প্রকাশ্য যৌনসঙ্গম থেকে শুরু করে মদ্যপান, নোংরামোর আঁতুড়ঘর বিগ বস

দীর্ঘ প্রায় এক দশকেরও বেশি সময় ধরে কালার্স টিভির (Colours TV) পর্দায় রমরমিয়ে চলছে বিগ বস (Big Boss)। সালমান খানের (Salman Khan) সঞ্চালনায় জনপ্রিয়তার শিখরে উঠেছে এই রিয়েলিটি শো। বিগবসে প্রতিযোগীদের মধ্যে অনেকেই এখন তারকা। দর্শক মনে করেন, বিগবসের একেবারে অন্দরমহল থেকে লাইভ টেলিকাস্ট হয় প্রতি পর্বে। তবে আদেও কি তাই? হাউজের আন্দরে রয়েছে অনেক টপ সিক্রেট। এক নজরে দেখুন বিগবস কী কী রহস্য লুকিয়ে রেখেছে তার অন্দরে।

বিগ বস রিয়েলিটি শো টেলিভিশনের পর্দায় যাত্রা শুরু করেছিল ২০০৬ সালে। তখন সালমানের বদলে সঞ্চালনার দায়িত্বে ছিলেন আরশাদ ওয়ার্শি। তবে কিছুদিন পরেই সোনি টিভি কালার্স টিভির হাতে তুলে দেয় বিগ বসকে। বিগ বসের বর্তমান হাউসে স্মোকিং এরিয়া রয়েছে। সর্বসমক্ষে ধূমপান করতে পারেন না প্রতিযোগীরা। তবে এখানে মদ্যপানের জন্য নির্দিষ্ট কোনও জায়গা নেই। তবে হাউজের প্রতিযোগীদের যদি মদ্যপান করতেই হয় তাহলে তাদের কিন্তু বিশেষ বেগ পেতে হয়না। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ফলের রস হিসেবে প্রতিযোগীদের দিকে যা এগিয়ে দেওয়া হয়, তার মধ্যেই থাকে মদ।

বিগ বস হাউসে সাধারণত প্রতিযোগীদের পারিশ্রমিক দেওয়া হয় দুই ভাবে। কাউকে প্রতি সপ্তাহের শেষে পারিশ্রমিক তুলে দেওয়া হয়। কেউ আবার একেবারে সিজনের শেষে তাদের পারিশ্রমিক পান। এই যেমন রিমি সেন বিগ বস সিজনের শেষে ২ কোটি টাকা পেয়েছিলেন। আবার রেশমি দেশাই প্রতি সপ্তাহে ১৫ লক্ষ টাকা পেয়েছেন।

বিগ বস হাউসে যেমন মদ্যপান নিষিদ্ধ নয়, অন্তরঙ্গতাও তেমন নিষিদ্ধ নয়। প্রতিযোগীদের মধ্যে যদি সেরকম কোনও সম্পর্ক গড়ে ওঠে তাহলে তারা সোজা বাথরুমে চলে যান। কারণ একমাত্র সেখানেই ক্যামেরা লাগানো নেই। বিগ বস যেহেতু একটি পারিবারিক প্রোগ্রাম তাই এখানে সাধারণত অন্তরঙ্গ দৃশ্য দেখানো শো’য়ের নিয়মবিরুদ্ধ।

https://twitter.com/BB_live_feeds/status/1426519804513456134

বিগ বসের এই সিজনে প্রতিযোগী উরফি জাভেদ শো নিয়ে বিস্ফোরক দাবি করেন। তাঁর দাবি, বিগবসের ১৫ তম সিজনে নাকি ঘরের মধ্যেই অন ক্যামেরা যৌন সঙ্গম হয়েছে। উরফি বলেন, ‘বিগবস ওটিটির ঘরে সঙ্গম হয়েছে। জানিনা আপনাদের দেখানো হয়েছে কিনা। কিন্তু আমি সত্যি বলছি এখানে এমনটাই হয়েছে’।

বিগ বসের ঘরে প্রবেশ করার আগে প্রত্যেক প্রতিযোগীকে কাগজে সই-সাবুদ করে ঢুকতে হয়। প্রতিযোগিরা যদি নিজে থেকে মাঝপথে প্রতিযোগিতা ছেড়ে বেরিয়ে যান তাহলে তাদের দিতে হবে কড়া মাশুল। শোনা যায়, এমন ক্ষেত্রে নাকি জরিমানা বাবদ ২ কোটি টাকা দেওয়ার নিদান রয়েছে।

অনেকের মনেই হয়তো প্রশ্ন উঠতে পারে হাউসের অভ্যন্তরে প্রতিযোগীরা কি করছেন তাতে স্পষ্ট ভাবে ক্যামেরাতে ধরা পড়ে কিভাবে? এই রহস্য লুকিয়ে আছে আয়নাতে। দর্শক হাউজের অভ্যন্তরে অনেক আয়না দেখেছেন। প্রত্যেক আয়নাতেই ক্যামেরা লুকানো আছে। তাই হাউসের সদস্যরা কি করছেন তা সহজেই ধরা পড়ে যায় ক্যামেরায়।

বিগবসে দর্শকের প্রতিক্রিয়াকে অত্যন্ত গুরুত্ব দেওয়া হয়। দর্শকের ভোট এখানে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। দর্শক যাদের ভোট করছেন, যাদের পাল্লা বেশি ভারী তারাই কেবল শেষ পর্যন্ত ময়দানে টিকে থাকতে পারেন। ভোট কম পড়লে বাকিরা এলিমিনেট হতে থাকেন।