। বৌদিভাইয়ের সদ্যোজাত সন্তানকে একপ্রকার ছিনিয়েই নিয়েছে গুনগুন! মিষ্টির সন্তানকে পৃথিবীতে আনতে তার ভূমিকা ছিল। অতএব সেই থেকে পুচুসোনার উপর মাতৃত্বের দাবি নিয়ে সারা পরিবারের বিরুদ্ধে রীতিমতো রুখে দাঁড়িয়েছে গুনগুন। গুনগুনের চরিত্রের আচমকা এহেন পরিবর্তন মোটেই ভালোভাবে নিচ্ছেন না দর্শকের একাংশ।

যদিও গুনগুনের স্বপক্ষে সওয়াল করার মতো অনুরাগীর সংখ্যাও নেহাত কিছু কম নয়। তাদের দাবি, গুনগুন ছোট থেকে মায়ের স্নেহ থেকে বঞ্চিত হয়েছে। তাই আজ একটা ছোট্ট খুদেকে কাছে পেয়ে সে আর নিজের আবেগ ধরে রাখতে পারছে না। এক মুহূর্তের জন্যেও তাকে নজরের বাইরে যেতে দিতে অথবা অন্য কারোর কোলে ছেড়ে দিতে ভরসা পাচ্ছে না। অতএব গুনগুনের চরিত্রের এই নতুন মোড় কার্যত নেটমাধ্যমে বেজায় শোরগোল ফেলে দিয়েছে।

যাকে নিয়ে এত সমালোচনা, এই বিষয়ে সেই গুনগুন অর্থাৎ তৃণা সাহার (Trina Saha) বক্তব্য কী? তিনি এই বিষয়টিকে কেমনভাবে নিচ্ছেন? নিজের চরিত্রের নতুন শেডস সম্পর্কে এবং তা নিয়ে দর্শকের প্রতিক্রিয়া প্রসঙ্গে আনন্দবাজারের কাছে একটি সাক্ষাৎকার দিলেন তৃণা। সেখানে অভিনেত্রী সাফ জানিয়ে দিয়েছেন যে গুনগুনের চরিত্রের নতুন মোড় নিয়ে তিনি কিছুই ভাবছেন না। তাকে পরিচালক যেমনটা করতে বলছেন, তিনি তেমনটাই করছেন।

তৃণা বলেছেন, “আমি আসলে এই নিয়ে কিছুই ভেবে দেখিনি। আমি একজন অভিনেত্রী। আমাকে পরিচালক যা করতে বলবেন, আমি করব। এ ক্ষেত্রেও যে ভাবে চিত্রনাট্য লেখা হচ্ছে, আমি সে ভাবেই অভিনয় করছি।” তবে গুনগুনের উপর দর্শক যে চটে গিয়েছেন, এই বিষয়টিকে কিন্তু ইতিবাচক ভঙ্গিতেই তৃণা। তার বক্তব্য, “অনেকেই বলেন, অভিনয়ের মাধ্যমে দর্শকদের যে রাগিয়ে দিতে পারে, সে খুব ভাল অভিনেত্রী। আমি নিজেকে অত ভাল অভিনেত্রী মনে করি না। কিন্তু সবাই যে আমার চরিত্র নিয়ে কথা বলছে, সেটা দেখে খুব ভাল লাগছে।”

২০১৬ সালে ‘খোকাবাবু’ ধারাবাহিকের মাধ্যমে টেলিভিশন জগতে ডেবিউ করেন তৃণা। তারপর ‘কলের বউ’ এবং বর্তমানে ‘খড়কুটো’ ধারাবাহিকেও লিড চরিত্রে অভিনয় করছেন তিনি। তবে গুনগুনকে নিয়ে প্রথম থেকেই যে পর্যায়ের সমালোচনা হয়ে আসছে, ইতিপূর্বে কখনও অন্য চরিত্র নিয়ে ততটা সমালোচনার মুখে পড়তে হয়নি তাকে। এদিকে বিগত কয়েকদিন ধরেই দেখা যাচ্ছে একসময় শীর্ষে থাকা টিআরপি তালিকা থেকে ক্রমশ পিছিয়ে পড়ছে খড়কুটো!

তৃণা অবশ্য টিআরপি নিয়েও বিশেষ চিন্তিত নন। তার কথায়, “টিআরপি নিয়ে আমি এখন আর ভাবি না। মানুষ কখন কী পছন্দ করবেন, তা বোঝা মুশকিল। তাই এ সব নিয়ে না ভেবে, নিজের কাজ করলেই মানসিক শান্তি বজায় থাকবে।” তবে এ প্রসঙ্গে তার নিজস্ব মতামত তুলে ধরেছেন তিনি। তিনি বলেন, ধারাবাহিকের গল্পের সঙ্গে যদি বাস্তবের মিল থাকে তাহলে সেই ধারাবাহিকের গ্রহণযোগ্যতা দর্শকের কাছে কমে যায়।

“মানুষ টাকা খরচ করে ‘সুপারম্যান’, ‘কৃশ’ দেখতে পারে। যেগুলোর সঙ্গে বাস্তবের আদৌ কোনও মিল নেই। অথচ ধারাবাহিকের কারও দুটো বিয়ে দেখলে হাসাহাসি করে! অবাস্তব বলে। কেন বলুন তো?”, প্রশ্ন তুলেছেন গুনগুন ওরফে তৃণা সাহা। তাই আপাতত দর্শকের সমালোচনার দিকে ধ্যান না দিয়ে গুনগুনের চরিত্রের নতুন মোড় পর্দায় তুলে ধরাই তার একমাত্র লক্ষ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে।