লকডাউনে ক্ষতির মুখে একাধিক শিল্প, চরম সিদ্ধান্ত নিল টাটা গ্রুপ

মার্চ মাসে দেশজুড়ে লকডাউনের পর থেকেই বাড়িতেই বসে আছেন কর্মীরা। সরকার ও বেসরকারি ক্ষেত্রে কাজ হারিয়েছেন অনেকেই। কোরোনা পরিস্থিতিতে প্রায় প্রতিটি সংস্থাই বিপুল আর্থিক সংকটের মুখে দাঁড়িয়ে। এমনকি বড় শিল্পগোষ্ঠী টাটা কোম্পানি ও লোকসানের জেরে কঠিন সিদ্ধান্তে পৌঁছতে বাধ্য হয়েছে।

এই অবস্থায় খুব শীঘ্রই বিপুল সংখ্যক কর্মী ছাঁটাই করতে চলেছে টাটা কম্পানি। কম্পানি ইতিমধ্যেই প্রায় হাজার খানেক কর্মী ছাঁটাই করেছে। আগামী কয়েক দিনে আরও কর্মী ছাঁটাই করতে চলেছে এই সংস্থা।

সম্প্রতি লকডাউন এর জেরে টাটা কোম্পানির লোকসানের পরিমাণ বহুগুণে বেড়ে গেছে। ক্ষতির মুখে একাধিক শিল্প। তাই এই পরিস্থিতি সামাল দিতে কর্মী ছাঁটাইয়ের সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন গোষ্ঠীর পরিচালকেরা। খুব শীঘ্রই কর্মী ছাঁটাইয়ের বিষয়ে ঘোষণা করবেন তারা।

সূত্রের খবর লকডাউন পরিস্থিতিতে টাটা গ্রুপের বিভিন্ন ব্যবসা বন্ধ হওয়ার মুখে। টাটা গ্রুপের বিমান সংস্থা (Vistara), গাড়ি শিল্প (Tata Motors), এরোস্পেস জাতীয় একাধিক ব্যবসায় দেখা দিয়েছে মন্দা। এর মধ্যে সবথেকে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে গাড়ি শিল্পের। কেবল টাটা গ্রুপ নয় তার প্রতিযোগি সংস্থা মারুতি সুজুকি কোম্পানির গত এপ্রিল মাসের বিক্রির রিপোর্ট শূন্য। এমত অবস্থায় ভারতে গাড়ি শিল্পের অবস্থা শোচনীয়।

সূত্রের খবর অনুযায়ী, প্রাথমিকভাবে গাড়ি এবং উৎপাদন সংস্থা গুলির চুক্তি ভিত্তিক অস্থায়ী কর্মীদের প্রথমে ছাঁটাই করা হবে। ছাঁটাইয়ের প্রথম তালিকায় টাটা মোটরসের জাগুয়ার ল্যান্ডরোভারের (Jaguar Land Rover) উৎপাদন শিল্পের সঙ্গে যুক্ত কারখানার বহু অস্থায়ী কর্মীরা।

তবে লকডাউন শুরুর দিকে টাটা কোম্পানি ঘোষণা করেছিল যে লোকসান হলেও কোন কর্মী ছাঁটাই করা হবে না। সূত্রে আরো জানা যায়, এমনকি নেদারল্যান্ডসের টাটা গ্রুপের ইস্পাত উৎপাদন ব্যবসা থেকে ও ছাটাই করা হবে ১০০০ থেকে ৯০০০ কর্মী। এর আগেই সেই সকল কর্মীদের ২০% বেতন ছাঁটাই করে দেওয়া কথা বলেছিল টাটা গ্রুপ।

প্রসঙ্গত গত ১৬ ই জুন জাগুয়ার ল্যান্ড রোভার ব্র্যান্ড, লন্ডনের বৃহত্তম গাড়ি উৎপাদন সংস্থার ৩০% লোকসান হওয়ার পর হাজার জন কর্মী ছাঁটাই করে টাটা মোটরস। করোনা ভাইরাস এর জেরে বিশ্বব্যাপি ২০২০ এর আর্থিক পরিস্থিতি একেবারে শোচনীয়। ভারতে এই বছরের এপ্রিল মাসে ৯,৮৯৪ কোটি টাকার লোকসান করেছে টাটা মোটরস।

সেখানে ২০১৯ এর এই সময়েই প্রায় ১১০০ কোটি টাকার লাভ হয়েছিল সংস্থার। বর্তমানে কবে ছাঁটাই শুরু করা হবে এবং ভারতের ঠিক কোন ব্যবসা থেকে কর্মী ছাঁটাই করা হবে সে সম্পর্কে শীঘ্রই ঘোষণায় জানানো হবে।